1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

একদিনে ৩২টি প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন!

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী সরকারের শেষ সময়ে একের পর এক উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন করছেন৷ আর উন্নয়নের ধারাবাহিকতা রক্ষায় তাঁর সরকারকে দ্বিতীয় মেয়াদে ক্ষমতায় আনতে ভোট চাইছেন৷ বিএনপি বলছে প্রধানমন্ত্রী ক্ষমতার অপব্যবহার করছেন৷

default

শনিবার চট্টগ্রামে ৩২টি উন্নয়ন প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঢাকায় শুক্রবার সাড়ে ১১ কি.মি. দীর্ঘ মেয়র হানিফ ফ্লাইওভারের উদ্বোধন করেন৷ প্রায় ৩০ ভাগ কাজ বাকি রেখেই ফ্লাইওভারটি উদ্বোধন করে যানবাহন চলাচলের জন্য খুলে দেয়া হয়৷ আর শনিবার তিনি চট্টগ্রামের বহদ্দারহাটে এম এম মান্নান উড়াল সড়কের উদ্বোধন করেন৷ উড়াল সড়কের কাজও পুরোপুরি শেষ হয়নি৷ একই সঙ্গে তিনি চট্টগ্রামে বিভিন্ন ধরণের ৩২টি উন্নয়ন প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেছেন৷ প্রতিটি অনুষ্ঠানেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উন্নয়নের ধারাবাহিকতা রক্ষায় তাঁর সরকারকে দ্বিতীয় মেয়াদে নির্বাচনের জন্য ভোট চেয়েছেন৷ জানা গেছে সরকারের শেষ সময় আরো কিছু স্থাপনা উদ্বোধন এবং উন্নয়ন প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করা হবে৷ সরকার তাঁর নির্বাচনি প্রতিশ্রুতি পূরণ করছে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী৷

তবে বিরোধী দল বিএনপি একে ভাল চোখে দেখছেনা৷ ঢাকার সাবেক মেয়র এবং বিএনপি নেতা সাদেক হোসেন খোকা সরকারের বিরুদ্ধে ‘উন্নয়ন ছিনতাইয়ের' অভিযোগ করেছেন৷ তিনি দাবি করেন মেয়র হানিফ ফ্লাইওভার তাদেরই উন্নয়ন পরিকল্পনার অংশ ছিল৷ সরকার এখন তার কৃতিত্ব নিচ্ছে৷ তিনি দাবি করেন ঢাকার যত উন্নয়ন সবই হয়েছে সাবেক বিএনপি সরকারের আমলে৷ এই সরকারের আমলে কিছু হয়নি৷

এদিকে বিএনপি'র চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা শামসুজ্জামান দুদু ডয়চে ভেলের কাছে দাবি করেন, সরকার শেষ সময়ে বিরোধী দলের আন্দোলন ঠেকাতে নানা ধরণের উদ্বোধন শুরু করেছে৷ তাঁর দাবি ২৪শে অক্টোবরের পর এই সরকারের কোনো বৈধতা থাকবেনা৷ তাই এসব করে কোনো কাজ হবেনা৷ তিনি অভিযোগ করেন উদ্বোধনের নামে প্রধানমন্ত্রী সরকারি সুযোগ সুবিধা ব্যবহার করে দলের জন্য ভোট চাইছেন৷ এটা নির্বাচনি আচরণ বিধির লঙ্ঘন৷ অথচ নির্বাচন কমিশন চুপচাপ আছে৷ ক্ষমতার এই অপব্যবহারই প্রমাণ করে বর্তমান সরকারের অধীনে কোনো সুষ্ঠু এবং নিরপেক্ষ নির্বাচন সম্ভব নয়৷

শামসুজ্জামান দুদু দাবি করেন অনেক প্রকল্পের কাজই অসমাপ্ত রেখে উদ্বোধন করা হচ্ছে৷ এসব কাজের স্বচ্ছতা নিয়েও প্রশ্ন আছে৷ সরকার পদ্মা সেতু প্রকল্প নিয়ে যা করেছে তাতেই সব কিছু পরিষ্কার হয়ে গেছে৷

জবাবে দপ্তরবিহীনমন্ত্রী সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত ডয়চে ভেলেকে বলেন এখন কোনো ভাল কাজও বিএনপি'র ভাল লাগেনা৷ সরকার উন্নয়ন করছে আর বিএনপি আন্দোলনের হুমকি দিচ্ছে৷ জনগণই এর জবাব দেবে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন