একদিনে পাঁচ নেতার জামিন, মাহবুবের রিমান্ড বাতিল | বিশ্ব | DW | 21.01.2014
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

একদিনে পাঁচ নেতার জামিন, মাহবুবের রিমান্ড বাতিল

বিএনপির পাঁচ নেতাকে মঙ্গলবার জামিন দিয়েছে হাইকোর্ট৷ তবে দলের চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা খন্দকার মাহবুব হোসেনের রিমান্ড আদাল অবৈধ ঘোষণা করা হয়েছে৷ বিএনপি বলেছে, আটক নেতাদের মুক্ত করতে তারা আইনি লড়াই চালিয়ে যাবে৷

হাইকোর্ট থেকে বিএনপির যে পাঁচ নেতা জামিন পেয়েছেন তাঁরা হলেন, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ, ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া ও এম কে আনোয়ার, বিএনপির চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা আব্দুল আউয়াল মিন্টু এবং বিশেষ সহকারি শিমুল বিশ্বাস৷ এঁদের পাঁচজনকেই ৭ই নভেম্বর গ্রেপ্তার করে পুলিশ৷ এরপর ককটেল বিস্ফোরণ এবং গাড়ি ভাঙচুরের ঘটনায় গত বছরের ২৪শে সেপ্টেম্বর ও ৫ই নভেম্বর মতিঝিল থানায় দায়ের করা দুটি মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়৷

মঙ্গলবার হাইকোর্টের বিচারপতি নিজামুল হক ও মো. জাহাঙ্গির হোসেনের বেঞ্চে বিএনপির এই পাঁচ নেতার জামিনের আবেদন জানান হয়৷ ব্যারিস্টার রফিকুল হকসহ পাঁচজন আইনজীবী এই জামিনের আবেদন জানিয়ে শুনানিতে অংশ নেন৷ এছাড়া, রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম এবং ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল অমিত তালুকদার৷ আদালত উভয় পক্ষের শুনানি শেষে দুটি মামলাতেই এই পাঁচজন নেতার জামিন মঞ্জুর করেন৷

বিএনপি নেতাদের আইনজীবীদের একজন এহসানুর রহমান জানান, আব্দুল আউয়াল মিন্টুর বিরুদ্ধে মোট পাঁচটি মামলার তিনটিতে তিনি নিম্ন আদালত থেকে জামিন পেয়েছেন৷ আর এবার, অন্য দুটি মামলায় হাইকোর্ট থেকে জামিন পেলেন৷ তাই তাঁর মুক্তিতে আর কোনো বাধা নেই৷ এদিকে অন্য চারজন নেতার বিরুদ্ধে আরো মামলা থাকায় তাঁরা আপাতত মুক্তি পাচ্ছেন না৷ এহসানুর রহমান জানান, নেতাদের মুক্ত করতে আইনি লড়াই অব্যাহত থাকবে৷

Bangladesch Dhaka Bus Feuer brennender Bus

বিএনপির পাঁচ নেতাকে ককটেল বিস্ফোরণ ও গাড়ি ভাঙচুরের মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছিল



ওদিকে বিএনপির চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা এবং বার কাউন্সিলের ভাইস চেয়ারম্যান খন্দকার মাহবুব হোসেনকে রিমান্ডে নেয়ার আদেশ বেআইনি বলে ঘোষণা করেছে হাইকোর্ট৷ গত ৭ই জানুয়ারি তাঁকে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে থেকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ৷ পুলিশের কাজে বাধা এবং ভাঙচুর ও বোমা হামলায় উস্কানি দেয়ার অভিযোগে ৫ই জানুয়ারি রমনা থানায় দায়ের করা একটি মামলায় তাঁকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়৷ ৮ই জানুয়ারি এই মামলায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিম্ন আদালত তাঁর দু'দিনের পুলিশ রিমান্ড মঞ্জুর করেন৷ পুলিশ রিমান্ডের বিরুদ্ধে হাইকোর্টের বিচারপতি নাঈমা হায়দার এবং বিচাপতি জাফর হায়দারের বেঞ্চে রিট আবেদন করা হয় ৯ই জানুয়ারি৷ আদালত প্রথমে রিমান্ড স্থগিত ও রুল জারি করে৷ পরে মঙ্গলবার চূড়ান্ত শুনানি শেষে খন্দকার মাহবুবের রিমান্ড বেআইনি ও বাতিল ঘোষণা করেন৷ এর ফলে তাঁকে আর রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করতে পারবে না পুলিশ৷

অন্যদিকে বিএনপির আরেক নেতা হান্নান শাহর হেফাজতকাণ্ড মামলায় জামিন আবেদন ‘না মঞ্জুর' করেছে জেলা ও দায়রা জজ আদালত৷ বিএনপির শীর্ষ থেকে নানা পর্যায়ের অন্তত ৫০ জন নেতা এখন কারাগারে আছেন৷ তাঁদের প্রত্যেকের বিরুদ্ধে একাধিক মামলা আছে৷ বিএনপির চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা আহমেদ আজম খান জানান, সরকার মিথ্যা এবং হয়রানিমূলক মামলায় নেতাদের আটক করেছে৷ তাই তাঁদের মুক্ত করতে আইনি লড়াই অব্যাহত থাকবে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়