1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ইবোলার ভ্যাকসিন আবিষ্কারে আশার আলো

সাম্প্রতিক গবেষণার ফলাফলে মহামারি ইবোলার ভ্যাকসিন আবিষ্কারের পথে বেশ খানিকটা আশার আলো দেখছেন বিজ্ঞানীরা৷ শোনা যাচ্ছে, এই ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়তে পারে এমন এক অ্যান্টিবডি তৈরি করতে সক্ষম হয়েছেন তাঁরা৷

চূড়ান্ত ভ্যাকসিন তৈরিতে অবশ্য এখনো অনেকটা পথ পাড়ি দিতে হবে বলে মনে করছেন বিজ্ঞানীরা৷ প্রথম ধাপে ইবোলার ভ্যাকসিন তৈরিতে যেসব ফলাফল পাওয়া গেছে, তাতে খারাপ ধরনের কোনো পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি৷ এছাড়া যেসব ব্যক্তির উপর পরীক্ষা করা হয়েছে, চার সপ্তাহের মধ্যে তাঁদের ক্ষেত্রে ইতিবাচক প্রতিক্রিয়াই পাওয়া গেছে৷ সেপ্টেম্বরে এই পরীক্ষা শুরু হয় এবং ২০ জন প্রাপ্তবয়স্ক সুস্থ ব্যক্তির ওপর ঐ ভ্যাকসিন পরীক্ষা করা হয় বলে খবর৷ এঁদের মধ্যে কয়েকজনকে উচ্চ মাত্রার এবং কয়েক জনকে নিম্ন মাত্রার, অর্থাৎ লোয়ার ডোজ ভ্যাকসিন দেয়া হয়েছিল৷

পরীক্ষায় দেখা গেছে যাঁদের উচ্চমাত্রার ভ্যাকসিন দেয়া হয়েছিল, তাঁদের প্রতিরোধ ক্ষমতা অন্যদের চেয়ে বেশি৷ অর্থাৎ উচ্চ মাত্রার ডোজ গ্রহণকারীদের দেহে বেশি মাত্রায় অ্যান্টিবডি উৎপন্ন হয়েছে৷

এছাড়া কম মাত্রা গ্রহণকারী দুই ব্যক্তি এবং বেশি মাত্রা গ্রহণকারী সাত ব্যক্তির মধ্যে এমন এক ধরনের অ্যান্টিবডি উৎপন্ন হয়েছে, যাকে বলা হয় বিরল অ্যান্টিবডি, বিজ্ঞানের ভাষায় যা সিডি৮টি নামে পরিচিত৷ এ ধরনের অ্যান্টিবডির গুণ হলো, যে কোনো ধরনের রোগ প্রতিরোধের ক্ষমতা এদের অনেক বেশি৷

জানা গেছে, এই ভ্যাক্সিন গ্রহণের ফলে সৃষ্ট অ্যান্টিবডির লড়াই হবে ইবোলার জীনগত বৈশিষ্ট্যের উপর৷ অর্থাৎ এটি ইবোলা রোগীর জেনেটিক কোডকে ভেঙে দেবে৷ ফলে কারো দেহে ইবোলা প্রবেশ করলে সংক্রমিত হওয়ার আগেই অ্যান্টিবডিগুলো জেনেটিক কোডকে ভেঙে দুর্বল করে দেবে৷ বুধবার নিউ ইংল্যান্ড জার্নাল অফ মেডিসিনে এই ফলাফল প্রকাশিত হয়৷

যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ অ্যালার্জি অ্যান্ড ইনফেকশন ডিজিজেস বা এনআইএআইডি-র পরিচালক ড. অ্যান্থনি ফাওসি বলেন, ‘‘সবচেয়ে আশার বিষয় হলো যাঁদের ওপর এটা পরীক্ষা করা হয়েছে, তাঁদের দেহে বড় ধরনের কোনো পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া দেখা যায়নি৷ মাত্র দু'জনের ক্ষেত্রে ইনজেকশন দেয়ার ২৪ ঘণ্টা পর জ্বর এসেছিল৷''

তিনি জানান, চূড়ান্ত সাফল্যের জন্য এখনো অনেক কাজ করতে হবে৷ তবে আগামী বছরের শুরুতেই সাফল্যের সম্ভাবনা দেখছেন তিনি৷ তাঁর কথায়, আবারো নতুন একটি পরীক্ষা করা হবে এবং ৪৮ সপ্তাহ ধরে ভ্যাকসিন দেয়া ব্যক্তিদের পর্যবেক্ষণ করা হবে৷

মৃতের সংখ্যা

ইবোলা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে এ পর্যন্ত সাড়ে ৫ হাজারেরও বেশি মানুষ মারা গেছেন৷ এর মধ্যে অধিকাংশই পশ্চিম আফ্রিকার লাইবেরিয়া, গিনি ও সিয়েরা লিওনের বাসিন্দা ছিলেন৷

বলা বাহুল্য, ইবোলা শুধুমাত্র পশ্চিম আফ্রিকাতেই সীমাবদ্ধ নেই৷ ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হয়ে এরই মধ্যে আফ্রিকার বাইরেও কয়েকজন মারা গেছেন৷

এপিবি/ডিজি (এএফপি, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন