1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

পাঠক ভাবনা

ইসলাম ধর্মে ‘গর্ভপাত' সম্পর্কে পাঠকরা যা লিখেছেন

‘‘আমরা মুসলমানরা ভ্রুণ হত্যা সমর্থন করি না, এটা তো ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যা দেখেই বোঝা যায়৷ ইসলাম সমকামিতা সমর্থন করে না, সমকামিতা জনসংখ্যা বৃদ্ধিতে ব্যঘাত ঘটায়'' – ফেসবুক পাতায় এই মন্তব্য একজন পাঠকের৷

ওপরের মন্তব্যটি পাঠক খালেদ তেনজিনের৷ তিনি আরো লিখেছেন, ‘‘গর্ভপাত একটি বিতর্কিত বিষয় এবং তা যে কোনো ধর্মেই৷'' তবে খালেদ  মনে করেন, এসব বিষয়ের মধ্যে ইসলামকে টেনে না আনাই উচিত৷ 

আর ইলিয়াস মো.আকাশ লিখেছেন, ‘‘যারা অবৈধ সর্ম্পক করে গর্ভবতী হয়, তাদেরকে গর্ভপাত করতে হয়৷ ইসলাম অবৈধ সর্ম্পক ও অবৈধ গর্ভপাত দুটোকেই কঠোরভাবে নিষেধ করেছে৷''

তবে অবৈধ সম্পর্কের মাধ্যমে কেউ যদি ভুল করে সন্তান জন্ম দেন, সেই ক্ষেত্রেও ইসলাম সে সন্তানকে মেরে ফেলতে নিষেধ করেছে৷ পাঠক আনামুল হক বলছেন, ‘‘এটা তো মা বাবার অবৈধ সম্পর্কের ফসল, বাচ্চার কোনো দোষ নেই৷ ইসলামি শরিয়তে যদি রাষ্ট্র চলে সেক্ষেত্রে এই মেয়ে ও ছেলেকে রাষ্ট্র শাস্তি দেবে, এমনকি হত্যাও করতে পারে৷ কিন্তু বাচ্চার ভরণপোষণ এবং দায় দায়িত্বের ভার রাষ্ট্রকেই নিতে হবে৷''

আর একজন মা কত কষ্ট করে সন্তান ধারণ করেন, জন্ম দেন, মানুষ করেন৷ কিন্তু সন্তান কি তার সঠিক মূল্য সবসময় দেয়? প্রশ্ন তারেকের৷

অন্যদিকে ‘গর্ভপাত' সম্পর্কে নানা তথ্য তুলে ধরার জন্য খুব খুশি হয়েছেন ডয়চে ভেলের ফেসবুক বন্ধু নূর ই মজিদ৷ তাঁর ভাষায়, ‘‘এটি একটি ভালো প্রতিবেদন, আপনারা এমন আরও প্রতিবেদন করুন, যা ধর্মীয় থিওলজি নিয়ে সম্মান আর যুক্তির মাধ্যমে তাদের অবস্থান চিহ্নিত করতে সহযোগিতা করবে৷''

সংকলন: নুরুননাহার সাত্তার

সম্পাদনা: আশীষ চক্রবর্ত্তী

নির্বাচিত প্রতিবেদন