1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

একুশ এক করে দিল দুই বাংলার মানুষকে

একুশে ফেব্রুয়ারি কিছুক্ষণের জন্য হলেও এক করে দিয়েছিল দুই বাংলার মানুষকে৷ যশোর সীমান্তের নো-ম্যানস ল্যান্ডে অস্থায়ীভাবে নির্মিত শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে শহীদদের প্রতি একসঙ্গে সম্মান জানান তারা৷

default

ডয়চে ভেলেতে নির্মিত শহীদ মিনার

এরপর বাংলাদেশের বেনাপোল ও ভারতের পেট্রাপোলে আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়৷ এতে দুই বাংলার রাজনীতিবিদ, শিল্পী, সাহিত্যিক, সাংবাদিক ও সাংস্কৃতিক কর্মীরা অংশ নিয়েছেন৷

এদের মধ্যে ছিলেন পশ্চিমবঙ্গের সংখ্যালঘু উন্নয়ন ও মাদ্রাসা শিক্ষামন্ত্রী আবদুস সাত্তার৷ আলোচনায় অংশ নিয়ে তিনি বলেন, ‘দুই বাংলার ভাষা এক, সংস্কৃতি এক৷ অথচ কাঁটাতারের বেড়া আমাদের পৃথক করে রেখেছে৷ তাই এই দিনটিতে নাড়ির টানে আমরা বাংলার মাটিতে ছুটে আসি৷' লোকসভার সাবেক সদস্য অমিতাভ নন্দী দুই বাংলার মানুষের ভ্রাতৃত্বের সম্পর্ক আরও গভীর করতে পাসপোর্ট-ভিসা পদ্ধতি তুলে দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন৷

বাংলাদেশের পক্ষে যশোর-১ আসনের সাংসদ শেখ আফিল উদ্দীন বলেন, ‘বয়সের কারণে অনেক ভাষাসৈনিক আমাদের কাছ থেকে হারিয়ে যাচ্ছেন৷ তাঁদের স্মৃতিকে বাঁচিয়ে রাখতে হবে৷' সব্যসাচী লেখক সৈয়দ শামসুল হকও আলোচনায় অংশ নেন৷

মেহেরপুর সীমান্তেও এধরনের অনুষ্ঠান হয়েছে৷ গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি উপেক্ষা করে শত শত মানুষ যোগ দেন সেই উৎসবে৷ সেখানে আয়োজিত আলোচনা সভায় মেহেরপুর-১ আসনের সাংসদ জয়নাল আবেদীন বলেন, ‘দুই বাংলার বাংলা ভাষাভাষী মানুষের আজকের এই উপস্থিতি প্রমাণ করে, সীমান্তে কাঁটাতারের বেড়া কোনো ভালোবাসাকে আটকে রাখতে পারে না৷'

প্রতিবেদন: জাহিদুল হক

সম্পাদনা: অরুণ শঙ্কর চৌধুরী

সংশ্লিষ্ট বিষয়