1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

এখনও নয়াপল্টনে যেতে চান খালেদা জিয়া

বিরোধী দলীয় নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার গুলশানের বাড়িতে যাওয়ার সময় বিএনপির ৩ নেত্রীকে আটক করে রাখে পুলিশ৷ ওদিকে খালেদা জিয়ার বাড়ির সামনে পুলিশ আরো বাড়ানো হয়েছে৷ তিনি সোমবারও নয়াপল্টনে যাওয়ার চেষ্টা করবেন বলে খবর৷

Bangladesch Demonstrationen in Dhaka 30. Dez. 2013

সোমবার সকালে সুপ্রিম কোর্ট এলাকায় বিএনপি-জামায়াতপন্থী আইনজীবী এবং যুব মহিলা লীগের মধ্যে ধাওয়া, পাল্টা ধাওয়া এবং সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে

বিএনপির নেতৃত্বে বিরোধী ১৮ দলের ‘মার্চ ফর ডেমোক্রেসি' বা গণতন্ত্রের অভিযাত্রা কর্মসূচির দ্বিতীয় দিনেও মাঠ দখল করে আছে পুলিশ এবং আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা৷ ঢাকার সঙ্গে সারা দেশের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন আছে৷ এছাড়া ঢাকার ভিতরেও চলছে না কোনো বাস-মিনিবাস৷ ঢাকা পরিণত হয়েছে পুলিশ আর রিকশার শহরে৷

Bangladesch Khaleda Zia vor den Wahlen

নয়াপল্টনে যেতে চান খালেদা জিয়া

সকাল থেকেই পুলিশ আর আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা রাজধানীর সবগুলো প্রবেশ পথে অবস্থান নেয়৷ রাজধানী জুড়ে আওয়ামী লীগের কর্মীরা লাঠি হাতে মিছিল-মহড়া দিচ্ছেন৷ রাজধানীতে চলছে ব্যাপক তল্লাশি৷ অফিস যাত্রী, সাধারণ মানুষ, কেউই তল্লাশি থেকে রেহাই পাচ্ছেন না – পথচারী, রিকশা যাত্রী কেউই না৷

এরই মধ্যে সকালে সুপ্রিম কোর্ট এলাকায় বিএনপি-জামায়াতপন্থী আইনজীবী এবং শাসক দলের সহযোগী সংগঠন যুব মহিলা লীগের মধ্যে ধাওয়া, পাল্টা ধাওয়া এবং সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে৷ বেলা পৌনে ১২টার দিকে বিরোধী দলীয় আইনজীবীরা একটি মিছিল নিয়ে সুপ্রিম কোর্টের মূল গেটের কাছে আসেন৷ গেট বন্ধ থাকায় তাঁরা ভিতরেই মিছিল-স্লোগান দিতে থাকেন৷ তখন সেখান থেকে যুব মহিলা লীগের একটি মিছিল যাওয়ার সময় দুই পক্ষই ইট-পাটকেল মারে৷ কিছুক্ষণ এই ইট-পাটকেল ছোড়াছুড়ির পর, পুলিশের হস্তক্ষেপে তা বন্ধ হয়৷

এদিকে সুপ্রিম কোর্ট এলাকায় দ্বিতীয় দিনের হাঙ্গামার ঘটনায় তীব্র প্রতিাক্রয়া জানিয়েছেন সিনিয়র আইনজীবীরা৷ ব্যারিস্টার রফিকুল হক বলেছেন, আইনজীবীদের ওপর বহিরাগতদের হামলায় সুপ্রিম কোর্টের জানাজা হয়ে গেছে৷ তবে পুলিশ কমিশনার বেনজীর আহমেদ দাবি করেছেন যে, সেখানে আইনজীবীদের সঙ্গে বহিরাগতরাও ছিল৷ তিনি আরো দাবি করেন, প্রেসক্লাবে জঙ্গিরা বৈঠক করে বলে পুলিশের কাছে তথ্য আছে৷

ওদিকে দুপুর সোয়া ১টার দিকে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান সেলিমা রহমান, সংসদ সদস্য রাশেদা বেগম হীরা এবং সাবেক সংসদ সদস্য নেওয়াজ হালিমা আরলি পায়ে হেঁটে গুলশানের ৭৯ সড়কে খালেদা জিয়ার বাড়ির সামনে যান৷ সেলিমা রহমান পুলিশ সদস্যদের তাঁদের ঢুকতে দিতে বলেন৷ সেলিমা রহমান তখন পুলিশকে উদ্দেশ্য করে বলেন, ‘‘খালেদা জিয়া গ্রেপ্তার নন, তাঁকে আটকে রেখেছেন কেন?'' এরপরই পুলিশ সদস্যরা সেলিমা রহমানসহ ৩ নেত্রীকে আটক করে একটি মাইক্রোবাসে তুলে নিয়ে যায়৷ তবে বিকেলের দিকে তাঁদের ছেড়ে দেয়া হয়৷

খালেদা জিয়ার বাড়ির সামনে পুলিশ পাহারা আরো বাড়ানো হয়েছে৷ সেখানে পুলিশ ছাড়াও ব়্যাব সদস্যদেরও মোতায়েন করা হয়েছে৷ খালেদার নিরাপত্তা কর্মীরা জানিয়েছেন যে, তিনি যে কোনো সময় নয়াপল্টনে যাওয়ার চেষ্টা করবেন৷ তিনি যদি কোনোভাবে বের হতে পারেন তাহলে তাঁকে আটকানো কঠিন হবে৷ পুলিশ খালেদা জিয়ার বাড়ির সামনে থেকে সাংবাদিকদেরও সরিয়ে দিয়েছে বলে প্রকাশ৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন