1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ইরানের সঙ্গে আলোচনা চালানো ছাড়া উপায় নেই

সাকুল্যে ১২ বছর ধরে যে আলোচনা চলছে, আবার বন্ধ হচ্ছে, আবার চলছে, তার ‘ডেডলাইন' আবরো একবার পিছিয়ে দেওয়া হয়েছে৷ কিন্তু মিডিয়া বা টুইটারে আসন্ন চুক্তি – যদি সত্যিই তা আসন্ন হয় – তা নিয়ে বিশেষ উচ্ছ্বাস নেই৷

রুশ দৈনিক ‘কমার্সান্ট' মঙ্গলবার লেখে: ‘‘আলাপ-আলোচনায় বিশেষ আশাবাদিতা দেখা যাচ্ছে না৷ আলাপ-আলোচনা ৯ই জুলাই অবধিও চলতে পারে৷ প্রায় সাত-আটটি বিষয় এখনও অমীমাংসিত৷ প্রস্তুত করা খসড়াগুলো বারংবার সংশোধন করা হচ্ছে৷ এক্ষেত্রে রাশিয়ার মূল স্বার্থ হলো, ইরানকে অস্ত্রসরবরাহের উপর নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়া হচ্ছে কিনা৷ কিন্তু সেটাও এখনো নিশ্চিত নয়৷''

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরি সোমবার ভিয়েনায় ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মহম্মদ জাভাদ জরিফের সঙ্গে একটি বৈঠকের পর বলেন, আলাপ-আলোচনা ‘‘যে কোনো দিকে'', অর্থাৎ ভালো কিংবা মন্দের দিকে যেতে পারে৷ কেরি বলেন: ‘‘সবচেয়ে কঠিন বিষয়গুলির মধ্যে একাধিক ক্ষেত্রে আমাদের যতদূর এগোনোর কথা ছিল, আমরা ততদূর এগোতে পারিনি৷'' সোমবারের ‘ওয়াশিংটন পোস্ট' যোগ করছে: ‘‘এতদূর এগোনোর পর ব্যর্থ হওয়ার কোনো প্রশ্ন ওঠে না – সাধারণভাবে সকলের এই ধারণা হলেও, কূটনীতিকরা কিন্তু বার বার সতর্ক করে দিয়েছেন যে, তারা অসফল হতে পারেন৷''

মন্দের ভালো

ইরান আন্তর্জাতিক আণবিক শক্তি সংস্থা আইএইএ-র পরিদর্শকদের কতটা পর্যবেক্ষণের সুযোগ দেবে, সেটাকে একটা বড় বাধা বলে গণ্য করছিলেন কূটনীতিকরা৷

গত শুক্রবার পর্যন্ত ইরান আইএইএ-র পেশ করা বারোটি প্রশ্নের মধ্যে মাত্র দু'টিতে সহযোগিতার মনোভাব প্রদর্শন করেছে – লিখছিল জার্মানির স্যুডডয়চে সাইটুং৷ ইরানের সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহ আলি খামেনেই ‘‘সব ধরনের অতিরিক্ত নিয়ন্ত্রণ প্রত্যাখ্যান করেছেন''; অপরদিকে পশ্চিমি প্রতিনিধিদের দাবি হলো, আইএইএ-কে ‘‘সর্বদা তথা সর্বত্র'' পরিদর্শনের অধিকার দিতে হবে৷

একসপ্তাহ আগেও নিউ ইয়র্ক টাইমস-এর টমাস এল ফ্রিডম্যান একটি ‘‘ভালো গোছের খারাপ চুক্তি'' প্রত্যাশা করছিলেন৷ তাঁর মতে খসড়া চুক্তিতে দেখা যাচ্ছে, খামেনেই ইরানের বুনিয়াদি পারমাণবিক কাঠামো বজায় রাখতে সক্ষম হয়েছেন – যদিও কিছুটা কাটছাঁট সহ৷ অপরদিকে খামেনেই বারংবার জানিয়েছেন যে, ইরান তার সামরিক স্থাপনাগুলি পরিদর্শনের অনুমতি দেবে না৷

ফ্রিডম্যানের চোখের সামনে ভাসছে অদ্ভুত দৃশ্যটি: গোলটেবিলে আলাপ-আলোচনা চলেছে; একদিকে ইরান, অন্যদিকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, রাশিয়া, চীন, ফ্রান্স, জার্মানি এবং ব্রিটেন৷ ওদিকে ইরানের হাতের তাস খারাপ হলেও, ইরান দারুণ খেলছে৷ কাজেই ফ্রিডম্যানের ব্যঙ্গপূর্ণ মন্তব্য: ‘‘আমার বাড়ি বিক্রির জন্য আমি খামেনেইকেই ভাড়া করবো৷''

টুইটারে

জুলিয়ান মায়ার টুইট করেছেন: ‘‘প্রতিনিধিরা ইরান চুক্তি সম্পন্ন করার জন্য ‘ঘড়ি বন্ধ করে রাখতে পারেন''৷

রাজেশ রাজাগোপালন-এর টুইট: ‘‘এর অর্থ সম্ভবত এই যে, কেরি এত কিছু ছাড় দিয়েছেন যে, তেহরানকে নতুন দাবি তুলতে হচ্ছে৷ ইরান চায় অস্ত্র সরবরাহের উপর নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করা হোক৷''

জেরেমি ডায়মন্ড-এর টুইট: ‘‘মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র কি ইরানের সঙ্গে একটি বাজে চুক্তি করছে?''

সংকলন: অরুণ শঙ্কর চৌধুরী

সম্পাদনা: দেবারতি গুহ

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়