1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

তুরস্ক

ইস্তানবুলের আততায়ী এখনও ফেরার

তুর্কি কর্তৃপক্ষ সম্ভাব্য আততায়ীর নতুন ও আরো স্পষ্ট কিছু ছবি প্রকাশ করেছে৷ তুর্কি টেলিভিশনে সম্ভাব্য হত্যাকারীর এক ‘সেল্ফি ভিডিও' দেখানো হচ্ছে৷ কিন্তু আততায়ী এখনও অজ্ঞাত ও মুক্ত৷

তুরস্কের পুলিশ সোমবার রাত্রে ইস্তানবুলে একটি অভিযান চালায়৷ অভিযানে হেলিকপ্টার ব্যবহার করা হয় ও অভিযান চলাকালীন আশপাশের রাস্তাঘাট বন্ধ করে দেওয়া হয়৷ কিন্তু কোনো গ্রেপ্তারের খবর পাওয়া যায়নি৷

ইতিপূর্বে রাষ্ট্রীয় আনাদোলু সংবাদ সংস্থা রাইনা নাইট ক্লাবে হামলায় জড়িত সন্দেহে আটজনকে আটক করার খবর জানায়৷ কিন্তু আততায়ী স্বয়ং দৃশ্যত তাদের মধ্যে নেই৷

হাবের তুর্ক দৈনিক জানিয়েছে যে, আততায়ী চীনের উইঘুর সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের সদস্য বলে মনে করা হচ্ছে৷ সে নাকি কিছুদিন আগে তার স্ত্রী ও দুই সন্তানকে নিয়ে তুরস্কের কোনিয়া শহরে পৌঁছায়৷ পরিবারের সদস্যদের আটক করা হয়েছে৷

তুরস্ক আইএস-এর বিরুদ্ধে আগের মতোই সক্রিয়

তুরস্কের সামরিক বাহিনী উত্তর সিরিয়ায় ইসলামিক স্টেটের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত রেখেছে৷ মঙ্গলবার তুর্কি সামরিক বাহিনীর পক্ষ থেকে বলা হয়, সোমবার বিভিন্ন সংঘর্ষে ও কামানের গোলাবর্ষণে ১৮ জন আইএস যোদ্ধা নিহত ও ৩৭ জন আহত হয়েছে৷

গত ২৪ ঘণ্টার কার্যকলাপের বিবরণ দিতে গিয়ে সামরিক বাহিনী জানায়, তুর্কি জঙ্গিজেটের আক্রমণে আইএস-এর চারটি ‘টার্গেট' ধ্বংস হয়েছে৷ এছাড়া রুশ জঙ্গিজেট ডাইর কাক-এ আইএস যোদ্ধাদের উপর বোমা ফেলেছে - স্থানটি আইএস-নিয়ন্ত্রিত আল-বাব শহর থেকে মাত্র আট কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে৷

আইএস-এর নীতি পরিবর্তন? 

বিশ্লেষকরা ইস্তানবুলের নাইট ক্লাবে আক্রমণ ও আইএস-এর দাবির মধ্যে আইএস-এর নীতি ও অবস্থানের একটা পরিবর্তন দেখছেন৷ ডিসেম্বরের ২২ তারিখে প্রকাশিত একটি প্রোপাগান্ডা ভিডিওতে তুরস্কের উপর আক্রমণের আহ্বান জানায় আইএস৷ এমনকি সেই ভিডিওতে তুর্কি সৈন্যদের জীবন্ত অবস্থায় পুড়িয়ে মারার ফুটেজও ছিল৷ তুর্কি কর্তৃপক্ষ সাময়িকভাবে ভিডিওটির প্রচার রোখার চেষ্টা করলেও, ভিডিওটির প্রামাণ্যতা কোনোকালেই স্বীকার করেনি৷

তাদের তুরস্কে বিভিন্ন ‘সেল' আছে বলে আইএস দাবি করে থাকে; আইএস নিয়মিত তুর্কি ভাষায় প্রচারণা চালায়; এছাড়া আইএস-এর শত শত তুর্কি সদস্য আছে, বলে মনে করা হয়ে থাকে৷ কিন্তু ২০১৬ সালের মার্চে এক সিরীয় সাংবাদিক হত্যা ও দিয়ারবাকির প্রদেশে রায়ট পুলিশের উপর আক্রমণ ছাড়া আইএস তুরস্কে বিশেষ কোনো আগ্রাসন বা আক্রমণের দায় স্বীকার করেনি৷

কাজেই রাইনা নাইট ক্লাবে হামলার দায় স্বীকার করাটা আইএস-এর পক্ষে নীতি পরিবর্তনের সামিল৷ আইএস যে এখন আল-বাব, রাকা, মোসুল, সর্বত্র কোণঠাসা, এটা তারই প্রমাণ, বলছেন বিশ্লেষকরা৷ অন্যত্র আঘাত হেনে বা আঘাত হানার দাবি করে নিজেকে পুনরায় জাহির করার চেষ্টা করছে ইসলামিক স্টেট৷

এসি/এসিবি (এপি, ডিপিএ, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়