1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

ইলেকট্রনিক বর্জ্য সংগ্রহ করে অর্থ আয়

পুরনো ইলেকট্রনিক পণ্যে এমন অনেক বিষাক্ত উপাদান থাকে যা পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর৷ কেনিয়ার মতো দেশগুলোতে এই পণ্যগুলো রিসাইক্লিং-এর কাজ হয়৷ এ জন্য টাকা দেয় এই পণ্যের নির্মাতারা৷ এই শিল্পে কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করছেন অনেকে৷

নাইরোবির লাইসেন্সপ্রাপ্ত একটি কারখানায় বিদেশ থেকে আসা স্ক্র্যাপ বা ইলেকট্রনিক বর্জ্য টুকরো টুকরো করা হয়৷ প্রতি মাসে কারখানার কর্মীরা প্রায় ৬০ টন স্ক্র্যাপ ভাঙার কাজ করে৷

বিপজ্জনক এই কাজের জন্য সরকার যে খরচ নির্ধারণ করে, মাইক্রোসফট, নোকিয়া ও এইচপি-র মতো যে সব কোম্পানি এ ধরনের ইলেকট্রনিক পণ্য তৈরি করে, তাদের তা মেটাতে হয়৷

এছাড়া ছোট ছোট দোকান এবং ওয়ার্কশপে গিয়েও কোম্পানির কর্মীরা ইলেকট্রনিক বর্জ্যের খোঁজ করেন৷

যে যত স্ক্র্যাপ সংগ্রহ করতে পারবে সে তত অর্থ পাবে৷ জয়েস নেয়াউইরা নামের এক কর্মী এ ভাবে মাসে ৪৫ ইউরো আয় করেন, যেটা তাঁর অনেক প্রতিবেশীর আয়ের চেয়ে বেশি এবং দুই সন্তানকে খাওয়ানোর জন্য যথেষ্ট৷

তবে অর্থ আয়ের চেয়েও তাঁর কাজ তাঁর কাছে বেশি মূল্যবান৷ তিনি বলেন, ‘‘আমি বলতে পারি পরিবেশের জন্য আমরা ভালো কিছু করছি৷ কারণ এক বছর আগের চেয়ে পরিবেশটা এখন বেশি নির্মল৷ সুতরাং এটা ভালো৷''

অনেকের জন্য এটা একটা ভালো ব্যবসা৷ এর ফলে বিষাক্ত ইলেকট্রনিক বর্জ্যেরও একটা ব্যবস্থা হচ্ছে৷ নির্মাতারই এর খরচ দিচ্ছে৷

উগান্ডা, কেনিয়ার মতো আফ্রিকার অন্যান্য দেশ যেমন এই উদ্যোগ গ্রহণ করতে যাচ্ছে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়