1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

উদ্বাস্তু নীতির কেঁচে গণ্ডূষ

জার্মানি অস্ট্রিয়ার সঙ্গে সীমান্তে আবার নিয়ন্ত্রণ শুরু করেছে, যা কিনা জার্মান সরকারের সাম্প্রতিক উদ্বাস্তু নীতির সম্পূর্ণ বিপরীত৷ ফলে কিছু অপ্রীতিকর প্রশ্ন দেখা দিচ্ছে, বলে মনে করেন ডয়চে ভেলের ক্যার্স্টেন ক্নিপ৷

সিদ্ধান্তটা হঠাৎই এলো৷ জার্মানি ‘‘সাময়িকভাবে'' অস্ট্রিয়া সীমান্তে আবার নিয়ন্ত্রণ চালু করছে, বলে জানালেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী টোমাস ডেমেজিয়ের, রবিবার দুপুরে সাততাড়াতাড়ি ডাকা একটি সংবাদ সম্মেলনে৷ জার্মানি উদ্বাস্তুদের সাহায্য করতে প্রস্তুত, কিন্তু সেই আতিথেয়তার উপর মাত্রাধিক চাপ দিলে চলবে না৷

সোজা কথায় বলতে গেলে, ডেমেজিয়ের স্বীকার করলেন যে, সিরীয় উদ্বাস্তুদের বিনা বাধায় জার্মানিতে প্রবেশ করতে এবং রাজনৈতিক আশ্রয়ের আবেদন করতে দেওয়ার যে নীতি গত কয়েক সপ্তাহ ধরে চালু ছিল – তা ব্যর্থ হয়েছে

আগস্ট মাসের শেষাশেষি যাবৎ ৬০ হাজারের বেশি উদ্বাস্তু মিউনিখে পৌঁছেছেন – যা কিনা মিউনিখ অথবা জার্মানি, কারো পক্ষেই সামাল দেওয়া সম্ভব নয়৷ সারা দেশ জুড়ে উদ্বাস্তুদের জন্য উপযুক্ত আবাসনের অভাব৷ উদ্বাস্তুরা গতকাল মিউনিখ রেলওয়ে স্টেশনে মাটিতে রাত কাটিয়েছেন৷

সাময়িকভাবে সীমান্তে নিয়ন্ত্রণ আবার চালু করার সিদ্ধান্তের অর্থ, সর্বাধিক কী পরিমাণ রাজনৈতিক আশ্রয়প্রার্থী জার্মানিতে আসতে পারেন, সংবিধানে তার কোনো উল্লেখ না থাকলেও, বাস্তবে সেই সীমা মাত্র কয়েকদিনের মধ্যেই অতিক্রান্ত হয়েছে৷

জার্মান সরকারের এই সিদ্ধান্তের স্বল্পমেয়াদি ফলশ্রুতি নাটকীয়: অস্ট্রিয়া আর হাঙ্গেরির সঙ্গে রেল চলাচল আপাতত বন্ধ৷ জার্মান-অস্ট্রিয়ান সীমান্তে শত শত পুলিশ পাঠানো হয়েছে৷ চেক প্রজাতন্ত্র আর পোল্যান্ডের সীমান্তেও তল্লাসি ব্যবস্থা আবার চালু করার কথা ভাবা হচ্ছে, বলে প্রকাশ৷ অর্থাৎ উদ্বাস্তুরা ঘুরপথেও জার্মানিতে পৌঁছাতে পারবেন না৷

Knipp Kersten Kommentarbild App

ক্যার্স্টেন ক্নিপ

বহির্বিশ্বের প্রতিক্রিয়া

গোড়ায় জার্মানির ‘‘স্বাগতিক মনোভাবের'' ছবি দেখার পর এখন সীমান্তে পুলিশের ২১টি কোম্পানি সক্রিয় হবার ছবি দেখছে আরব বিশ্ব৷ জার্মানি যে তার শরণার্থী গ্রহণের সীমায় পৌঁছেছে, এ কথা আরব দুনিয়ার মানুষ মেনে নিতে রাজি হবেন কিনা, বলা শক্ত৷

সিরিয়া থেকে আগত উদ্বাস্তুদের অবাধ জার্মানিতে প্রবেশ করতে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়ে জার্মানি পূর্ব ইউরোপের দেশগুলির বিরাগভাজন হয়েছে৷ তাদের যুক্তি ছিল, শেঙেন চুক্তির পরিপ্রেক্ষিতে সর্বাগ্রে ইউরোপীয় ইউনিয়নের বহির্সীমান্তগুলি নিশ্চিত করা দরকার৷ সে অনুযায়ী জার্মানিতে অবাধ অনুপ্রবেশ চলতে পারে না৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়