1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ইরানের ওপর নিষেধাজ্ঞা নিয়ে জাতিসংঘে আজ ভোটাভুটি

ইরানের ওপর চতুর্থবারের মত নিষেধাজ্ঞা আরোপের খসড়া নিয়ে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে বুধবার ভোটাভুটি হতে যাচ্ছে৷

default

হিলারি ক্লিন্টন: নিষেধাজ্ঞা আগের চেয়ে কঠোর হবে

এর মাধ্যমে ইরানের ওপর যে আবার নিষেধাজ্ঞা আসতে যাচ্ছে সে ব্যাপারটি মোটামুটি নিশ্চিত৷ কারণ নিরাপত্তা পরিষদের সদস্য সংখ্যা ১৫৷ এর মধ্যে নয়টি ভোট খসড়ার পক্ষে পড়লেই তা পাশ হয়ে যাবে৷ আর ছয়টি ভোট তো এখনই নিশ্চিত৷ কারণ তারাই খসড়াটি তৈরি করেছে৷ এই ভোট ছয়টি হলো নিরাপত্তা পরিষদের পাঁচ স্থায়ী সদস্য ও জার্মানি'র৷ অর্থাৎ আর প্রয়োজন থাকবে মাত্র তিনটি ভোটের৷ তবে এখানে একটি কথা বলে রাখা ভাল যে, রাশিয়া এই নিষেধাজ্ঞার পক্ষে হলেও তারা চায় না কোনো কঠোর কিছু করা হোক৷ ইরানের জনগণ বিপদে পড়ে যাবে এমন নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা ঠিক হবেনা, বলে মন্তব্য করেছেন রুশ প্রধানমন্ত্রী ভ্লাদিমির পুটিন৷ তবে এই নিষেধাজ্ঞা খসড়ার মূল উদ্যোক্তা যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি ক্লিন্টন কিন্তু বলছেন যে, আগের যে কোন সময়ের চেয়ে এবারের নিষেধাজ্ঞা হবে বেশি শক্তিশালী৷

কেন এই নিষেধাজ্ঞা

ইরানের বিরুদ্ধে মূল অভিযোগ তাদের পরমাণু কর্মসূচি নিয়ে৷ যুক্তরাষ্ট্র সহ পশ্চিমা বিশ্বের আশঙ্কা, দেশটি এই কর্মসূচির আড়ালে পরমাণু অস্ত্র তৈরি করছে৷ কিন্তু ইরান বরাবরই এই অভিযোগ অস্বীকার করে আসছে৷ বরং তাদের দাবি, পরমাণু জ্বালানি তৈরিই হলো এই কর্মসূচির মূল উদ্দেশ্য৷

খসড়ার বিষয়াদি

এই খসড়ার মূল যে বিষয় সেটা হলো- অস্ত্র নিষেধাজ্ঞা৷ এছাড়া রয়েছে ইরানের ব্যাংকিং খাতের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ ও দেশের বাইরে ইউরেনিয়াম মাইনিং-এর ওপর নিষেধাজ্ঞা৷ আর গভীর সমুদ্রে চলাচলকারী ইরানের কোনো জাহাজের ব্যাপারে সন্দেহ হলে অনুমোদিত কয়েকটি দেশ তা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে দেখতে পারবে৷ অর্থাৎ নিষেধাজ্ঞা আছে, এমন কোনো জিনিস যেন ইরানে ঢুকতে না পারে এবং ইরান থেকে এধরণের কোন জিনিস যেন অন্য কোথাও নিয়ে যাওয়া না যায়, সেটা নিশ্চিত করা হবে৷

ইরানের প্রতিক্রিয়া

ইরান মাত্র ক'দিন আগেই আন্তর্জাতিক বিশ্বের দাবির প্রতি সম্মান জানিয়ে দেশের বাইরে ইউরেনিয়াম পাঠাতে রাজি হয়েছিল৷ এ ব্যাপারে তারা ব্রাজিল আর তুরস্কের সঙ্গে একটি চুক্তিও স্বাক্ষর করেছিল৷ কিন্তু এরপরও জাতিসংঘ যখন নিষেধাজ্ঞা আরোপের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিতে যাচ্ছে তখন সে ব্যাপারটিকে ইরান স্বভাবতই ভাল চোখে দেখছেনা৷ সত্যি সত্যিই যদি নিষেধাজ্ঞার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত হয়ে যায় তাহলে ইরান তার পরমাণু কর্মসূচি নিয়ে আর কোন ধরণের আলোচনায় বসবেনা বলে পরিস্কার জানিয়ে দিয়েছেন প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আহমেদিনেজাদ৷ তবে ইরান যেন আলোচনার পথ একেবারে বন্ধ করে না দেয় সে ব্যাপারে তুরস্ক চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে বলে খবর পাওয়া গেছে৷

প্রতিবেদন: জাহিদুল হক

সম্পাদনা: সুপ্রিয় বন্দ্যোপাধ্যায়

সংশ্লিষ্ট বিষয়