1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ইরাকে মানবেতর অবস্থায় আছেন বাংলাদেশিরা

ইরাকে বাংলাদেশিরা এক ভীতিকর অবস্থার মধ্যে আছেন৷ তাঁরা শিকার হচ্ছেন নির্যাতনের৷ তাঁরা শিয়া-সুন্নি উভয় পক্ষের হাতেই মার খাচ্ছেন৷ অনেকে দেশে ফিরে আসতে চাইলেও সুযোগ পাচ্ছেন না৷ আর কেউ কেউ মানবেতর জীবনযাপন করছেন৷

ইরাকের বিভিন্ন স্থানে কর্মরত ৪১ জন বাংলাদেশি মঙ্গলবার দেশে ফিরে এসেছেন৷ সকালে হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে এসে পৌঁছান তাঁরা৷ তাঁদের কথায়, ইরাকের বর্তমান পরিস্থিতিতে বাংলাদেশিরা খুবই ভীতিকর অবস্থায় আছেন৷ অনেক সময় ইরাকি পুলিশ ও নিরাপত্তা বাহিনীর হাতে তাঁদের নির্যাতনের শিকারও হতে হচ্ছে৷

বেশ কয়েকজন ইরাক ফেরত শ্রমিক জানান, শুধু সুন্নি বিদ্রোহী নয়, তাঁরা শিয়া নিরাপত্তা বাহিনীর হাতেও নির্যাতিত হয়েছেন৷ সুন্নি পরিচয় পেলেই পুলিশ ও নিরাপত্তা বাহিনীর লোকেরা তাঁদের ওপর নির্যাতন করেছে৷ বন্দুকের নল ঠেকিয়ে গুলি করার হুমকি দিয়েছে৷ তাই ভয়ে তাঁরা নিজ খরচে দেশে ফিরে আসতে বাধ্য হয়েছেন৷

নির্যাতনের শিকার সাইফুল ইসলাম তাঁর ওপর নির্যাতনের বর্ণনা দিতে গিয়ে বলেন, ‘‘আমার দাড়ি ছিল, পাসপোর্ট আছে৷ তারপরও আমার ওপর অকথ্য নির্যাতন করা হয়েছে৷ আমার পায়ের গোড়ালিতে বার বার আঘাত করেছে তারা৷''

জিম্মি দশায় নির্যাতনের শিকার অপর এক বাংলাদেশি শ্রমিক আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘‘আমাদের ওপর যে পরিমাণ নির্যাতন হয়েছে, তা ভাষায় প্রকাশ করার মতো নয়৷ সেই ঘটনা মনে পড়লে এখনো আমাদের গা শিউরে ওঠে৷''

শ্রমিকরা জানিয়েছেন, তাঁদের ফিরে আসতে প্রত্যেককে বিমানের টিকিট বাবদ খরচ করতে হয়েছে ৫৫ হাজার টাকা৷ টাকার অভাবে আরো প্রায় ছয় হাজার শ্রমিক দেশে ফিরতে পারছে না বলেও জানান তাঁরা৷

জিম্মি দশা থেকে বাংলাদেশে ফেরত আসা শ্রমিক আবু বকর বলেন, ‘‘আমার বাড়ি থেকে ৫৫ হাজার টাকা দিয়ে টিকেট কেটে পাঠিয়েছে, তাই আমি দেশে আসতে পেরেছি৷ আমার মতো অসংখ্য মানুষ ইরাকে রয়েছেন, যাঁরা এই টাকা যোগার করতে না পারায় দেশে ফিরতে পারছেন না৷''

Irakische Sicherheitskräfte in Kerbela 16.06.2014

রাকের বর্তমান পরিস্থিতিতে বাংলাদেশিরা খুবই ভীতিকর অবস্থায় আছেন

ইরাকে বাংলাদেশি দূতাবাসের বিরুদ্ধে তাঁরা নির্লিপ্ততার অভিযোগ তুলে বলেন, ‘‘আমাদের ওপর এত অত্যাচার সত্ত্বেও সেখানকার প্রতিনিধি কোনো উদ্যোগ নেয়নি৷ দূতাবাসে ফোন করার পর তারা শুধু বলেছে – ‘আমরা দেখছি'৷''

ফিরে আসা এই শ্রমিকরা বাগদাদ এবং ইরাকের বিভিন্ন শহরের নির্মাণ প্রতিষ্ঠানে কাজ করতেন৷ তাঁরা জানান যে, মসুলে ১,৫০০ বাংলাদেশি আছেন, যাঁরা সবচেয়ে খারাপ অবস্থায় দিন কাটাচ্ছেন৷

সরকারি হিসেবে বাংলাদেশের ১৪ হাজার নাগরিক এখন ইরাকে বিভিন্ন পেশায় নিয়োজিত৷ তাঁরা প্রধানত নির্মাণ শিল্পে কাজ করেন৷ তবে বাস্তবে সেখানে ৩০ হাজারের মতো বাংলাদেশি শ্রমিক আছেন৷

উল্লেখ্য, গত ১লা জুলাই আরো ২৭ জন বাংলাদেশি নিজ খরচে ইরাক থেকে দেশে ফিরে আসেন৷ যদিও বাংলাদেশ সরকার এর আগে সরকারি খরচে বাংলাদেশিদের ফেরত আনার কথা বলেছিল৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়