1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

ইলেকট্রিক গাড়ি হিসেবে টেসলা-র সাফল্য

বড় আকারে ইলেকট্রিক গাড়ি নির্মাণের সাহস যারা দেখাচ্ছে, তাদের মধ্যে প্রথম সারিতে রয়েছে মার্কিন সংস্থা ‘টেসলা’৷ বাস্তব পরিস্থিতির সঙ্গে মানিয়ে নিতে এই গাড়ির ডিজাইনেও প্রায় সবদিক ভাবা হয়েছে৷

টেসলা মডেল এস পারফর্মেন্স গাড়িটির অ্যাক্সিলারেশন দুর্দান্ত৷ রেয়ার অ্যাক্সল-এ বসানো ইলেকট্রিক মোটরটি হল ৩১০ কিলোওয়াটের, সর্বোচ্চ টর্ক ৬০০ নিউটনমিটার, যা কিনা প্রথম রেভোলিউশন থেকেই পাওয়া যায়৷ জার্মান অটোমোবাইল ক্লাব-এর মার্টিন রুডর্ফার বলেন, ‘‘আমরা আপনাদের জন্য টেসলা মডেল এস পারফর্মেন্স গাড়িটি ভালোভাবে পরীক্ষা করেছি৷ হালফ্যাশানের এই লিমুজিন-টি নাকি এক ব্যাটারি চার্জে ৫০০ কিলোমিটার অবধি যেতে পারে – পুরোপুরি ইলেকট্রিক৷''

থামা অবস্থা থেকে ঘণ্টায় ১০০ কিলোমিটার গতিতে পৌঁছতে টেসলা মডেল এস পারফর্মেন্স গাড়ির সময় লাগে চার দশমিক চার সেকেন্ড৷ ওভারটেক করার সময় ঘণ্টায় ষাট কিলোমিটার থেকে ঘণ্টায় একশো কিলোমিটার গতিতে যেতে লাগে দুই দশমিক এক সেকেন্ড৷ সর্বোচ্চ গতি ঘণ্টায় ২১০ কিলোমিটার৷

Ein Elektro-Auto des Modells Tesla Model S wird aufgeladen

টেসলা মডেল এস

গাড়ির রিচার্জেবল ব্যাটারিগুলি গাড়ির মেঝেতে বসানো, কাজেই অভিকর্ষ বিন্দু নীচের দিকে৷ অর্থাৎ আচমকা ডানদিক-বাঁদিক কাটালে গাড়ি উল্টে যাবার ভয় কম৷ এডিএসি-র ব্রেক টেস্টে মডেল এস ৩৪ মিটার পরেই দাঁড়িয়ে পড়ে৷ তবে নতুন টেসলা গাড়ির জন্যে কোনো কলিশন অ্যাভয়ডেন্স সিস্টেম নেই৷

ডিজাইনের বিশেষত্ব

চোখে পড়ার মতো গাড়ি৷ টেসলা মডেল এস গাড়িটিতে ইটালীয় এবং ব্রিটিশ কার ডিজাইনকে একত্রিত করা হয়েছে, যদিও গাড়িটি বানানো হয় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে৷ তার হালকা-পাতলা আকার দেখে মাসেরাতি কিংবা জাগুয়ারের আভিজাত্যের কথা মনে পড়াটাই স্বাভাবিক৷ মার্টিন রুডর্ফার বলেন, ‘‘ইলেকট্রিক গাড়িটি চলার সময় এতো কম শব্দ করে যে, ফিস ফিস করে কথা বললেও শোনা যায় – যদি না সাউন্ড স্টুডিও সিস্টেমে জোরে গান শোনা হয়৷ নিউম্যাটিক সাসপেনশনের ফলে টেসলা মডেল এস চড়া খুবই আরামের, যদিও সুবিশাল চাকাগুলো তাতে কিছুটা বাদ সাধে৷ স্টিয়ারিংও সুন্দর ও সরাসরি ভাবে কাজ করে৷ সব মিলিয়ে টেসলা-র প্রথম নিজস্ব মডেল হিসেবে গাড়িটি উতরেছে বৈকি৷''

আরও গুণাগুণ

গাড়ির ভেতরে প্রথমেই চোখে পড়ে ১৭ ইঞ্চি টাচস্ক্রিনের একটি সুবিশাল মনিটর, যাতে সব রকম তথ্য দেখানো হয়৷ হেডলাইট থেকে সানরুফ, সব কিছু নড়ানো-চড়ানো যায় এই টাচস্ক্রিন দিয়ে৷ তবে ছোটখাটো সব কাজও এই টাচস্ক্রিনের মেন্যু থেকে করতে হয় – গাড়ি চালানোর সময় যেটা বিড়ম্বনা হয়ে উঠতে পারে৷ গাড়ির দু'টি ট্রাঙ্কের আয়তন হল ৪৩৫ থেকে ৮৪৫ লিটার৷

কম দূরত্বে টেসলা এস গাড়ি থেকে কোনো কার্বন নির্গত হয় না৷ ডায়নামোমিটারে বসালে এই গাড়ি ৮৫ কিলোওয়াটের ব্যাটারিতে চলে ৪১৫ কিলোমিটার পর্যন্ত৷ অর্থাৎ ব্যাটারি কনজাম্পশন দাঁড়ায় প্রতি একশো কিলোমিটারে ঘণ্টায় ২৩ দশমিক ৫ কিলোওয়াট, এবং কার্বন ডাইঅক্সাইড খাতে প্রতি কিলোমিটারে ১৩৬ গ্রাম কার্বন ডাইঅক্সাইড৷ মার্টিন রুডর্ফার বলেন, ‘‘এডিএসি-র পরীক্ষায় টেসলা মডেল এস বাস্তবে ভালো ইলেকট্রিক গাড়ি বলে প্রমাণিত হয়েছে৷ অন্যান্য ইলেকট্রিক গাড়ির তুলনায় তার রেঞ্জও ভালো৷ তবে বাড়িতে ইলেকট্রিকের সকেট থেকে এই গাড়ির ব্যাটারি চার্জ করতে ৫০ ঘণ্টার বেশি সময় লাগে, কাজেই হাই ভোল্টেজ কনেকশন থাকলে সুবিধা৷ গাড়ির দাম যখন এক লাখ নয় হাজার ইউরো, তখন ঐ বাড়তি খরচটুকু গায়ে না লাগারই কথা৷''

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক