1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

‘এইডস মোকাবিলায় চীনকে আরও কাজ করতে হবে’

চীন সরকারের হিসেবে গত এক বছরে দেশটিতে এইডস রোগীর সংখ্যা বেড়েছে৷ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার চীন প্রতিনিধি ব্যার্নহার্ড শোয়ার্টলান্ডার মনে করেন, নতুন এইডস রোগীর সংখ্যা নিয়ন্ত্রণে ও রোগীদের সেবা দিতে সরকারকে আরও কাজ করতে হবে৷

চীনের ‘জাতীয় স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কমিশন' বলছে, অক্টোবর পর্যন্ত চীনে এইডস রোগীর সংখ্যা ছিল চার লক্ষ ৯৭ হাজার৷ এক বছর আগে ২০১৩ সালের সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সংখ্যাটা ছিল চার লক্ষ ৩৪ হাজার৷ অর্থাৎ এক বছরে এইডস রোগীর সংখ্যা বেড়েছে প্রায় ৬৩ হাজার৷

ডয়চে ভেলেকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে ব্যার্নহার্ড শোয়ার্টলান্ডার এইডস মোকাবিলায় চীন সরকারের নেয়া পদক্ষেপের প্রশংসা করেন৷

ডয়চে ভেলে: চীনের এইচআইভি পরিস্থিতি সম্পর্কে আপনার কী মন্তব্য?

Bernhard Schwartlaender WHO

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার চীন প্রতিনিধি ব্যার্নহার্ড শোয়ার্টলান্ডার

ব্যার্নহার্ড শোয়ার্টলান্ডার: সাধারণ চীনা নাগরিকের মধ্যে এইডস সংক্রমণের হার কম, ০.০৬ শতাংশ৷ তবে যৌনমিলনের মাধ্যমে, বিশেষ করে পুরুষের সঙ্গে পুরুষের এবং শিক্ষার্থীদের মধ্যে এইডস সংক্রমণের হার বাড়ছে৷

এইডস মোকাবিলায় চীন সরকার কী পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে?

গত প্রায় এক দশকে দেশজুড়ে সাতশো-র মতো নিডল এক্সচেঞ্জমেথাডন ক্লিনিক স্থাপন করেছে সরকার, যেটা খুবই প্রশংসনীয়৷ ফলে ইনজেকটিং ড্রাগ ইউজারদের মধ্যে এইডস সংক্রমণের হার অনেক কমে গেছে৷

চীনের নেয়া মেথাডন থেরাপি যে শুধু দেশটিতে এইডস সংক্রমণের হার কমিয়েছে তাই নয়, বিশ্বের অন্য দেশের জন্যও তারা উদাহরণ সৃষ্টি করেছে৷

এছাড়া যাঁরা এইডস রোগী তাদের চিকিৎসা সেবা এবং ওষুধ দেয়ার ক্ষেত্রেও উন্নতি করেছে চীন৷ তবে আরও উন্নতি করার সুযোগ রয়েছে৷

নতুন এইডস সংক্রমণের হার নিয়ন্ত্রণের ক্ষেত্রে চীনের জন্য সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ কী?

নিরাপদ যৌনমিলন নিশ্চিত করার ক্ষেত্রে প্রচারণা আরও বাড়াতে হবে৷ বিশেষ করে যৌনমিলনের সময় যেন শতভাগ ক্ষেত্রে কনডম ব্যবহার করা উচিত সেটা মানুষকে বোঝাতে হবে৷

চীনের মতো দেশে কারও এইডস হলে তাদের কলংকের চোখে দেখা হয়৷ এ থেকে পরিত্রাণের উপায় কী?

চীনা ফার্স্ট লেডি পেং লিউয়ান ও প্রধানমন্ত্রী লি কোচিয়াং, দু'জনেই এইচআইভি-র বিরুদ্ধে লড়াইয়ে ব্যক্তিগতভাবে জড়িত৷ বিষয়টি সাধারণ মানুষের মধ্যে একটি শক্ত বার্তা পৌঁছে দিয়েছে৷ তাই হয়ত চীনের এইডস রোগীরা অন্য দেশের তুলনায় কিছুটা ভালো অবস্থায় আছেন৷ তবে এইডস রোগ সম্পর্কে মানুষকে যথেষ্ট শিক্ষিত করে তুলতে পারলে এ অবস্থা থেকে পরিত্রাণ পাওয়া সম্ভব৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন