1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

‘এক দশক আগে থেকেই ম্যার্কেলের ফোনে আড়ি পাতা হচ্ছে'

জার্মানির চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেলের ফোনে আড়ি পাতা হয়েছিল ২০০২ সাল থেকে৷ জার্মান একটি সংবাদপত্র রোববার এই দাবি করে বলেছে, যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তা সংস্থা অবশ্য তা স্বীকার করেনি৷

এক বা দুই বছর নয়, জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেলের ফোনে আড়ি পাতা হচ্ছিল প্রায় এক দশক আগে থেকে এবং এই বিষয়টি সম্পর্কে নাকি জানতেন স্বয়ং প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা৷ এমনটাই জানিয়েছে জার্মানির ‘বিল্ড আম সনটাগ' সাপ্তাহিক পত্রিকা৷ পত্রিকাটি আরো বলছে, একথা জেনেও ওবামা তা বন্ধের নির্দেশ দেননি৷ মার্কিন গোয়েন্দা সূত্রের বরাত দিয়ে একথা জানিয়েছে পত্রিকাটি৷

মার্কিন গোয়েন্দা বিভাগের সূত্রের বরাত দিয়ে জার্মানির ‘বিল্ড আম সনটাগ' আরও জানিয়েছে, এনএসএ প্রধান জেনারেল কিথ আলেকজান্ডার ওবামাকে ২০১০ সালে ম্যার্কেলের ফোনে আড়ি পাতার বিষয়ে সংক্ষিপ্ত ভাবে জানিয়েছিলেন৷ পত্রিকাটি বলছে, এনএসএ ২০০৫ সালে তৎকালীন জার্মান চ্যান্সেলর গেয়ারহার্ড শ্র্যোডারের ফোনে আড়ি পেতেছিল, যখন তিনি ইরাক যুদ্ধে প্রেসিডেন্ট বুশকে সমর্থন করতে রাজি হননি৷

তবে, এনএসএ মুখপাত্র ভ্যানি ভাইনস-কে এ বিষয়ে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি তা অস্বীকার করে বলেছেন, ২০১০ সালে জার্মানির চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেলের ফোনে আড়ি পাতার বিষয়ে এবং তখনকার কোনো প্রোগ্রাম নিয়েই প্রেসিডেন্ট ওবামার সাথে আলোচনা করেননি তিনি৷ জার্মানির চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেলের ফোনে প্রায় এক দশক আগে থেকেই আড়ি পাতা হয়েছিল বলে জানিয়েছে জার্মানির ‘ডেয়ার স্পিগেল'৷

ARCHIV - Bundeskanzlerin Angela Merkel (CDU) hält ein abhörsicheren Blackberry am 05.03.2013 am Stand von Secusmart beim Eröffnungsrundgang der Computermesse CeBIT in Hannover (Niedersachsen) hoch. Das Handy von Merkel ist möglicherweise von US-Geheimdiensten überwacht worden. Die Bundesregierung habe entsprechende Informationen erhalten und umgehend bei der US-Regierung «um sofortige und umfassende Aufklärung gebeten», teilte Regierungssprecher Steffen Seibert am Mittwoch (23.10.2013) mit. Foto: Julian Stratenschulte/dpa +++(c) dpa - Bildfunk+++

এক বা দুই বছর নয়, জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেলের ফোনে আড়ি পাতা হচ্ছিল প্রায় এক দশক আগে থেকে

তবে রয়টার্স এর সত্যতা যাচাই করতে পারেনি৷ কেননা এনএসএ-র কর্মকর্তাদের এ বিষয়ে জিজ্ঞাসা করা হলে তাঁরা তা অস্বীকার করেছেন৷ এমনকি হোয়াইট হাউস এবং জার্মান সরকারও এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হয়নি বলে জানিয়েছে রয়টার্স৷

তবে, এসব তথ্য ফাঁস হওয়ার পর ওবামার নির্দেশে এনএসএ-র গোয়েন্দারা আঙ্গেলা ম্যার্কেল এবং অন্য বিশ্ব নেতাদের ফোনে আড়ি পাতা বন্ধ করেছে বলে জানিয়েছে ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল৷ ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল বলছে, এনএসএ মুখপাত্র কেটলিন হাইডেন এক বিবৃতিতে বলেছেন, আড়িপাতার বিষয়টি খতিয়ে দেখার নির্দেশ দিয়েছেন ওবামা৷

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক মার্কিন কর্মকর্তার বরাত দিয়ে পত্রিকাটি লিখেছে, বছরের মাঝামাঝি সময়ে সন্দেহভাজন ব্যক্তির উপর নজর রাখার জন্য ফোনে আড়িপাতার বিষয়টি সম্পর্কে জানতে গিয়ে প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার নজরে আসে এটি৷

তিনি জানতে পারেন, এনএসএ জার্মানির চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেলসহ অন্তত ৩৫ বিশ্বনেতার ফোনে আড়ি পেতেছে৷ মার্কিন কর্মকর্তারা ওয়াল স্ট্রিট জার্নালকে জানিয়েছেন, এনএসএ এমন অনেক ক্ষেত্রে আড়ি পেতেছে, যেগুলোর অনেকগুলোই প্রেসিডেন্টকে জানানো হয়নি৷ নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন জানিয়েছেন, এনএসএ-ই এ সব সিদ্ধান্ত নিয়েছে, এ বিষয়ে প্রেসিডেন্ট ওবামা কোন নির্দেশ দেননি৷

পত্রিকাটির করা জনমত জরিপ বলছে, ৬০ ভাগ জার্মান বিশ্বাস করেন, এ ঘটনার ফলে দুদেশের মধ্যে সম্পর্কের অবনতি হবে৷ জার্মানি খুব শিগগিরই তাদের গোয়েন্দা সংস্থার প্রধানকে ওয়াশিংটনে পাঠাচ্ছে এসব অভিযোগের সদুত্তর পাওয়ার জন্য৷

এদিকে, জার্মানির বেশ কয়েকটি গণমাধ্যম আঙ্গেলা ম্যার্কেলের অফিসের বরাত দিয়ে জানিয়েছে, বুধবার মার্কিন প্রেসিডেন্ট টেলিফোনে জার্মান চ্যান্সেলরের কাছে এ ঘটনার জন্য ক্ষমা চেয়েছেন৷ এ বিষয়টি তাঁর জানা থাকলে এটা থামাতেন বলেও জানিয়েছে অফিস৷

স্প্যানিশ পত্রিকা ‘এল মুন্ডো' সোমবার দাবি করেছে, এনএসএ গত বছরের ডিসেম্বরের ১০ তারিখ থেকে এ বছরের জানুয়ারির আট তারিখ পর্যন্ত স্পেনে ৬ কোটি ৫ লাখ ফোনে আড়ি পেতেছে৷ সাবেক এনএসএ কর্মকর্তা এডওয়ার্ড স্নোডেনের ফাঁস করা তথ্য থেকে তারা বিষয়টি সম্পর্কে জেনেছে৷ পত্রিকাটি আরো বলছে, ফোনে কী বিষয়ে কথা হয়েছে, তা সম্পর্কে আড়ি পাতা হয়নি, বরং কোথায় এবং কতক্ষণ কথা বলা হয়েছে সেটি পর্যবেক্ষণ করা হয়েছে৷

এপিবি/এসবি (এএফপি, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়