1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

এক সর্পিনী ‘কুমারী মা’

মফস্বলি বাতাসে ভেসে বেড়ানো এ কোনো গুজব নয়, রীতিমতো পরীক্ষা নিরীক্ষা করে তবেই বিশেষজ্ঞরা ঘোষণা করেছেন যে, সম্প্রতি পুরুষ সঙ্গীর শুক্রাণুর সহায়তা ছাড়াই এক সর্পিনী ২২ টি সর্প সন্ততির মা বনেছে৷

Actress, Mallika, Sherawat, snake, photo, Hisss, সাপ, অভিনেত্রী, মল্লিকা, শেরাওয়াত,

সাপ হাতে অভিনেত্রী মল্লিকা শেরাওয়াতের পোজ (ফাইল ছবি)

অর্থাৎ সরীসৃপ কূলে এ সর্পিনী একেবারে ২২ টি সন্তানের ‘কুমারী মা' বনেছে৷

বিপুলা এ পৃথিবীর কতটুকু জানি! সত্যিই তাই, এ পৃথিবী অপার রহস্যময়ী৷ তার প্রকৃতি ও পরিপার্শ্ব, তার প্রাণীদেরও রয়েছে এমন অনেক অজানা রহস্যে ঘেরা জীবন৷ সম্প্রতি এক সর্পিনীর ‘কুমারী মা' হওয়ার ঘটনাটি যেন তারই একটি উদাহরণ৷

রয়্যাল সোসাইটি জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে বিচিত্রময়ী এই সর্পিনীর বিশদ বৃত্তান্ত৷ বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, আমরা যাদের তুচ্ছ জ্ঞান করি সেই পোকামাকড়ের মধ্যেও নাকি মিলিত না হয়ে সন্ততির জন্ম দেওয়ার সামর্থ্য রয়েছে৷ এক্ষেত্রে এরা নাকি তাদের একধরণের ‘ক্লোনিং' প্রক্রিয়ায় বিষয়টি ঘটায়৷ কিন্তু মেরুদন্ড রয়েছে এমন প্রাণীদের ক্ষেত্রে বিষয়টি একেবারে দশমিক এক শতাংশেরও কম ক্ষেত্রে নজরে আসে৷ অর্থাৎ এ সর্পিণী যা ঘটিয়েছে তা রীতিমতো গিনেস বুকে নাম তোলার কাজ!

অবশ্য বিজ্ঞানীরা ২০০৬ সালে কমোডো দ্বীপের দুই ড্রাগনের ডিম দেখেছিলেন, যে ডিমগুলো যৌন মিলন ছাড়াই পেড়েছিল এই অতিকায় প্রাণীগুলো৷ এই শুক্রাণু ছাড়া ডিম সৃষ্টি'র প্রক্রিয়টির একটি নামও রয়েছে, সেটি- পার্থেনোজেনেসিস৷ ঠিক একই রকমের আরেকটি ঘটনা বিজ্ঞানীরা ২০০৭ সালের দিকে চাক্ষুষ করেছিলেন হাতুড়িমাথা বা হ্যামারহেড হাঙরের ক্ষেত্রে৷ যৌন মিলন ব্যতিরেকে গর্ভধারণ এবং সন্তানের জন্ম দেওয়ার বিষয়টি ঘটেছিল বন্দি হাঙরের ক্ষেত্রে৷

কিন্তু সাপ ও সরীসৃপদের ক্ষেত্রে সচরাচর যৌন মিলন ছাড়া এই সন্তান জন্মদানের বিষয়টি ঘটে না৷ আর বাবার কাছ থেকে পাওয়া জেনেটিক উত্তরাধিকারের বিষয়-সম্পত্তি বা গুণাগুণহীন এই অযৌন-সন্ততিরা খানিক নাকি দুবলা পাতলাই হয়৷ পরিবেশের সঙ্গে খাপ খাইয়ে চলার সামর্থ্য এদের যেমন কম থাকে তেমনি টিকে থাকার ক্ষেত্রে রোগ-ব্যাধিকেও এই অযৌনজাতকেরা কমই সামলাতে পারে৷

18.07.2006 projekt zukunft fragezeichen

এই ছবিটিকেই খুঁজছেন আপনি৷ ছবিটির তারিখ 10 Nov এবং কোড: 6845 পাঠিয়ে দিন bengali@dw-world.de ঠিকানায় অথবা এসএমএস করুন 0088 0173 030 2205, ভারত: 0091 98309 97232 নম্বরে৷ এই প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে জিততে পারেন আকর্ষণীয় সারপ্রাইজ গিফট…

যাইহোক কথা হচ্ছিল সর্পিনীর৷ তাতেই ফেরা যাক৷ এই প্রথমবারের মতোই মার্কিন মুলুকে এই বোয়া সর্পিনীর কুমারী মা হওয়ার খোঁজ পেয়েছেন বিজ্ঞানী আর সর্প বিশেষজ্ঞরা৷ বোয়া সর্পিনীটির কুমারী মা হওয়া সম্পর্কে নর্থ ক্যারোলিনা বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক ড. ওয়ারেন বুথ বলেছেন, এই সর্পিনীটি কেবল একবার নয় দুইবার কুমারী মা হয়েছে৷ সব বাচ্চাগুলোই মেয়ে-সাপ৷ আর এরা মায়ের জিনগত বৈশিষ্ট্যের মাত্র অর্ধেকই পেয়েছে৷ তবে এই শিশু- সাপদের শরীরের দুর্লভ ক্যারামেল রংটি এরা পেয়েছে মায়ের কাছ থেকেই৷অন্য কোন বাবা সাপেরই এই রঙটি ছিলো না৷ বোয়া সর্পিনীটির কুমারী মাতৃত্বের এটি একটি অকাট্য প্রমাণ৷

আরেকটি চমকপ্রদ বিষয়ও রয়েছে এই অযৌনজাতিকা বোয়া-শিশুদের৷ সচরাচর সাপদের ক্ষেত্রে ক্রোমোজম জেডজেড এ হয় পুরুষ সাপ আর জেডডব্লিউ হলে হয় সর্পিনী৷ কিন্তু এই সব শিশু-বোয়াদের ক্রোমোজমের ক্ষেত্রে হয়েছে ডব্লিউডব্লিউ!

এই একজোড়া ডব্লিউ ক্রোমোজমের বিষয়টি কিন্তু মায়ের কুমারী মাতৃত্বের আরো একটি অকাট্য প্রমাণ, আর বিষয়টি পৃথিবীতে এই প্রথমবারের মতোই বিজ্ঞানীরা চাক্ষুষ করলেন৷ এতোকাল এই জোড়া ডব্লিউ ক্রোমোজমের বিষয়টি অবাস্তবই ছিলো৷

প্রতিবেদন: হুমায়ূন রেজা

সম্পাদনা: আব্দুল্লাহ আল-ফারূক

নির্বাচিত প্রতিবেদন