1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ইয়াজিদি যৌন দাসীদের জন্য বিচার চান আমাল ক্লুনি

জঙ্গি গোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট বা আইএস-এর যে সব যোদ্ধা ইয়াজিদি নারী ও শিশুদের দাস করে রেখেছে, হত্যা করেছে, ধর্ষণ করেছে, তাদের বিচার চান আন্তর্জাতিক মানবাধিকার আইনজীবী ও হলিউড অভিনেতা জর্জ ক্লুনির স্ত্রী আমাল ক্লুনি৷

লন্ডনের ডাউটি স্ট্রিট চেম্বার্সের ব্যারিস্টার ক্লুনি ইসলামপন্থি জঙ্গি গোষ্ঠীটিকে ইয়াজিদি সম্প্রদায়ের বিরুদ্ধে তাদের অপরাধের জন্য আন্তর্জাতিক দায়রা আদালতের সামনে পেশ করতে চান৷ গত জুন মাসেই তিনি ঘোষণা করেন যে, তিনি ইরাকে ইয়াজিদি মহিলাদের মামলা হাতে নিচ্ছেন৷

সোমবার আমাল ক্লুনি মার্কিন এনবিসি টেলিভিশন সংস্থাকে বলেন যে, আইসিস মানুষজনকে ব্রেইনওয়াশ করছে, এবং তা প্রতিরোধ করার একটি পন্থা হল, আইসিস-এর নির্মমতা ও দুর্নীতিকে তুলে ধরা, যা মামলার শুনানির মাধ্যমে সম্ভব৷ এমনকি ১১-১২ বছরের কিশোরীদের নিয়ে কী করা হয়েছে, তার বয়ান শুনেছেন ক্লুনি৷ কাজেই তিনি ‘‘যে কোনো মূল্যে'' এই মামলা চালিয়ে যাবেন, বলে ক্লুনি জানান৷ দৃশ্যত তিনি তাঁর স্বামী হলিউড তারকা জর্জ ক্লুনির সঙ্গে এর ঝুঁকি নিয়ে আলোচনা করেছেন৷

যারা প্রাণে বেঁচেছেন

তাদের মধ্যে নাদিয়া মুরাদ বাসি তাহা-র নাম করা যেতে পারে, যাকে জাতিসংঘ সদ্য গুডউইল অ্যাম্বাস্যাডার হিসেবে নিয়োগ করেছে৷ তিনি নোবেল শান্তি পুরস্কারের জন্যও মনোনীত হয়েছেন৷

২০১৪ সালের আগস্ট মাসে নাদিয়াকে ইরাকে তাঁর গ্রাম থেকে ধরে নিয়ে যায় আইসিস জঙ্গিরা৷ তাঁকে নিয়ে যাওয়া হয় মোসুলে, যেখানে নাদিয়া ও অপরাপর হাজার হাজার ইয়াজিদি নারী ও শিশুকে যৌন খেলনার মতো আদানপ্রদান করেছে জঙ্গিরা৷ নাদিয়াকে শারীরিক নির্যাতন করা হয় ও বারংবার ধর্ষণ করা হয়৷

সোমবার এনবিসি-র সাক্ষাৎকারে আমাল ক্লুনির পাশে ছিলেন নাদিয়া তাহা৷ তার আগের শুক্রবার তাঁকে নিউ ইয়র্কে জাতিসংঘের মুখ্য কার্যালয়ে মানবপাচারের শিকারদের জন্য সদিচ্ছার দূত হিসেবে নিয়োগ দেয় জাতিসংঘ৷ সেই অনুষ্ঠানে আমাল ক্লুনি বলেন, ‘‘নাদিয়ার মতো মেয়েদের শরীর যে বিক্রি করা হয় ও রণাঙ্গণ হিসেবে ব্যবহার করা হয়, এ জন্য আমি নারী হিসেবে লজ্জিত৷''

স্বামী জর্জ ক্লুনির সঙ্গে আমাল ক্লুনি

স্বামী হলিউড তারকা জর্জ ক্লুনির সঙ্গে আমাল ক্লুনি

নাদিয়া নিজে সেই অনুষ্ঠানে বলেন, ‘‘হয়ত এটা আমার সৌভাগ্য যে, কালে আমি পালানোর সুযোগ পেয়েছি, হাজার হাজার অন্য (মেয়েরা) যা পারেনি৷ তারা আজও বন্দি আছে৷'' জাতিসংঘের মহাসচিব বান কি-মুন বলেন, ২০১৫ সালে তিনি যখন প্রথম নাদিয়ার কাহিনি শোনেন, তখন তাঁর চোখে জল এসে গিয়েছিল৷ শুক্রবারেও নাদিয়া সেই প্রায় ৩,২০০ ইয়াজিদি নারী ও কিশোরীদের মুক্তির ডাক দেন, যারা আজও আইসিস জঙ্গিদের হাতে যৌন দাসী হিসেবে বন্দি হয়ে রয়েছে৷

নাদিয়া বলেন, তাঁর আশা একদিন এই ইয়াজিদি নারী ও শিশুরা ‘‘দ্য হেগ-এর আদালতে তাদের নিপীড়নকারীদের দিকে তাকিয়ে দুনিয়াকে শোনাতে পারবে, ওরা আমাদের কি করেছে, যাতে আমাদের (ইয়াজিদি) সম্প্রদায় নিরাময় হতে পারে৷''

এসি/ডিজি (রয়টার্স, এএফপি, ডিপিএ)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়