1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ইসরায়েল নিয়ে হঠাৎ নরম সুর আংকারার

ইসরায়েল তুরস্ক দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক নিয়ে বিভিন্ন জলঘোলা দেখা গেল সোমবার৷ আংকারার যাবতীয় কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করার হুমকি এবং পরে আবার সুর নরম করা, সব মিলিয়ে দারুণ নাটক৷

Lieberman & Davutoglu

ইসরায়েলের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আভিগদর লিবামান ও তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আখমেত দাভুতোলু – এঁদেরই দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের টানাপোড়েন কাটাতে হবে

ইসরায়েলের অবরোধে বন্দি গাজার সাধারণ মানুষের জন্য ত্রাণবাহী নৌবহরে গত ৩১ মে-এর ইসরায়েলি সেনা হামলা এবং তাতে নয় তুর্কি ত্রাণকর্মীর মৃত্যুকে ঘিরে নাটক আবার অন্যদিকে ঘুরে গেল সোমবার৷ ইসরায়েল এই ঘটনায় ক্ষমা না চাইলে তুরস্ক তাদের সঙ্গে যাবতীয় কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করে দেবে বলে সোমবার হুঁশিয়ারি শোনান তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আখমেত দাভুতোলু৷ তুর্কি পররাষ্ট্রমন্ত্রীর এই মন্তব্য প্রায় সঙ্গে সঙ্গে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম মারফত গোটা দুনিয়ায় ছড়িয়ে পড়ে৷ কিন্তু বেশি রাতে আংকারাই ফের নিজেদের সুর নরম করে বিবৃতি দিয়েছে৷

সুর নরম করা মানে, পররাষ্ট্রমন্ত্রী আখমেত দাভুতোলুর মন্তব্য প্রসঙ্গে আংকারা জানিয়েছে, সংবাদমাধ্যমে তাঁর মুখে ভিন্ন কথা বসানো হয়েছে৷ কড়া হুঁশিয়ারি নয়, দাভুতোলু শুধু বলতে চেয়েছিলেন, ইসরায়েল ক্ষমা না চাইলে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের আর কোন উন্নয়ন হবে না৷ যার অর্থ, ইসরায়েলের সঙ্গে এখনই কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করার কথা ভাবছে না তুরস্ক৷

ইসরায়েলের তরফে এই নতুন মন্তব্য এবং তা ফিরিয়ে নেওয়া নিয়ে কোন প্রতিক্রিয়া শোনা যায় নি এ পর্যন্ত৷ আসলে ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু আগেই জানিয়ে রেখেছিলেন, আত্মরক্ষার জন্যই ওই ত্রাণবাহী জাহাজে হামলা চালিয়েছিল ইসরায়েল, সুতরাং এই ঘটনার প্রেক্ষিতে কোন অবস্থাতেই ইসরায়েল ক্ষমা চাইবে না৷

ইসরায়েলের ক্ষমাপ্রার্থনাই শুধু নয়, তুরস্কের আরও দাবি, এই ঘটনার আন্তর্জাতিক তদন্তের পথ খুলতে হবে ইসরায়েলকে৷ ইসরায়েল সেই দাবিতে তো কর্ণপাত করেই নি, এমনকি আন্তর্জাতিক মহল থেকে এ বিষয়ে চাপ সৃষ্টি করা হলেও তেল আভিভ সাফ জানিয়ে দিয়েছিল, তদন্ত ইসরায়েল নিজেই করবে৷ বাইরের কোন পক্ষকে দেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে নাক গলাতে দিতে রাজি নয় বিশ্বের একমাত্র ইহুদি রাষ্ট্রটি৷

এদিকে, গাজার অবরোধ কিছুটা হলেও তুলে নেওয়ার ঘোষণা করেছে ইসরায়েল সোমবার৷ বলা হয়েছে, অস্ত্র এবং সামরিক কাজে ব্যবহৃত হতে পারে এমন কোন জিনিস ছাড়া অন্যসব ধরণের নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্র গাজায় যেতে পারবে৷ গাজার শাসনভারের দায়িত্বে থাকা হামাস এই নতুন ঘোষণার প্রতিক্রিয়ায় জানিয়েছে, গাজার অবরোধ সম্পূর্ণ মুক্ত করাটাই তাদের একমাত্র দাবি৷

প্রতিবেদন: সুপ্রিয় বন্দ্যোপাধ্যায়
সম্পাদনা : সঞ্জীব বর্মন