1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

ইসলাম নিয়ে গাদ্দাফির বক্তব্যে ইটালিতে বিতর্ক

রোম সফরে গিয়ে বিতর্কের জন্ম দিলেন লিবীয় নেতা মুয়াম্মার গাদ্দাফি৷ সফর ছিল মূলত দুই দেশের মধ্যে মৈত্রী চুক্তির দ্বিতীয় বার্ষিকী উপলক্ষ্যে৷ মূল লক্ষ্য ছিল ইটালি ও লিবিয়ার মধ্যে আরো বাণিজ্যিক সম্পর্ক বৃদ্ধি৷

Libyan, Moammar, Gadhafi, Italian, Premier, Silvio Berlusconi, Rome, ইটালি, মুয়াম্মার গাদ্দাফি, সিলভিও বার্লুসকোনি

ইটালিতে মুয়াম্মার গাদ্দাফি এবং সিলভিও বার্লুসকোনি

কিন্তু রোমের দু'টি সমাবেশে ধর্ম নিয়েই বেশি আলোচনা করেন তিনি৷ মনে হয়েছে, যেন ধর্ম প্রচারেই রোম সফরে এসেছিলেন গাদ্দাফি৷ দু'টি সমাবেশেই জমায়েত করা হয়েছিল শুধুমাত্র তরুণীদের৷ প্রথমটিতে ৫০০ জন৷ আর দ্বিতীয় সমাবেশে হাজির ছিল ২০০ তরুণী৷ জানা গেছে, নির্দিষ্ট পরিমাণ অর্থের বিনিময়ে এসব তরুণীদের সমাবেশে নিয়ে আসা হয়৷ এমনকি তাদেরকে পরতে বলা হয় রক্ষণশীল পোশাক৷

আর তাদের সামনে বক্তৃতায় গাদ্দাফি বলেন, ‘‘ইসলাম সর্বশেষ ধর্ম এবং আমাদের যদি একক কারো উপর বিশ্বাস রাখতে হয়, তবে তা হতে হবে মুহাম্মদের উপর৷ ইসলামই হওয়া উচিত গোটা ইউরোপের প্রধান ধর্ম৷'' নারীদের প্রসঙ্গে লিবীয় নেতার বক্তব্য, ‘‘পশ্চিমের চেয়ে লিবিয়ায় নারীদের বেশি সম্মান দেওয়া হয় এবং লিবীয় স্বামী খুঁজে নেওয়ার জন্য তাদেরকে সহায়তাও করা হয়৷''

সমাবেশে উপস্থিত তরুণীরা সাংবাদিকদের কাছে গাদ্দাফির এসব বক্তব্য প্রকাশ করার পর শুরু হয়েছে উত্তপ্ত বিতর্ক৷ এমনকি বিরোধী শিবিরে তো বটেই, গাদ্দাফির বক্তব্য নিয়ে বিতর্ক শুরু হয়েছে সরকারি জোটেও৷ জোটের শরিক নর্দার্ন লিগ থেকে নির্বাচিত ইউরোপীয় সাংসদ মারিও বোর্গেজিও বলেন, ‘‘গাদ্দাফির বক্তব্য ইউরোপকে ইসলামিকরণে তাঁর ঝুঁকিপূর্ণ প্রকল্পের বহিঃপ্রকাশ৷'' গাদ্দাফির বক্তব্যকে ইটালির নারীদের মর্যাদার অবমাননা বলে মন্তব্য করেন ইটালির বিরোধী দলীয় সাংসদ এবং সাবেক স্বাস্থ্য মন্ত্রী রোজি বিন্ডি৷ অবশ্য, সরকারি অতিথির এসব বক্তব্যকে তাঁর ব্যক্তিগত বৈঠকের বিষয় বলে পরিস্থিতি কিছুটা হাল্কা করতে চেষ্টা করেছেন সরকারি মুখপাত্র কার্লো জোভানার্দি৷

যাহোক, এসব সমাবেশের বাইরে ইটালির প্রধানমন্ত্রী সিলভিও বার্লুসকোনিসহ রোমের শীর্ষ ব্যবসায় প্রতিনিধিদের সাথে বৈঠক করেন গাদ্দাফি৷ এছাড়া, ইটালি ও লিবিয়ার মধ্যে পারস্পরিক সম্পর্ক নিয়ে তৈরি আলোকচিত্র প্রদর্শনী ঘুরে দেখেন দুই নেতা৷

প্রতিবেদন: হোসাইন আব্দুল হাই

সম্পাদনা: সঞ্জীব বর্মন

ইন্টারনেট লিংক