1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

উপজেলায় জনপ্রিয়তা প্রমাণ করল বিএনপি

জাতীয় সংসদ নির্বাচন বর্জন করলেও, উপজেলা নির্বাচনে অংশ নিয়ে জনপ্রিয়তা প্রমাণ করেছে বিএনপি৷ ৯৭টি উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থীরা বেশি বিজয়ী হয়েছেন৷ এছাড়া সব দল অংশ নেয়ায় ভোটাররাও আগ্রহ সহকারে ভোট দিয়েছেন৷

বুধবার প্রথম পর্বে ৯৭টি উপজলা পরিষদের নির্বাচনের সবগুলোর ফলাফলই পাওয়া গেছে৷ তাতে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান পদে বিএনপির ৪৩, আওয়ামী লীগের ৩৪, জামায়াত ১৩ এবং অন্যান্য দলের সাতজন জয়ী হয়েছেন৷

দেশের ৪৮৭টি উপজেলার মধ্যে ৯৭টির নির্বাচনের পর, আরো পাঁচ পর্বে বাকি ৩৯০টি উপজেলা পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে এপ্রিল মাসের মধ্যে৷ সুশাসনের জন্য নাগারিক সুজনের সম্পাদক ড. বদিউল আলম মজুমদার ডয়চে ভেলেকে জানান, ‘‘এই নির্বাচনের মাধ্যমে সরকার পরিবর্তন হবে না সত্য৷ কিন্তু এর মাধ্যমে রাজনৈতিক দলগুলোর জনপ্রিয়তার মাত্রা বোঝা গেল৷ তাছাড়া ৫ই জানুয়ারির সংসদ নির্বাচন একতরফা হওয়ায় ভোটার উপস্থিতি ছিল কম৷ উপজেলায় সব দল অংশ নেয়ায় ভোটাররা ভোটকেন্দ্র গেছেন এবং পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিয়েছেন৷''

Bangladesch Parlamentswahlen

নির্বাচনে সব দল অংশগ্রহণ করায় ভোটাররাও খুশির আমেজে ভোট দিয়েছেন

তিনি জানান, এই উপজেলা নির্বাচনের মাধ্যমে প্রমাণ হলো যে সাধারণ মানুষ অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন চান৷ অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন হলে ভোটাররা উত্‍সবের আমেজ নিয়ে ভোট দেন৷ তাই সাধারণ মানুষ যাতে ভোট দিতে পারেন, সেজন্য এখন সবার অংশগ্রহণে একটি জাতীয় নির্বাচন প্রয়োজন৷ সেই নির্বাচনেই সত্যিকার অর্থে বোঝা যাবে কাদের ক্ষমতায় দেখতে চান দেশের মানুষ৷

বিএনপির চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা শামসুজ্জামান দুদু ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘সরকার সমর্থকরা ভোটকেন্দ্র দখলসহ আরো অনেক অনিয়ম করেছেন৷ তা না হলে বিএনপির আরো বেশি প্রার্থী জয়ী হতো৷ তবুও এবার এটা প্রমাণ হয়েছে যে, এই সরকারের জনপ্রিয়তা তলানিতে গিয়ে ঠেকেছে৷'' তিনি দাবি করেন, আরো যেসব উপজেলায় নির্বাচন বাকি আছে সেখানেও আওয়ামী লীগের ভরাডুবি হবে৷



তাহলে প্রশ্ন হলো, সংসদ নির্বাচনে না গিয়ে বিএনপি ভুল করল কিনা? এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘‘স্থানীয় সরকার নির্বাচন আর জাতীয় নির্বাচনের গুরুত্ব এক নয়৷ স্থানীয় সরকার নির্বাচনে সরকার পরিবর্তন হয় না, জাতীয় নির্বাচনে সরকারের পরিবর্তন হয়৷ তাই কোনো দলীয় সরকারের অধীনে জাতীয় নির্বাচন সুষ্ঠু এবং নিরপেক্ষ হয় না৷ অতীতেও হয়নি৷ নির্দলীয়, নিরপেক্ষ সরকার ছাড়া জাতীয় নির্বাচনে অংশ নেবে না বিএনপি৷'' তাঁর কথায়, ‘‘নির্দলীয়, নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন হলে আওয়ামী লীগের করুণ পরিণতি হবে৷''

ওদিকে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল আলম হানিফ ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘স্থানীয় সরকার নির্বাচনে রাজনৈতিক প্রভাব থাকলেও এটা জাতীয় রাজনৈতিক নির্বাচন নয়৷ এখানে ভেটাররা ব্যক্তিগত জনপ্রিয়তা, পারিবারিক প্রভাবসহ আর অনেক স্থানীয় বিষয়কে মাথায় রেখে ভোট দেন৷ তাঁরা দলীয়ভাবে ভোট দেন না৷ তাই এর সঙ্গে সংসদ নির্বাচনকে মেলানো ঠিক নয়৷'' তিনি বলেন, ‘‘বিএনপি সংসদ নির্বাচনে অংশ না নিয়ে যে ভুল করেছে, তা ঢাকার জন্য এবং হতাশ নেতা-কর্মীদের শান্তনা দেয়ার জন্য এখন উপজেলা নির্বাচনের সঙ্গে জাতীয় নির্বাচনের তুলনা করছে৷ তবে এটা ভালো যে বিএনপি সহিংসতার পথ ছেড়ে রাজনীতি ও নির্বাচনের ধারায় ফিরে আসার চেষ্টা করছে৷''

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়