1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

উদ্ধার তৎপরতায় বাধা, মৃতের সংখ্যা প্রায় ১০,০০০

বিদেশ থেকে ত্রাণের ঢল নামলেও দুর্বল ও ক্ষতিগ্রস্ত অবকাঠামোর কারণে সেই সাহায্য দুর্গতদের কাছে পৌঁছানো কঠিন হয়ে উঠছে৷ নেপালের প্রধানমন্ত্রীর আশঙ্কা, ভূমিকম্পে মৃতের সংখ্যা ১০,০০০ ছাড়িয়ে যাবে৷

নেপালে ভূমিকম্পের এতগুলি দিন পরেও ক্ষয়ক্ষতি ও প্রাণহানির সম্পূর্ণ চিত্র পাওয়া যায়নি৷ দেশের অবকাঠামো বেশ দুর্বল – ভূমিকম্পের পর পথঘাটের অবস্থা আরও বেহাল হয়ে পড়েছে৷ ফলে পায়ে হেঁটে অনেক গ্রামে পৌঁছতে ৫ দিন পর্যন্ত সময় লাগছে৷ কাঠমান্ডু বিমানবন্দরে জমতে থাকা ত্রাণসামগ্রী ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় পৌঁছানো বিশাল চ্যালেঞ্জ হয়ে পড়ছে৷ দুর্গম এলাকায় ত্রাণ বিতরণের জন্য নেপালের সরকার বিদেশ থেকে আরও হেলিকপ্টার পাঠানোর অনুরোধ করছে৷ তার উপর বৃষ্টি সহ খারাপ আবহাওয়া উদ্ধার ও ত্রাণ তৎপরতায় বিঘ্ন ঘটাচ্ছে৷

বৃহস্পতিবার রাজধানী কাঠমান্ডুতে উদ্ধারকারী দল ধ্বংসস্তুপের মধ্য থেকে ১৫ বছরের এক কিশোরকে উদ্ধার করেছে৷ প্রায় ৫ দিন ধরে সে হিল্টন হোটেলের ধ্বংসস্তুপের নীচে আটকে ছিল৷

ভূমিকম্পে মৃতের সংখ্যা ৫,০০০ পেরিয়ে গেছে৷ প্রধানমন্ত্রী সুশীল কৈরালা আশঙ্কা করছেন, এই সংখ্যা ১০,০০০ ছুঁতে পারে৷ এদিকে উদ্ধার ও ত্রাণ তৎপরতার ক্ষেত্রে সরকারের ভূমিকার বিরুদ্ধে ক্ষোভ ফেটে পড়ছে৷ বুধবার সংসদের সামনে প্রতিবাদ বিক্ষোভ দেখা গেছে৷ ত্রাণ বণ্টন তরান্বিত করার দাবিতে বিভিন্ন অঞ্চলে গ্রামবাসীরা সড়ক অবরোধ করছে৷ উদ্ধার তৎপরতার সময়ও কিছু অপ্রিয় ঘটনার খবর পাওয়া যাচ্ছে৷ যেমন লাংটাং উপত্যকায় ক্ষুব্ধ গ্রামবাসীরা এক হেলিকপ্টার চালককে পণবন্দি করে রেখেছে৷

জাতিসংঘের সূত্র অনুযায়ী, প্রায় ৬ লক্ষ বাড়িঘর ধ্বংস হয়ে গেছে৷ ফলে শনিবারের ভূমিকম্পের পর থেকে অসংখ্য মানুষ খোলা আকাশের নীচে বসবাস করতে বাধ্য হচ্ছে৷ ফলে কমপক্ষে আগামী ৩ মাস ধরে তাদের তাঁবু, পানীয় জল, খাবার ও ওষুধের চাহিদা থাকবে৷ এমনিতেই ভূমিকম্পের পর রোগের প্রকোপ অনেক বেড়ে গেছে৷ বিশেষ করে বিশুদ্ধ পানি ও শৌচাগারের অভাবের কারণে আন্ত্রিক রোগ ছড়িয়ে পড়ছে৷

নেপালের জন্য সাড়ে ৪১ কোটি ডলারের সহায়তার আবেদন জানিয়েছে জাতিসংঘ৷ মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা যথাসম্ভব সহায়তার আশ্বাস দিয়েছেন৷ নেপালের দুই প্রতিবেশী দেশ – ভারত ও চীনও সহায়তার মাত্রা বাড়িয়ে চলেছে৷

এদিকে আগামী সপ্তাহেই মাউন্ট এভারেস্ট অভিযান শুরু হতে চলেছে৷ পর্যটন মন্ত্রণালয়ের মাউন্টেনিয়ারিং বিভাগের প্রধান তুলসী প্রসাদ গৌতম রয়টার্সকে এ কথা জানিয়েছেন৷ তার মধ্যেই এই রুটে বাধা-বিপত্তি দূর হয়ে যাবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন৷

এসবি/ডিজি (রয়টার্স, এএফপি, ডিপিএ)

নির্বাচিত প্রতিবেদন