1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ইসরায়েলি-ফিলিস্তিনি সরাসরি আলোচনার পথে বাধা

নীতিগতভাবে রাজি হলেও ইসরায়েলের সঙ্গে আবার সরাসরি আলোচনা শুরু করার কিছু পূর্বশর্ত রাখছে ফিলিস্তিনিরা৷ এদিকে গাজার জন্য ত্রাণবাহী জাহাজের উপর হামলার তদন্তকে কেন্দ্র করে জাতিসংঘের সঙ্গে সংঘাতের পথে ইসরায়েল৷

default

মিচেল-আব্বাস আলোচনায় তেমন অগ্রগতি হয় নি

মধ্যপ্রাচ্যে বিশেষ মার্কিন দূত জর্জ মিচেল মঙ্গলবার ফিলিস্তিনি প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাসের সঙ্গে আলোচনা করেন৷ আব্বাস নীতিগতভাবে ইসরায়েলের সঙ্গে আবার সরাসরি আলোচনার পথে ফিরে যেতে প্রস্তুত হলেও তার আগে একটা স্পষ্ট কাঠামো, নির্দিষ্ট অ্যাজেন্ডা ও সময়সীমা দেখতে চান৷ ইহুদি বসতি নির্মাণ বন্ধ রাখা বা ২ বছরের মধ্যে চূড়ান্ত সমাধানসূত্রে আসার মতো দাবিতে ফিলিস্তিনিরা এখনো অনড় রয়েছে৷ মঙ্গলবারের আলোচনাকে অবশ্য যথেষ্ট গঠনমূলক বলে বর্ণনা করা হয়েছে৷

অন্যদিকে ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী বিনইয়ামিন নেতানিয়াহু কোনো পূর্বশর্ত ছাড়াই সরাসরি আলোচনা শুরু করতে চান৷ মিচেল বুধবার নেতানিয়াহু'র সঙ্গে আলোচনা করবেন৷ শান্তি প্রক্রিয়ার ক্ষেত্রে কিছুটা আশার আলো দেখা গেলেও আপাতত কোনো অগ্রগতির সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে না৷ তবে ‘কোয়ার্টেট' বা আন্তর্জাতিক মধ্যস্থতাকারীদের গোষ্ঠী এবার হাত গুটিয়ে বসে থাকছে না৷ মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ফিলিপ ক্রাউলি বলেছেন, মার্কিন প্রশাসন কোয়ার্টেট'এর বাকি সদস্যদের সঙ্গে আলোচনা করছে৷ সম্ভবত বুধবারই কোয়ার্টেট এক বিবৃতি প্রকাশ করতে পারে৷

Israelischer Angriff auf Hilfskonvoi für Gaza

৩১ মে ত্রাণবাহী জাহাজের উপর ইসরায়েলি হামলায় প্রাণ হারিয়েছিলেন ৯ তুর্কি নাগরিক

এদিকে কোয়ার্টেট'এর অন্যতম সদস্য, অর্থাৎ জাতিসংঘের সঙ্গে ইসরায়েলের সংঘাত বেড়েই চলেছে, যদিও শান্তি প্রক্রিয়া সরাসরি এই উত্তেজনার কারণ নয়৷ গাজার জন্য ত্রাণবাহী জাহাজের উপর ইসরায়েলি হামলার তদন্তকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের সুর চড়া হচ্ছে৷ ৩১ মে'র ঐ ঘটনায় প্রাণ হারিয়েছিলেন ৯ তুর্কি নাগরিক৷ জাতিসংঘের মহাসচিব বান কি মুন'এর উদ্যোগে যে তদন্ত প্যানেল গঠন করা হয়েছে, ইসরায়েল শুরুতে তাতে সম্মতি জানালেও এখন জটিলতা দেখা দিচ্ছে৷ মঙ্গলবার বান কি-মুন চার সদস্যের ঐ পরিষদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন৷ ইসরায়েলি সরকারের মুখপাত্র মার্ক রেগেভ বলেছেন, ইসরায়েল এমন কোনো প্যানেলের সঙ্গে সহযোগিতা করবে না বা তাতে অংশ নেবে না, যেখানে ইসরায়েলি সৈন্যদের কার্যকলাপের তদন্ত করা হচ্ছে৷ এতকাল বিভিন্ন মহলে জল্পনা-কল্পনা চলছিল, যে এবিষয়ে জাতিসংঘের সঙ্গে ইসরায়েলের গোপন একটা বোঝাপড়া হয়ে গেছে, যার আওতায় কোনো ইসরায়েলি সৈন্যকে জাতিসংঘের প্যানেলের সামনে হাজির হতে হবে না৷ জাতিসংঘের মহাসচিব অবশ্য এমন কোনো বোঝাপড়ার কথা অস্বীকার করেছেন৷ তিনি বিষয়টিকে অত্যন্ত গুরুত্ব দিচ্ছেন৷ তাঁর মতে, শুধু ত্রাণবাহী জাহাজের উপর ইসরায়েলি হামলার ঘটনার প্রেক্ষাপট ও তথ্য জানাই যথেষ্ট নয়, ভবিষ্যতে যাতে এমন মর্মান্তিক ঘটনা আর না ঘটে, তারও উদ্যোগ নিতে হবে৷

প্রতিবেদন: সঞ্জীব বর্মন
সম্পাদনা: হোসাইন আব্দুল হাই