1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

ইরাবতী নদীর শুশুক

মেকং নদীর ডলফিনদের দিন কি শেষ হতে চলেছে? কাম্বোডিয়ায় তারা সুরক্ষিত – অন্তত কিছুটা৷ কিন্তু লাওস যদি তার বাঁধ প্রকল্প সত্যিই বাস্তবায়িত করে – যার লক্ষণ স্পষ্ট – তাহলে মেকং নদীর মাছেদেরই বা কী হবে?

চলেছি মেকং নদীর শেষ ডলফিন, মানে শুশুকদের খোঁজে৷ কাম্বোডিয়ার এই অঞ্চলে মেকং আজও একটি দুর্দান্ত, খরস্রোতা নদী৷ ৮০টি শুশুকের একটি দল নাকি আজও এখানে বেঁচে রয়েছে৷ নৌকাচালকের নজর ঠিক থাকা চাই, কেননা বর্ষা গেলে নদীর অনেক জায়গায় জল কমে যায়৷ কিম্ভুতভাবে ব্যাঁকানো সব গাছের শিকড় দেখলে বোঝা যায়, বর্ষায় নদীর স্রোত কী মারাত্মক আকার ধারণ করে৷

ক্রাটি-তে আমরা নৌকা বদলালাম৷ কাম্বোডিয়া সরকার নদীর এই অংশটিকে বছর কয়েক আগে একটি শুশুক সংরক্ষণ এলাকা বলে ঘোষণা করেছেন৷ জেলেদের মাছ ধরা ছেড়ে পরিবেশ-বান্ধব পর্যটনের দিকে মনোযোগ দিতে হয়েছে৷ ডলফিন সুরক্ষা এলাকার গাইড ডিব গয় জানালেন, ‘‘মাছ ধরার বদলে আমি আজকাল টুরিস্টদের ডলফিন দেখাতে নিয়ে যাই৷ আমি আগে জেলে হিসেবে যা রোজগার করতাম, আজ তার চাইতে কম রোজগার করি না৷ তবুও আমার আশা, আরো অনেক পর্যটক আসবেন৷ তা আমাদের পক্ষে ভালো হবে: একগাদা নতুন চাকরি সৃষ্টি হবে৷''

ভিডিও দেখুন 05:21

মেকং নদীর ডলফিনদের দিন কি শেষ হতে চলেছে?

মেকং – মানে ইরাবতী নদীর শুশুক! তাদের চ্যাপটা মাথা দেখলে শুশুকের বদলে তিমি মাছের কথাই মনে হয়৷ জল থেকে লাফ দিয়ে বেরনো, লাফঝাঁপ করা, এ সব মেকং শুশুকদের কাজ নয়৷ কাজেই ‘ফ্লিপার' ছবির ফ্যানরা হতাশ হবেন৷ মেকং শুশুকরা ছোট ছোট কাঁকড়া ইত্যাদি খেয়ে বেঁচে থাকে, তবে মাছেও তাদের আপত্তি নেই৷ মেকং শুশুকরা নিয়মিতভাবে জলের ওপর মাথা তোলে নিঃশ্বাস নেবার জন্য৷

দুই দেশের সীমান্তে

আরো খানিকটা গেলে কাম্বোডিয়া আর লাওসের সীমান্তে শুশুকদের জন্য আরেকটি সংরক্ষিত এলাকা আছে৷ এখানে নাকি এখনও চারটি মেকং শুশুক থাকে৷ যে কারণে রক্ষীরা নিয়মিত টহল দেয়৷ ওয়ার্ল্ডওয়াইড ফান্ড ফর নেচার যোগায় বোটের তেল, আর সেই সঙ্গে একটি জিপিএস নেভিগেটর৷ রক্ষীদের পাঠানো হয়েছে কাছাকাছি গ্রাম ও জেলেদের কমিউন থেকে৷ রক্ষীদের কাজ হলো, বিশেষ করে কিছু কিছু জেলের বেআইনি মাছ ধরার ওপর নজর রাখা৷

