1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

ইরানে ডিপ্রেশনের প্রকোপ বৃদ্ধি পাচ্ছে

ইরানে অনেক মানুষ, বিশেষ করে তরুণরা মানসিক রোগ বা ডিপ্রেশনে আক্রান্ত হচ্ছেন৷ সামাজিক ও রাজনৈতিক চাপের কারণে প্রবণতা বৃদ্ধি পাচ্ছে বলে মনে করেন মনস্তত্ত্ববিদরা৷

‘‘আমার জীবনে যদি কোনো পরিবর্তন না হয় তা হলে দেশ ছাড়তে হবে আমাকে৷ ভবিষ্যৎটা আমার অন্ধকার বলে মনে হচ্ছে৷'' বলেন তেহরানের ২৩ বছর বয়সি ছাত্র কাভে ৷ কঠিন ডিপ্রেশনে ভুগছেন এই তরুণ৷

‘‘শুধু আমি একাই নই, আমার পরিচিত অনেকেই আজ এই সমস্যায় ভুগছেন'', জানান কাভে৷

আসল সংখ্যাটা অনুমান করা কঠিন

তাঁদের আসল সংখ্যাটা কত হবে, তা অনুমান করা খুব কঠিন৷ ইরানের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের প্রাক্তন কর্মী সংস্কারপন্থি আলি আকবর সায়ারির মতে, মানসিক সমস্যার কবলে পড়া মানুষদের সংখ্যা প্রতি বছরই বৃদ্ধি পাচ্ছে৷ বর্তমানে প্রায় ৪০ শতাংশ ইরানি মানসিক রোগে ভুগছেন৷

সরকারি তথ্য অনুযায়ী সংখ্যাটা অবশ্য অনেক কম৷ সদ্য বিদায়ি আহমাদিনেজাদ সরকারের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, মানসিক রোগীদের সংখ্যা অল্প কয়েক বছরের মধ্যে ১৯ থেকে ২৩ শতাংশ বেড়েছে৷ এঁদের মধ্যে অর্ধেকের বেশি দারিদ্র্য ও সুযোগ-সুবিধার অভাবে মানসিক সমস্যায় ভোগেন৷

ইসলামিক প্রজাতন্ত্রের কঠোর আইন-কানুনও মানসিক অসুস্থতার একটা কারণ, বলেন বিশেষজ্ঞরা৷ ইরানের শিশু কিশোর মনস্তত্ত্ববিদ ও থেরাপিস্ট মোজগান কাহেন ডয়চে ভেলের সঙ্গে এক সাক্ষাৎকারে বলেন, ‘‘স্কুলে যৌনতাকে পাপজনক বিষয় বলে ধারণা দেওয়া হয়৷ স্বাভাবিকভাবেই পরবর্তীতে তা নারী ও পুরুষের সম্পর্কের ওপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলে৷''

মূলত রাজনৈতিক ও সামাজিক পদ্ধতি দায়ী

ইরানের সমগ্র রাজনৈতিক ও সামাজিক পদ্ধতিই তরুণ সম্প্রদায়ের ওপর মানসিক চাপ সৃষ্টি করছে, বলেন থেরাপিস্ট কাহেন৷ স্বাধীনভাবে মতামত প্রকাশ করার অধিকার অত্যন্ত সীমিত৷ আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংগঠনগুলি উদ্বেগ প্রকাশ করে জানায় ভিন্নমতাবলম্বীদের নানা অজুহাতে বন্দি করা হচ্ছে৷ ধর্ম-পুলিশ তীক্ষ্ণ দৃষ্টিতে লক্ষ্য রাখে মেয়েরা পর্দা মনে চলছেন কিনা বা হিজাব পড়ছেন কিনা৷

ডিসকো, পার্টি এসব নিষিদ্ধ৷ তরুণরা তাদের ইচ্ছা-আকাঙ্খাকে দমন করে রাখতে বাধ্য হয়৷ এসবও ডিপ্রেশনের প্রধান কারণ, জানান মনস্তত্ত্ববিদ কাহেন৷ তরুণরা স্যাটেলাইট টিভি ও ইন্টারনেটের মাধ্যমে বিশ্বের অন্যান্য দেশের তরুণদের জীবনযাত্রা সম্পর্কে জানতে পারেন৷

মনস্তত্ত্ববিদ ও থেরাপিস্ট রেজা কাজেমজাদে মনে করেন, ‘‘সমাজের ঐতিহ্যগত নৈতিক মূল্যবোধের সঙ্গে আধুনিক জীবনধারার পার্থক্যটা তরুণ ইরানিরা মর্মে মর্মে উপলব্ধি করেন৷ তাঁরা অন্যান্য দেশের সমবয়সিদের মতো আচার আচরণ করতে পারেন না বা চলতে ফিরতে পারেন না৷ কেননা শাস্তির ভয় থাকে তাঁদের৷''

অনেক দ্বৈত জীবন যাপন করেন

তাই অনেকেই একটা দ্বৈত জীবন যাপন করতে বাধ্য হন৷ কাভে জানান, ‘‘আমাদের আশা আকাঙ্খা আমরা চার দেয়ালের মধ্যে পূরণ করতে চেষ্টা করি৷ কিন্তু যারা রক্ষণশীল পরিবারে বাস করেন, তাঁদের অবস্থা তো আরো করুণ৷''

তার ওপর অর্থনৈতিক সমস্যাটা বোঝার ওপর শাকের আঁটির মতো হয়ে দাঁড়িয়েছে৷

সামাজিক ও রাজনৈতিক সমস্যার সাথে অর্থনৈতিক সমস্যা যুক্ত হলে মানুষের মনের অবস্থা ভালো থাকাটা খুবই কঠিন, বলেন থেরাপিস্ট কাজেমজাদেহ৷ আর্থিক সামর্থ্য না থাকায় মানসিক অসুস্থতায় ভুগলেও থেরাপিস্টের কাছে যেতে পারেন না অনেকে৷

এছাড়া ডিপ্রেশন ইরানে একটি ট্যাবু বা নিষিদ্ধ বিষয়৷ অসুখটিকে গুরুত্ব দেওয়া হয় না৷ অনেক সময় শনাক্তও করা হয় না৷ অনেকেই থেরাপিস্টের কাছে যেতে সংকোচ বোধ করেন৷ কাভে বলেন, ‘‘আশেপাশের মানুষের কাছে তো পাগল বলে গণ্য হতে পারি না আমি৷''

নির্বাচিত প্রতিবেদন