1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

ইবোলার বিরুদ্ধে সংগ্রাম দীর্ঘ হবে

মারাত্মক ইবোলা ভাইরাস আফ্রিকার পশ্চিমাঞ্চল সহ বিশ্বের অনেক প্রান্তে মাথাচাড়া দিচ্ছে৷ এর মোকাবিলা করতে চলছে নানা গবেষণা ও পরীক্ষা৷ দীর্ঘমেয়াদি ভিত্তিতে আশার আলো দেখা গেলেও এই মুহূর্তে মহামারি থামানোর ক্ষমতা মানুষের নেই৷

বাদুড়ই ইবোলা ভাইরাসের স্বাভাবিক বাহক৷ অথচ তাদের এতে কোনো ক্ষতি হয় না৷ কিন্তু যে সব মানুষ সংক্রমিত মাংস খায় তাদের রেহাই নেই৷ যেমন গিনির এই শিশুটি৷ এভাবেই সবকিছু শুরু হয়েছিল৷

৭৮ জন রোগীর রক্তে জিনোম পরীক্ষা করে মার্কিন গবেষকরা এই ভাইরাসের প্রসার সম্পর্কে আরও জানতে পেরেছেন৷ কী ভাবে ভাইরাসের সংক্রমণ ঘটে, তার পরিবর্তন ঘটে, কেন সেটি আগ্রাসী হয়ে ওঠে – এমন জিনোম বিশ্লেষণ প্রক্রিয়া তা বুঝতে সাহায্য করে৷ জার্মানির মারবুর্গ শহরের বিশ্ববিদ্যালয় ক্লিনিকের ভাইরোলজিস্টরাও তা জানতে চান৷

তাঁদের হাই-সিকিউরিটি ল্যাবে ছবি তোলার অনুমতি নেই৷গবেষকদের কাছে মূল প্রশ্ন হলো – এই ভাইরাস মানুষের প্রাণ নেয়, কিন্তু বাদুড়কে কেন রেহাই দেয়? ভাইরোলজিস্ট অধ্যাপক সিগফ্রিড বেকার বলেন, ‘‘দেখা যাচ্ছে, বাদুড়ের শরীরের ইমিউন সিস্টেম এই সংক্রমণ ভালোই সামলাতে পারে, মানুষ যা পারছে না৷ আমাদের বিশ্বাস, ইমিউনিটির জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ম্যাক্রোফেজ হোয়াইট ব্লাড সেল বাদুড় ও মানুষের এবোলা সংক্রমণের ক্ষেত্রে আলাদা আলাদা প্রতিক্রিয়া দেখায়৷''

কারণ ভাইরাস সবার আগে এই হোয়াইট ব্লাড সেলের উপর হামলা চালায়, যার ফলে মারাত্মক ‘চেন রি-অ্যায়কশন' ঘটে৷ ইমিউন সিস্টেম বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে, মাত্রাতিরিক্ত সেমিও-কেমিক্যালস তৈরি করে, যা আবার ব্লাড ভেসেল-এর উপর হামলা চালায়৷ তখন সেগুলি পাতলা হয়ে যায়, তরল ধরে রাখতে পারে না৷ ফলে ইন্দ্রীয়গুলি বিকল হয়ে পড়ে৷

বিজ্ঞানীদের সামনে অনেক অমীমাংসিত প্রশ্ন রয়েছে৷ যেমন কোষের মধ্যে কী ঘটে? ভাইরাস বংশবৃদ্ধি করতে সেগুলি কী ভাবে ব্যবহার করে? চিকিৎসার রূপরেখা খুঁজতে গবেষকরা এই সব প্রশ্নের উত্তর খুঁজছেন৷

তবে এর জন্য আরও সময় লাগবে৷ কয়েকটি টিকা নিয়ে অবশ্য আশার আলো দেখা যাচ্ছে৷ অধ্যাপক বেকার বলেন, ‘‘বানরের ক্ষেত্রে তা ভালোই কাজ করেছে এবং একশো ভাগ সুরক্ষা দিয়েছে৷ মানুষের ক্ষেত্রেও সেটা হুবহু ঘটবে কি না, আমরা তা এখনো জানি না৷ দুটি টিকা নিয়েই পরীক্ষার পরিকল্পনা রয়েছে৷ তবে অনেক দেরি হয়ে গেছে৷ এই ক্লিনিকাল স্টাডি আগেই শুরু করা উচিত ছিল৷''

বর্তমান মহামারির শেষ এখনো দেখা যাচ্ছে না৷ আরও অনেক মানুষ এই ভাইরাসের শিকার হবেন৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক