1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ইরাকে বোমা হামলায় নিহতের সংখ্যা বাড়ছে

ইরাকে শিয়া তীর্থযাত্রীদের উপর এক আত্মঘাতী হামলায় প্রাণ হারিয়েছে কমপক্ষে ২৫ জন, আহত শতাধিক৷ কারবালা অভিমুখে যাত্রারত লাখ লাখ শিয়া তীর্থযাত্রীর নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হিমশিম খাচ্ছে ইরাকের নিরাপত্তা বাহিনী৷

default

শুক্রবার কারবালায় ইমাম হুসেনের সমাধিকে কেন্দ্র করে জড়ো হবে বেশ কয়েক লাখ শিয়া মুসলমান (ফাইল ফটো)

দক্ষিণ ইরাকের কারবালা শহর অভিমুখে শিয়া তীর্থযাত্রীদের ভিড়ের মধ্যে বোমা হামলায় প্রাণ হারিয়েছে কমপক্ষে ২৫ জন, আহত হয়েছে কমপক্ষে ১১৫ জন৷ জার্মান বার্তা সংস্থা ডিপিএ জানিয়েছে, এক আত্মঘাতী হামলাকারী মোটর সাইকেল নিয়ে তীর্থযাত্রীদের ভিড়ের মধ্যে ঢুকে পড়ে এবং বিস্ফোরণ ঘটায়৷ নিহতদের মধ্যে এক নারীসহ তিন শিশু রয়েছেন৷

অবশ্য বার্তা সংস্থাগুলোর মধ্যে হামলার ধরণ নিয়ে দ্বিমত রয়েছে৷ ফরাসি বার্তাসংস্থা এএফপি ইরাকের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তার বরাত দিয়ে জানিয়েছে, বিস্ফোরকভর্তি একটি বাসে বিস্ফোরণ ঘটায় আত্মঘাতী হামলাকারী৷ অন্যদিকে, কারবালার মেয়রের দাবি, এটি ছিল গাড়ি বোমা হামলার ঘটনা৷

এদিকে, দক্ষিণ বাগদাদের আল-আমাল এলাকায় একটি শিয়া মসজিদের কাছে অপর এক বোমা হামলায় আহত হয়েছে তিনজন৷ পুলিশের বরাত দিয়ে ইরাকের সংবাদ সংস্থা আস-ওয়াত আল ইরাক জানিয়েছে এই খবর৷ ভুক্তভোগীরা তীর্থযাত্রার প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন বলে খবরে প্রকাশ৷

উল্লেখ্য ইমাম হুসেনের মৃত্যুদিনের ৪০ দিন পরে কারবালায় শোকপর্বের অন্ত পালন করা হয়৷ এবছর এই পর্বে যোগ দিতে পঞ্চাশ লাখেরও বেশি শিয়া তীর্থযাত্রী ইরাকের বিভিন্ন স্থান থেকে পায়ে হেঁটে কারবালা অভিমুখে যাত্রা করেছে৷ আগামী শুক্রবার কারবালায় ইমাম হুসেনের সমাধিকে কেন্দ্র করে এই পর্ব পালন করবে তারা৷

বলাবাহুল্য শিয়াদের এই বৃহৎ ধর্মীয় সমাবেশের নিরাপত্তা প্রদানে হিমশিম খাচ্ছে ইরাকের নিরাপত্তা বাহিনী৷ এজন্য প্রায় ত্রিশ হাজার সেনা এবং পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে৷ আকাশে চক্কর দিচ্ছে মার্কিন সামরিক হেলিকপ্টার৷ কিন্তু তারপরও হামলা ঠেকানো যাচ্ছে না৷ মঙ্গলবার ইরাকের কান্তারাত আল-সালাম এলাকায় শিয়া তীর্থযাত্রীদের লক্ষ্য করে চালানো বোমা হামলায় প্রাণ হারায় ২ জন, আহত হয় ১১ জন৷ সোমবার শিয়া তীর্থযাত্রীদের ভিড়ে চালানো অপর এক হামলায় নিহত হয় ৫৪ জন, আহত ১১৭ জন৷

তীর্থযাত্রীদের উপর চালানো সর্বশেষ হামলার দায় এখনো কেউ স্বীকার করেনি৷ তবে, ইরাকের রাষ্ট্রীয় টিভি চ্যানেলের বরাত দিয়ে বার্তাসংস্থা এপি জানায়, সুন্নি চরমপন্থীরা সম্ভবত এই হামলা চালিয়েছে৷ রয়টার্সের দাবি, আল-কায়েদা জঙ্গি গোষ্ঠী সবসময়েই শিয়াপন্থীদের সমাবেশে বোমা হামলার চেষ্টা করে থাকে৷ আর তাই এই হামলার পেছনে তাদের হাত থাকাও অসম্ভব নয়৷

প্রসঙ্গত, ইরাকের ক্ষমতাচ্যুত শাসক সাদ্দাম হোসেনের শাসনকালে শিয়া সম্প্রদায়ের এধরণের ধর্মীয় সমাবেশ নিষিদ্ধ ছিল৷ ২০০৩ সালে সাদ্দামের পতনের পর শিয়া গোষ্ঠী ইরাকে আবারো তাদের ধর্মীয় উৎসব উদযাপনের সুযোগ পায়৷

প্রতিবেদক: আরাফাতুল ইসলাম

সম্পাদনা: অরুণ শঙ্কর চৌধুরী

সংশ্লিষ্ট বিষয়