1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

খেলাধুলা

উলটো পথেই হাঁটছে ব্রাজিলের ফুটবল

২০১৪ বিশ্বকাপকে সামনে রেখে ব্রাজিলে গড়ে উঠছে নতুন নতুন স্টেডিয়াম৷ উদ্বোধন হচ্ছে৷ কিন্তু গরিবের জন্য এক অর্থে বন্ধই রাখা হচ্ছে স্টেডিয়ামে প্রবেশের পথ৷ টিকিটের দাম আকাশছোঁয়া, গরিবের সাধ্য কি সে আকাশ ছোঁয়!

ব্রাজিলের ক্রীড়ামন্ত্রী আলদো রেবেলোও এ নিয়ে উদ্বিগ্ন, ক্ষুব্ধ৷ এই সেদিনই তো দেশে হয়ে গেল কনফেডারেশন্স কাপ৷ নেইমার যখন মাঠ মাতাচ্ছেন, রিও ডি জানেরোর পথে তখন বিক্ষুব্ধ জনতার ভিড়৷ দারিদ্র্যে জর্জরিত মানুষদের কথা না ভেবে বিশ্বকাপ আয়োজনে কাঁড়ি কাঁড়ি টাকা ঢালার ব্যাপারটিকে ভালো চোখে দেখতে পারছিলেন না তাঁরা৷ পারার কারণও নেই৷ যাঁদের শ্রমে, যাঁদের করের টাকায় আয়োজন সার্থক হবে, তাঁদের কথা কি সরকার বা ফুটবল ফেডারেশন ভেবেছে?

ভেবেও আসলে সরকার তেমন কিছু করতে পারছেনা৷ কনফাডেরশন্স কাপে ব্রাজিলের সাফল্যে বড় বাস্তবতাও হয়ে গিয়েছিল গৌণ৷ কিন্তু সম্প্রতি আবার ফুটে উঠেছে ফুটবল ক্লাব এবং কর্মকর্তাদের লাগামছাড়া অর্থলিপ্সা৷ ব্রাসিলিয়ায় ফ্লামেঙ্গো সান্তোস স্টেডিয়ামটির উদ্বোধন হলো৷ সেখানে যে কোনো ম্যাচ দেখতে হলে আগ্রহী দর্শককে কমপক্ষে ৮০ ডলার খরচ করতে হবে৷ এটা জেনে খোদ ক্রীড়ামন্ত্রী বলেছেন, যেখানে ন্যূনতম মাসিক বেতন ৩৪০ ডলার, সেখানে টিকিটের সর্বনিম্ন দাম এত বেশি করা ভারি অন্যায়৷ গরিব ফুটবলামোদীদের কথা ভেবে টিকিটের দাম কমানোর আহ্বানও জানিয়েছেন তিনি৷ কেউ তাঁর কথা শুনলে তো!

চার মাস আগে একটি প্রীতি ম্যাচকে ঘিরে অসন্তোষ দেখা দিয়েছিল ব্রাজিলে৷ নতুন আঙ্গিকে সাজানো মারাকানা স্টেডিয়ামে ব্রাজিল-ইংল্যান্ড প্রীতি ম্যাচে সবচেয়ে কম দামের টিকিটটিরও দাম ধরা হয়েছিল ৪৫ ডলার৷ তখন সমালোচকরা বলেছিলেন, রিও ডি জানেরোর এই ঐতিহ্যবাহী স্টেডিয়ামে আট বছর আগে টিকিটের সর্বনিম্ন যে দাম ছিল এক লাফে তা ৩০ গুণ বাড়িয়ে দেয়া খুব অন্যায়৷ ফ্লামেঙ্গো সান্তোস স্টেডিয়াম সেই অন্যায়কেও লজ্জায় ফেলেছে৷

এসিবি/এসবি (এপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন