1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

খেলাধুলা

‘এক বছর ধরেই এই ফাইনাল খেলে আসছে ভারত’

আজ থেকে ২৮ বছর আগে লর্ডসের মাটিতে বিশ্বকাপে ক্রিকেটে ক্যারিবীয় আধিপত্যের সমাপ্তি হয়েছিল কপিল দেবের ভারতের হাতে৷ গত একযুগ ধরে বিশ্বকাপে অসি আধিপত্যের শেষটাও সেই একই ভারতের হাতে, নেতৃত্বে এবার মহেন্দ্র সিং ধোনি৷

default

কোয়ার্টার ফাইনালে অস্ট্রেলিয়া, সেমিফাইনালে চির প্রতিদ্বন্দ্বী পাকিস্তান আর ফাইনালে গতবারের রানার্স আপ শ্রীলংকাকে হারিয়ে এবার যোগ্যতর দল হিসেবেই বিশ্বসেরার খেতাবটি জয় করলো ভারত৷ শনিবার শ্রীলংকার বিপক্ষে ২৭৫ রানের জয়ের লক্ষ্যে নেমে শুরুতেই শেবাগ এবং তেন্ডুলকারের উইকেট দুটি হারায় ভারত৷ তখন ভারতীয় অনেক সমর্থকই হয়তো ভাবছিলেন দীর্ঘ ২৮ বছর ধরে যে অপেক্ষা চলছে তার অবসান হবে তো? এই অবস্থাতেই গৌতম গম্ভীর এবং বিরাট কোহলির একটি মাঝারি জুটি৷ গত কয়েক বছর ধরে পরিসংখ্যানের দিক থেকে শচীন-শেবাগকে টেক্কা দিয়ে চলেছেন গম্ভীর৷ কিন্তু অনেকটা চাপা পড়ে যাচ্ছিল সেটি৷ নিজের জাত চেনানোর জন্য এমন মঞ্চকেই শেষ পর্যন্ত বেছে নিলেন গম্ভীর৷ ৯৭ রানের যে ঝকঝকে ইনিংস খেললেন তিনি সেটি কিছুটা ম্লান হয়ে গেছে সেঞ্চুরি না পাওয়াতে৷ কিন্তু মাঠে ছিলেন অধিনায়ক ধোনি আর টুর্নামেন্টের সেরা খেলোয়াড় যুবরাজ সিং৷ জয়ের মুহুর্তটি এই দুই সেরা খেলোয়াড়ের কাছ থেকেই শেষ পর্যন্ত এল৷

দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে শেষ ওভারে হরভজনের বদলে নেহরাকে বোলিং করানোর সিদ্ধান্ত নিয়েও বেশ সমালোচনার মুখে পড়েছিলেন ধোনি৷ এই ম্যাচে নিজেকে ব্যাটিং অর্ডারে এগিয়ে নিয়ে এসেছিলেন তিনি৷ এবং সেই সিদ্ধান্তকে সঠিক বলেই প্রমাণ করলেন৷ অধিনায়ক হিসেবেই চ্যালেঞ্জটা নিয়েছেন ধোনি৷ ম্যাচ শেষে তিনি জানিয়েছেন, ইচ্ছা করেই একটু ওপরে খেলেছেন, যুবরাজকে পরে ঠেলে দিয়েছেন৷ এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি যুবরাজের ওপর ভরসা করে৷ পাশাপাশি একটি চ্যালেঞ্জও ছিল নিজের ওপর৷ চলতি টুর্নামেন্টে দল ম্যাচ জেতায় ধোনির বাজে ব্যাটিং পারফরমেন্স নিয়ে তেমন কথা শোনা যাচ্ছিল না৷ কিন্তু ভারতীয় অধিনায়ক তাঁর আসল খেলাটা বোধহয় জমিয়ে রেখেছিলেন ফাইনালের জন্য৷ ব্যাটিং এ আগে নেমে ম্যাচ জেতানো ৯১ রান করে তিনি বুঝিয়ে দিলেন টিম ইন্ডিয়ার নেতৃত্ব সবচেয়ে যোগ্য ব্যক্তির হাতেই৷

১২১ কোটি মানুষের দেশ ভারতের জাতীয় দলকেই সবচেয়ে বেশি মানসিক চাপ সইয়ে ক্রিকেট খেলতে হয়৷ এবার স্বাগতিক হিসেবে সেই চাপের পরিমাণটা ছিল অত্যন্ত বেশি৷ তো সেই চাপ সইয়ে ভারতীয় দলের এবার যে সাফল্য তার পেছনে সবচেয়ে বড় অনুঘটকটি কি? এটা জানতে হলে যেতে হবে প্যাডি আপটনের কাছে৷ দলের মানসিক প্রশিক্ষক হয়ে বেশ কিছুদিন ধরে রয়েছেন তিনি৷ তিনিই জানালেন, গত একটি বছর ধরে টিম ইন্ডিয়া এই ফাইনালের জন্য অপেক্ষা করছে৷ আপটন বলেন, ‘‘গত এক বছর ধরে আমরা এই ম্যাচটির জন্য প্রস্তুতি নিয়েছি৷ খেলোয়াড়রা সবসময় কথা বলতো মুম্বইয়ের ফাইনাল ম্যাচ নিয়ে৷ তাই শনিবার যখন আমরা ফাইনাল ম্যাচে নামছিলাম, তখন আমরা প্রতিপক্ষের চেয়ে মানসিকভাবে অনেক বেশি প্রস্তুত ছিলাম৷'' আপটন জানান, ‘‘এই ফাইনাল ম্যাচ খেলার স্বপ্ন নিয়ে দলের অনেক খেলোয়াড় নির্ঘুম রাত কাটিয়েছে৷ অনেকে ঠিকমত খেতেও পারতো না৷'' তাঁদের দীর্ঘদিনের কঠোর সাধনা আর দৃঢ় প্রতিজ্ঞাই ভারতকে এবার বিশ্বসেরার খেতাব পাইয়ে দিয়েছে৷

প্রতিবেদন: রিয়াজুল ইসলাম

সম্পাদনা: সুপ্রিয় বন্দ্যোপাধ্যায়