1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

একদিকে শান্তির প্রয়াস, অন্যদিকে হত্যাযজ্ঞ

জন কেরির আশা প্রকাশের পরপরই সিরিয়ায় শুরু হয়ে গেল বোমা হামলা৷ দামেস্ক এবং হোমস নগরীতে উপর্যুপরি বোমা হামলায় এ পর্যন্ত অন্তত ১৪০ জন নিহত হয়েছে৷ শিয়া অধ্যুষিত এলাকায় পরিচালিত এসব হামলার দায় স্বীকার করেছে আইএস৷

রবিবার দামেস্কে যখন বোমা বিস্ফোরিত হয় তখন স্কুল-কলেজ থেকে শিক্ষার্থীরা সবে বাড়ি ফিরতে শুরু করেছে৷ সরকারি সংবাদমাধ্যমের খবর অনুযায়ী তখনই শুরু হয় হামলা৷ যুক্তরাজ্যভিত্তিক মানবাধিকার সংস্থা সিরিয়ান অবজারভেটরি ফর হিউম্যান রাইটস জানিয়েছে, তারা অন্তত চারটি বোমা হামলা সম্পর্কে নিশ্চিত৷ চারটির একটি ছিল গাড়ি বোমা আর দু'টি আত্মঘাতী বোমা৷ চতুর্থ হামলাটির ধরণ সম্পর্কে নিশ্চিত কোনো তথ্য দিতে পারেনি সিরিয়ান অবজারভেটরি ফর হিউম্যান রাইটস৷

দামেস্কের দক্ষিণাঞ্চলীয় আক্রমনস্থলটির নাম সাঈদা জেইনাব৷ জেলা প্রশাসনের অধীনস্থ এই এলাকাটি শিয়া মুসলমানদের অন্যতম তীর্থস্থান হিসেবেও পরিচিত৷ এই এলাকার ওপর নিয়মিতই হামলা হয়৷ জানুয়ারি মাসেও তিন তিনটি হামলায় সেখানে অন্তত ৪৫ জনের প্রাণ গিয়েছে৷

সিরিয়ার হোমস নগরীও দীর্ঘদিন ধরেই আতঙ্কের জনপদ৷ রবিবার সকালে সেখানেও দু-দু'টি বোমা হামলা হয়৷ বোমা হামলার পর আকাশ কালো ধোঁয়ায় ছেয়ে যায়৷ পাশের শহর জাহারা থেকেও দেখা গেছে সেই ধোঁয়া৷ হোমসের ওপরও সুন্নি মুসলমানদের তথাকথিত জঙ্গি সংগঠন ইসলামিক স্টেট (আইএস) এবং আল কায়েদার হামলা প্রায় নিয়মিত ঘটনা৷

কেরির আশাবাদ নিরাশায় ঢেকে গেল?

রবিবার সকালেই সিরিয়া সম্পর্কে বেশ আশা জাগানিয়া মন্তব্য করেছিলেন জন কেরি৷ যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই লাভরভের সঙ্গে আলোচনার পর জানিয়েছিলেন, সিরিয়ার গৃহযু্দ্ধে বহুল প্রতীক্ষিত বিরতি খুব তাড়াতাড়িই হয়ত সম্ভব৷ এ বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্র-রাশিয়া এক ধরণের মতৈক্যে পৌঁছেছে বলেও জানিয়েছিলেন তিনি৷ তখনও অবশ্য দামেস্ক আর হোমস প্রচণ্ড বোমা বিস্ফোরণে বারবার প্রকম্পিত হতে শুরু করেনি, শুরু হয়নি লাশের মিছিল, স্বজনের আহাজারি আর আহতদের আর্তনাদ৷

এসিবি/ডিজি (এপি, এএফপি, ডিপিএ, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়