1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ইরানে চলচ্চিত্র পরিচালক জাফর পানাহিকে গ্রেপ্তারের খবর

খ্যাতিমান ইরানি চলচ্চিত্র পরিচালক জাফর পানাহিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে খবর দিয়েছে দেশটির বিরোধি ওয়েবসাইটগুলো৷

default

জাফর পানাহি

সোমবার রাতে তাঁর বাড়ি থেকে স্ত্রী, এক মেয়ে এবং পনেরো জন অতিথিসহ পানাহিকে গ্রেপ্তার করে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে যাওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন তাঁর ছেলে পানাহ পানাহি৷

ভেনিস চলচ্চিত্র উৎসবে ‘গোল্ডেন লায়ন' এবং বার্লিন চলচ্চিত্র উৎসবে ‘সিলভার বিয়ার' এর মতো পুরস্কার জেতা পানাহি ইরানে অত্যন্ত জনপ্রিয় সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব এবং তিনি দেশটির কট্টরপন্থি রাষ্ট্রীয় নীতির প্রকাশ্য সমালোচক৷ গত বছরের বিতর্কিত নির্বাচনের সময় বিরোধি নেতা মীর হুসেইন মুসাভিকে সমর্থন দেওয়ার মধ্য দিয়ে তিনি প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আহমাদিনেজাদের সরকারের রোষানলে পড়েন৷

মুসাভি সমর্থক ‘রাহেসাবাজ' ওয়েবসাইটকে মঙ্গলবার তাঁর ছেলে পানাহ পানাহি জানান, ‘‘সোমবার রাত ১০টার দিকে বেশ কয়েকজন সাদা পোশাকের এজেন্ট বাসায় ঢুকে পড়ে৷'' তিনি জানান, এসময় তাঁর মা, বোন এবং বাড়িতে উপস্থিত ১৫জন অতিথিসহ বাবা জাফর পানাহি আটক করে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে গেছেন সরকারি এজেন্টরা৷ নিরাপত্তা কর্মকর্তারা বাড়িতে তল্লাশি চালিয়ে কম্পিউটারসহ অন্যান্য কিছু জিনিসপত্র জব্দ করেছে বলেও জানান তিনি৷

তবে, ইরান সরকারের পক্ষ থেকে পানাহিকে গ্রেপ্তারের বিষয়ে এখনও কোনো মন্তব্য পাওয়া যায়নি৷ দেশটির সরকারি বার্তা মাধ্যমগুলোও এ বিষয়ে কিছু জানায়নি৷

এর আগে নির্বাচনোত্তর

Jasmila Zbanic Flash-Galerie

জাফর পানাহি, বামে, ২০০৬ সালে ‘অফসাইড' পরিচালনার জন্য বার্লিনালের ‘সিলভার বিয়ার' পুরস্কার জেতেন

সহিংসতার সময়ে হত্যাকাণ্ডের শিকার বিক্ষোভকারী নেদা আগা সুলতানের শেষকৃত্যে যোগ দেওয়ার কারণে গত বছর পানাহিকে স্বল্প সময়ের জন্য গ্রেপ্তার করা হয়েছিল৷

ফেব্রুয়ারি মাসে বার্লিন চলচ্চিত্র উৎসবে ইরানি চলচ্চিত্র নিয়ে আলোচনার জন্য বিশেষ অতিথি হিসেবে যোগ দেওয়ার কথা থাকলেও দেশত্যাগে সরকারি নিষেধাজ্ঞার কারণে বার্লিনে আসতে পারেন নি পানাহি৷ ক্যানাডায় মন্ট্রিয়াল চলচ্চিত্র উৎসবে জুরি হিসেবে যোগ দেওয়ার সময়ে সবুজ পোশাক পরে মীর হুসেইন মুসাভির ‘গ্রিন মুভমেন্টকে' প্রকাশ্য সমর্থন দেওয়ার অপরাধে পানাহির ওপর ওই ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা জারি করে আহমাদিনেজাদের সরকার৷

ইরানের দমনমূলক রাষ্ট্রীয় আইন কানুন এবং রক্ষণশীল সমাজের নির্মম বাস্তবতার চিত্র পাওয়া যায় পানাহির চলচ্চিত্রে৷ ফুটবল মাঠে দর্শক হিসেবে নারীদের প্রবেশাধিকার নেই ইরানে৷ এ অবস্থায় জাতীয় দলের বিশ্বকাপ বাছাই পর্বের খেলা দেখতে কিছু তরুণী পুরুষের ছদ্মবেশে স্টেডিয়ামে খেলা দেখতে গেলে যে পরিস্থিতির সৃষ্টি হয় তা নিয়ে পানাহির ছবি ‘অফসাইড'৷ ২০০৬ সালে ‘অফসাইড' পরিচালনার জন্য বার্লিনালের ‘সিলভার বিয়ার' পুরস্কার জেতেন পানাহি৷ ২০০০ সালে ভেনিস চলচ্চিত্র উৎসবে ‘গোল্ডেন লায়ন' জেতে পানাহির ‘ক্রিমসন গোল্ড'৷

কিন্তু, আন্তর্জাতিক অঙ্গনে পুরস্কৃত হলেও পানাহির বেশিরভাগ ছবিরই প্রদর্শনী নিষিদ্ধ ইরানের প্রেক্ষাগৃহগুলোতে৷

প্রতিবেদন : মুনীর উদ্দিন আহমেদ

সম্পাদনা : আব্দুল্লাহ আল-ফারূক

সংশ্লিষ্ট বিষয়