1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ইরানের সঙ্গে আলোচনার বিকল্প নেই: আহমাদিনেজাদ

ইরানের কট্টরপন্থী প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আহমাদিনেজাদ বলেছেন, তাঁর দেশের পারমাণবিক কর্মসূচি নিয়ে ইরানের সঙ্গে কথা বলা ছাড়া বিশ্ব শক্তির আর কোন উপায় নেই৷ আগামী মাসে আলোচনায় বসার আগে তিনি এই অবজ্ঞাপূর্ণ বক্তব্য রাখলেন৷

Iranian, President, Mahmoud Ahmadinejad, ইরান, প্রেসিডেন্ট, মাহমুদ, আহমাদিনেজাদ

ইরানের প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আহমাদিনেজাদ

আহমাদিনেজাদ বলেন, ‘‘আমরা প্রথম থেকে বলছি সবচেয়ে ভালো উপায় ইরানের সঙ্গে কথা বলা৷ আপনাদের আর কোন উপায় নেই৷ অন্য সব রাস্তাই বন্ধ৷'' বিশ্বের ছয়টি শক্তিধর দেশ এবং ইরানের মধ্যে আগামী মাসে আলোচনার যে তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে, তারপর থেকে এই পর্যন্ত, এই প্রথমবারের মতো তিনি এই ব্যাপারে মন্তব্য করলেন৷

নভেম্বরের ১৫ তারিখ থেকে ১৮ তারিখ পর্যন্ত তেহরানের পারমাণবিক কর্মসূচির ব্যাপারে পশ্চিমের উদ্বেগ নিয়ে ইরানের সঙ্গে কথা বলবে যুক্তরাষ্ট্র, ব্রিটেন, চীন, ফ্রান্স, রাশিয়া ও জার্মানি৷ যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বে বিশ্ব শক্তিগুলোর সন্দেহ, ইরান যাকে সম্পূর্ণ বেসামরিক আণবিক কর্মসূচি বলে অভিহিত করছে, তার আড়ালে আসলে পারমাণবিক অস্ত্র তৈরি করছে৷ ২০০৯ সালে দুই পক্ষ শেষবার জেনেভাতে আলোচনায় বসেছিল, তারপর থেকেই আলোচনা স্থবির হয়ে পড়ে৷

আহমাদিনেজাদ ইরানের প্রেসিডন্টের দায়িত্ব নেবার পর থেকেই দেশটির পারমাণবিক কর্মসূচি দ্রুত গতিতে এগুচ্ছে বলে ধারণা করা হয়৷ আহমাদিনেজাদ সবসময় জোর দিয়ে বলে আসছেন যে, আলোচনা অবশ্যই ‘পারস্পরিক নীতি ও শ্রদ্ধা'র ভিত্তিতে অনুষ্ঠিত হতে হবে এবং বিশ্ব শক্তিকে অবশ্যই তেহরানের পূর্ব শর্তের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হতে হবে৷ কট্টরপন্থী এই নেতা বারবারই জিজ্ঞেস করছেন যে, বিশ্ব শক্তি জাতিসংঘের আণবিক পরিদর্শক নীতির প্রতি অঙ্গীকার বজায় রাখবে নাকি ইরানের ব্যাপারে কৌশল অবলম্বন করবে৷ ইসরায়েলের আণবিক অস্ত্রের ব্যাপারে আন্তর্জাতিক শক্তির দৃষ্টিভঙ্গি প্রকাশ এবং ইসরায়েলের আণবিক শক্তিকে বরদাশত করার ‘যুক্তি' দেখানোর জন্যে তিনি দাবি জানিয়েছেন৷

রবিবার ইরানের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলীয় শহর আরদেবিলে বক্তব্য রাখেন আহমাদিনেজাদ৷ এবং তা রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে সরাসরি সম্প্রচারিত হয়৷ সেখানে তিনি ইঙ্গিত দেন যে, শর্তের ব্যাপারে বিশ্ব শক্তির প্রতিক্রিয়া দেখেই নভেম্বরের আলোচনা কোন দিকে ধাবিত হবে তা বোঝা যাবে৷ জনগণের সামনে রাখা এই বক্তব্যে প্রবল হাততালির মধ্যে আহমাদিনেজাদ বলেন, ‘‘এইসব শর্তের ব্যাপারে আপনাদের যুক্তিপূর্ণ এবং আইনগত মতামত জানতে আমরা খুব আগ্রহী৷'' তিনি বলেন, ‘‘আপনারা যদি চুপ করে থাকেন, তাহলে তার অর্থ হবে, আপনারা ইহুদিদের আণবিক বোমার প্রতি সমর্থন দিচ্ছেন এবং আলোচনার মাধ্যমে কোন বন্ধুত্ব চান না৷'' তিনি হুমকির সুরে বলেন, ‘‘যেকোন একটা বেছে নিতে পারেন৷ কিন্তু দ্বিতীয় পথ, অর্থাৎ ইরানের শর্তের ব্যাপারে চুপ করে থাকলে যা আপনারা আগে অর্জন করেছেন, এই আলোচনা তারচেয়ে আর বেশি কিছুই বয়ে আনবে না৷''

ইরান বারবারই ইসরায়েলকে নিরস্ত্রীকরণ চুক্তি অর্থাৎ এনপিটি-তে যোগ দিতে বলছে৷ ইরান এই চুক্তিতে স্বাক্ষরদাতাদের অন্যতম৷

প্রতিবেদন: ফাহমিদা সুলতানা

সম্পাদনা: হোসাইন আব্দুল হাই

নির্বাচিত প্রতিবেদন