1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

উৎপাত কমাতে বানরের জন্ম নিয়ন্ত্রণের প্রস্তাব

দিল্লি ও তার আশপাশ এলাকায় বানরের সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে৷ সেইসঙ্গে পথে-ঘাটে বাড়ছে মানুষের ওপর আক্রমণের ঘটনা৷ দিল্লি পুরসভা বাঁদরের সংখ্যা নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থ৷ তাই বিকল্প হিসেবে ভাবা হচ্ছে বানরের জন্ম নিয়ন্ত্রণ৷

default

মহাসড়কের ধারে গাছে খেলা করছে বানর

দিল্লি মহানগরী ও তার আশপাশের রাজ্যে উত্তর ভারতের রীস্যাস জাতীয় বানরের সংখ্যা যেভাবে বাড়ছে তাতে রাস্তাঘাটে, লোকালয়ে নিরাপদে চলাফেরা করা দুষ্কর৷ হাতে ব্যাগ দেখলেই নিঃশব্দে এসে চড়াও হবে৷ বাধা দিতে গেলে আরো আক্রমণাত্মক হয়ে আঁচড়ে কামড়ে ক্ষতবিক্ষত করে ছাড়ে৷ বাঁদরের কামড়ে জলাতঙ্ক, মারাত্মক হার্পিস এবং ত্বকে সংক্রমণ হয়৷

শুধু কী রাস্তাঘাটে? বাড়ির ব্যালকনি, ছাদ ও সিঁড়িতে পর্যন্ত চড়াও হয় খাবারের সন্ধানে৷ খাবার না পেলে জামাকাপড় নিয়ে পালায়৷ ২০০৭ সালে বানরের আক্রমণ থেকে নিজেকে বাঁচাতে গিয়ে ছাদ থেকে পড়ে মারা যান দিল্লির ডেপুটি মেয়র৷ তার বছর খানেক পরে ১৪ বছরের এক কিশোরী বাঁদরের তাড়া খেয়ে ভয়ে পালাতে গেলে বহুতল একটি আবাসন থেকে পড়ে মারাত্মকভাবে জখম হয়৷

তাহলে এই মর্কটকুলের সংখ্যা কমানোর উপায় কী? উত্তরাঞ্চলের দেরাদুন-ভিত্তিক ভারতের বন্যপ্রাণী প্রতিষ্ঠানের সুপারিশ হলো, এদের জন্ম-নিয়ন্ত্রণ৷ টিউবেক্টমি, ভ্যাসেক্টমি আর ওরাল কন্ট্রাসেপটিভস খাওয়াতে হবে খাবারের মধ্যে মিশিয়ে৷ আর ভ্যাসেক্টমি ও টিউবেক্টমি বা নির্বীজকরণ করতে হবে বাঁদরদের ধরে অজ্ঞান করে৷ এই প্রক্রিয়া লাগাতার চলতে থাকলে দুই-তিন বছরের মধ্যে সুফল পাবার আশা করা যেতে পারে বলে মনে করেন ভারতীয় বন্যপ্রাণী প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষ৷

Indien Affen

২০০৭ সালে বানরের আক্রমণ থেকে নিজেকে বাঁচাতে গিয়ে ছাদ থেকে পড়ে মারা যান দিল্লির ডেপুটি মেয়র

হিমাচল প্রদেশে বাঁদরের নির্বীজকরণে সুফলও নাকি পাওয়া গেছে৷ বানরের নির্বীজকরণের চারটি কেন্দ্র রয়েছে সেখানে৷ প্রায় ৭০ হাজার বাঁদরের নির্বীজকরণ হয়৷ পাশাপাশি, অভয়ারণ্যে এমন গাছ গাছড়া রোপণ করতে হবে যাতে বানর পরিবারের খাদ্যের অভাব না হয়৷ এই নিয়ে ধারাবাহিক গবেষণা চলেছে৷

দিল্লির পশু হাসপাতালের এক কর্মকর্তা বলেন, বানরকুলের সংখ্যা বৃদ্ধির কারণটা সহজেই অনুমেয়৷ হিন্দুদের ধর্মীয় বিশ্বাস, বাঁদর হলো ভগবান রামের ভক্ত হনুমানের উত্তরসূরি৷ হিন্দুরা প্রতি মঙ্গল ও শনিবার ভক্তি ভরে এদের খেতে দেয়, বিশেষ করে উত্তর ভারতে৷ ফলে বানরকুল শহর ছেড়ে যাবার নাম করে না৷

দিল্লির পুর কর্তৃপক্ষ বাঁদর ধরার দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি পেতে সুপ্রিম কোর্টে আবেদন করে বলেছে, ২০০৭ সাল থেকে ১৩ হাজারেরও বেশি বাঁদর ধরা হয়, কিন্তু সংখ্যা কমেনি, বরং বেড়েছে৷ পুরসভার পক্ষে কিছু করা সম্ভব নয়৷

বানর তাড়াতে হনুমান

একটি বেসরকারি সংস্থা শহর থেকে বাঁদর তাড়াবার জন্য কিছু লোক নিয়োগ করে৷ তাঁরা দড়ি বেঁধে কালোমুখো বড় হনুমান নিয়ে আসে৷ বানরের দৌরাত্ম রুখতে এরা বাড়ির ছাদে, বারান্দায় হনুমানকে পেচ্ছাপ করায়৷ সেই পেচ্ছাপের বিশেষ গন্ধে লালমুখো রীস্যাস বাঁদর ঐসব বাড়িতে অন্তত বেশ কিছুদিন ঢোকে না৷

বাঁদর ধরার কর্মীর মাসিক বেতন প্রায় ১৪-১৫ হাজার টাকা৷ বন্যপ্রাণী দপ্তরের কর্মকর্তারা দিল্লি হাইকোর্টের নির্দেশে বাঁদর ধরে অভয়ারণ্যে ছেড়ে আসে৷ কিন্তু কিছুদিন পরে আবার তারা ফিরে আসে লোকালয়ে, খাবারের সন্ধানে৷ কাজেই শহরে খাবার দেয়া বন্ধ না হলে এই সমস্যা থাকবে৷

দ্বিতীয়ত, শহরের পরিধি বাড়ার ফলে বাঁদরকুলের প্রাকৃতিক আবাসভূমিতে অনুপ্রবেশ ঘটছে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন