1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ইরানকে সঙ্গে নিয়ে আইএস-এর বিরুদ্ধে লড়ছে ইরাক

টিকরিট ফিরে পাওয়ার জন্য ব্যাপক অভিযানে নেমেছে ইরাকের বাহিনী৷ আইএস-এর উত্থানের পর থেকে সবচেয়ে বড় এ অভিযানে প্রতিবেশী দেশ ইরানও আছে সঙ্গে৷ যুক্তরাষ্ট্রের ধারণা, ইরান পাশে দাঁড়ানোর ফল ইতিবাচকই হবে৷

যুক্তরাষ্ট্রের শীর্ষস্থানীয় সামরিক কর্মকর্তা জেনারেল ডেম্পসি বলেছেন, টিকরিট থেকে আইএস-কে বিতাড়িত করার যুদ্ধে ইরাকের বাহিনীর সঙ্গে ইরানের সেনাদের যোগ দেয়ার ফল ভালো হবে বলেই তিনি মনে করেন৷ মঙ্গলবার যুক্তরাষ্ট্রের সেনেটে তিনি এ কথা বলেন৷ মার্কিন সেনাবাহিনীর শীর্ষ কর্মকর্তা – জয়েন্ট চিফস অফ স্টাফ জেনারেল মার্টিন ডেম্পসে বলেন, ইরাকের শিয়া আধা সামরিক বাহিনীকে সহায়তা করতে ইরানের এগিয়ে আসা নতুন কিছু নয়৷ ২০০৪ সাল থেকে এই ধারা চলছে বলেও উল্লেখ করেন তিনি৷

তাঁর মতে, আগে কখনো ইরান এতটা প্রকাশ্যে ইরাকের সহায়তায় এগিয়ে আসেনি ইরান৷ ইরানের এমন প্রকাশ্যে সুন্নিদের জঙ্গি সংগঠন ইসলামিক স্টেট (আইএস)-এর বিরুদ্ধে যুদ্ধে নামাকে বর্তমান প্রেক্ষাপটে খুব গুরুত্বপূর্ণ পরিবর্তন বলে মনে করেন জেনারেল মার্টিন ডেম্পসে৷

গত বছরের জুন মাস থেকে টিকরিট আইএস-এর দখলে৷ রাজধানী বাগদাদ থেকে ১৬০ কিলোমিটার উত্তরের সুন্নি অধ্যুষিত এ শহরেরই জন্মেছিলেন সাবেক প্রেসিডেন্ট সাদ্দাম হোসেন৷ এ শহরের নিয়ন্ত্রণ ফিরে পাওয়ার জন্য শিয়া আধা সামরিক বাহিনীকে সঙ্গে নিয়ে সব চেয়ে বড় অভিযান শুরু করেছে ইরাকের বাহিনী৷ কিন্তু ৩০ হাজার সৈন্য নিয়ে অভিযান শুরু করলেও দ্রুত অগ্রগতি হচ্ছে না৷ আইএস-এর পেতে রাখা বোমার কারণে মন্থর গতিতে এগোতে হচ্ছে তাদের৷

ইরাকি বাহিনীর এই টিকরিট অভিযানকে মোসুল ফিরে পাওয়ার পথে প্রথম পদক্ষেপ বলেও ধারণা করা হচ্ছে৷ গত বছর মোসুল দখল করেই ইরাকে নিজেদের জোরালো উপস্থিতির ঘোষণা দিয়েছিল আইএস৷ এরপর ধীরে ধীরে দেশের বেশ বড় একটি অংশ দখল করে নেয় ইসলামি জঙ্গি সংগঠনটি৷

এসিবি/ডিজি (এপি, এএফি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়