নদীরক্ষীদের প্রধান নরং ডেট জানালেন, ‘‘আমরা এখন সীমান্তে৷ এই বোতলগুলো দেখে বোঝা যাচ্ছে যে, এখানে কানকো-জাল লাগানো হয়েছে: সরাসরি ঝোলানো জাল যাতে মাছেরা তাদের কানকোয় আটকে যায়৷ এগুলো লাওসের তরফে থাকায় আমরা এগুলো বাজেয়াপ্ত করতে পারছি না৷ এই জালগুলো শুশুকদের পক্ষে খুবই বিপজ্জনক৷ জালে আটকা পড়ে তারা অসম্ভব কষ্ট পেয়ে দম আটকে মরে৷ কোনো কোনো জেলে আবার ইলেকট্রিক শক আর বিস্ফোরকও ব্যবহার করে – শুশুকদের পক্ষে যা মারাত্মক৷''

বাঁধ তৈরির স্বপ্ন নাকি দুঃস্বপ্ন?

শুশুকদের আরো একটা বিপদ ঘনাচ্ছে, অনেক বড় বিপদ৷ মেকং-এর বিপুল স্রোত দেখে সেই স্রোতে বাঁধ দিয়ে জলবিদ্যুৎ উৎপাদনের সাধ জেগেছে কাম্বোডিয়ার প্রতিবেশী লাওস রাজ্যের৷ দরিদ্র লাওসের স্বপ্ন হলো গোটা দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার জন্য বিদ্যুৎ উৎপাদন করা৷ সেজন্য মালয়েশিয়ার সাহায্য নিয়ে সীমান্তের অদূরে ডন সাহং বাঁধ প্রকল্পের কাজ শুরু করেছে লাওস৷ বাঁধ তৈরির সাইটে ছবি তোলার অনুমতি নেই – তবে কাম্বোডিয়ার দিকে অবকাঠামোগত নির্মাণকার্য দেখে আন্দাজ করা যায়, আর্থমুভাররা সাইটে নামলে অবস্থা কী দাঁড়াবে৷

ও'স্ভে কমিউনের প্রধান সুন রাট জানালেন, ‘‘আমি তিন হাজার ২০০ মানুষের বেশি সদস্য সম্বলিত ৬০০টি পরিবারের প্রতিনিধিত্ব করি৷ আমি খুব চিন্তায় আছি: লাওস যদি সত্যিই বাঁধ তৈরি করে, তাহলে আমাদের জল আরো খারাপ হবে, বিশেষ করে নানা জৈবিক পদার্থ পচার ফলে৷ শুশুকরা উধাও হবে, মাছেরা উধাও হবে৷ গরমকালে নদীর জল কমে যাবে; বর্ষাকালে জলের চাপ কমানোর জন্য যখন বাঁধ থেকে জল ছাড়বে, তখন নদীপাড়ের মানুষ আর জীবজন্তুদের প্রাণসংশয় হবে৷''

পরিবেশ সংরক্ষণকারীরা প্রতিবাদ প্রদর্শন করেছেন৷ এলাকার গাঁয়ের মোড়লরা জমায়েত হয়েছেন৷ প্রায় ২০০ মানুষের প্রতিবাদ মিছিল, তবে নৌকায় চড়ে৷ যদিও প্রতিবাদ দেখিয়ে বিশেষ কোনো লাভ হয়নি – লাওস তার বাঁধ প্রকল্প ছাড়ছে না৷ শুধু শুশুকরাই যে বিপন্ন হবে, এমন নয়; বিপন্ন হবে মাছেরাও৷ কাম্বোডিয়ার মানুষদের একটা প্রধান খাদ্য হলো মাছ৷ মেকং নদীর বিভিন্ন প্রজাতির মাছ নদীর স্রোত ধরে বহুদূর অবধি যায়-আসে৷ বাঁধ তৈরি হলে তা সম্ভব হবে না৷

শুশুক ছাড়া মেকং যেন আরো কিছুটা শ্রীহীন হয়ে পড়বে – পরিবেশের কথা না হয় বাদই দেওয়া গেল৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়