1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ইসলামি জঙ্গিবাদের মোকাবিলায় সম্মিলিত উদ্যোগের ডাক

ইরাকে কিছুটা কোণঠাসা হয়ে পড়ে আইসিস বা ইসলামিক স্টেট জঙ্গি গোষ্ঠী সিরিয়ায় তাদের পেশিশক্তি দেখাতে শুরু করেছে৷ এদিকে সংযুক্ত আরব আমিরাত আঞ্চলিক জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে সম্মিলিত উদ্যোগের ডাক দিয়েছে৷

ইরাক, সিরিয়া, ইয়েমেন, লিবিয়া, সোমালিয়া ও আফগানিস্তানের মতো দেশে ইসলামি জঙ্গিবাদ যেভাবে গোটা অঞ্চলের জন্য হুমকি হয়ে উঠছে, তার বিরুদ্ধে সম্মিলিত উদ্যোগের ডাক দিয়েছে সংযুক্ত আরব আমিরাত৷ তাদের মতে, আন্তর্জাতিক সহযোগিতা ও সমন্বয়ের মাধ্যমে আইসিস ও আল-কায়েদার মতো গোষ্ঠীর মোকাবিলা করার প্রয়োজন রয়েছে৷ ন্যাটো শীর্ষ সম্মেলনের পর্যবেক্ষক হিসেবে দেশটি এই মর্মে এক বিবৃতি প্রকাশ করেছে৷

মার্কিন প্রশাসনও ইসলামি জঙ্গিবাদ নির্মূল করার লক্ষ্যে এক আন্তর্জাতিক অভিযানের প্রয়োজনিয়তার কথা বলেছে৷ উদ্দেশ্য, জঙ্গিদের অর্থায়ন, নতুন সদস্য ভর্তি করার মতো কার্যকলাপ বন্ধ করা৷ প্রযুক্তি ব্যবহার করে ওয়েবসাইটের মাধ্যমে প্রচারণা বন্ধ ও জঙ্গিদের শনাক্ত করার উদ্যোগও শুরু হয়ে গেছে৷

কিন্তু আইসিস-এর মতো জঙ্গি গোষ্ঠীর সাফল্যের ভিত্তি নিয়েও প্রশ্ন থেকে যায়৷ সিরিয়া ও ইরাকে সুন্নি গোষ্ঠী বহুকাল কোণঠাসা হয়ে রয়েছে৷ সেখান থেকেই জঙ্গিদের প্রতি সমর্থন আসছে৷ যেমন সিরিয়ার উত্তর পূর্বাঞ্চলে মরু এলাকায় রাকা প্রদেশে আইসিস জঙ্গিরা কার্যত এক নিজস্ব রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করেছে৷ শুধু গণ হারে নৃশংস শাস্তি বা জোর করে মানুষের উপর তাদের নিয়ম চাপানো নয়, নাগরিক পরিষেবার মতো প্রশাসনিক কাজকর্মও চালাচ্ছে তারা৷ পরিবহন ব্যবস্থা নিয়ন্ত্রণ, সরকারি কর্মীদের বেতন দেওয়ার মতো ‘দায়িত্বশীল' আচরণের খবরও আসছে সেখান থেকে৷ ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে নিজেদের আদর্শে উদ্বুদ্ধ করতে শিক্ষা ব্যবস্থাকে ভালোভাবে কাজে লাগানোর চেষ্টা করছে তারা৷

অর্থাৎ জনজীবনের কোনো অংশই তাদের নিয়ন্ত্রণের বাইরে নয়৷ নাগরিকদের একটা বড় অংশ এমন প্রশাসনিক দক্ষতার জন্য সন্তুষ্টিও প্রকাশ করেছে৷ সংবাদ সংস্থা রয়টার্সের এক সাংবাদিক সেখানে গিয়ে পরিস্থিতি দেখে এসেছেন৷ এমনকি আইসিস-বিরোধীরাও স্বীকার করেছেন, যে আবু বকর আল-বাগদাদির নেতৃত্বে জঙ্গিরা ওই এলাকা দখল করে এক বছরেরও কম সময় এক আধুনিক দক্ষ প্রশাসন কায়েম করেছে৷ তবে সব বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত আসছে নেতার কাছ থেকেই৷

শুধু তাই নয়, প্রয়োজনে বাশার আল-আসাদ সরকারের কর্মীদের সঙ্গেও সহযোগিতার পথেও যাচ্ছে তারা৷ অনেক সুন্নি সরকারি কর্মী জঙ্গিদের প্রশাসনেও কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন৷ উত্তর আফ্রিকা ও ইউরোপ থেকেও বিশেষজ্ঞদের এনে কাজে লাগাচ্ছে তারা৷ অর্থাৎ শুধু জঙ্গি গোষ্ঠী নয় – বিস্তীর্ণ অঞ্চল জুড়ে তাদের ভাবধারা অনুযায়ী এক ইসলামি রাষ্ট্র গড়ে তোলার লক্ষ্যে তারা অটল রয়েছে বলে মনে করেন রয়টার্সের সেই সাংবাদিক৷

এসবি/ডিজি (রয়টার্স, এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন