1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ইবোলার কবল থেকে ফিরে আসার পর...

লাইবেরিয়ায় মিশনারি হিসেবে কাজ করার সময় ইবোলা বা এবোলা রোগে আক্রান্ত হন ন্যান্সি রাইটবোল৷ বিমানযোগে যুক্তরাষ্ট্রে নিয়ে গিয়ে পরীক্ষামূলক জিম্যাপ ওষুধটি দিয়ে তাঁর চিকিৎসা করা হয়৷ ডিডাব্লিউ-কে সে কাহিনিই শোনালেন ন্যান্সি৷

ডয়চে ভেলে: লাইবেরিয়ায় প্রথম যখন অসুস্থ বোধ করেন, তখন আপনার কী অনুভূতি হয়েছিল?

ন্যান্সি রাইটবোল: প্রথমে মনে হয়েছিল যেন ম্যালেরিয়া৷ আসলে খুব জ্বর হয়েছিল, আর কোনো লক্ষণ ছিল না৷ ম্যালেরিয়ার টেস্ট করাতে দেখা গেল, পজিটিভ৷ কাজেই আমি বাড়ি গিয়ে ম্যালেরিয়ার ওষুধ খেতে শুরু করি৷ চার দিন বাড়িতেই ছিলাম, নড়াচড়া করিনি, ওষুধ খেয়েছি৷ কিন্তু অবস্থা যা ছিল, তা-ই রয়ে গেছে৷ তখন আমাদের ডাক্তার বলেন, ‘‘ন্যান্সি, আমি তোমার ইবোলা টেস্ট করাতে চাই৷ তোমার ইবোলা হয়েছে বলে আমার মনে হয় না, কেননা তোমার অন্য কোনো লক্ষণ নেই৷ কিন্তু ইবোলা টেস্ট করালে আমাদের সকলেরই মন শান্ত হবে৷'' ডাক্তার টেস্ট করালেন – বিকেলবেলা তার রেজাল্ট এলো: পজিটিভ৷

আপনার অবস্থা ক্রমেই আরো খারাপের দিকে যায়৷ আপনার কি পুরোটা সময় জ্ঞান ছিল?

সবসময়ে নয়, তবে মাঝেমধ্যে৷ আমার স্বামী ডেভিড বলেন, কোনো কোনোদিন আমি উঠে বসে ওর সঙ্গে কথা বলেছিল, হয়ত কিছু খেয়েছিও৷ কিছু কিছু আমার মনে আছে – আবার অনেকটাই মনে নেই৷ অনেকটা সময় ঘুমিয়েছি, বলে আমার মনে আছে – আর মনে আছে, দিনগুলো কী রকম মেঘলা আর বৃষ্টিবাদল ছিল৷ আমি খুবই দুর্বল ছিলাম৷ একা উঠে দাঁড়াতে পারতাম না, ডাক্তার কিংবা নার্সদের সাহায্য নিতে হতো৷ দিন দিন যেন আরো দুর্বল হয়ে পড়ছিলাম৷ খুব খারাপ সময় গেছে৷

আপনার চিকিৎসার অঙ্গ হিসেবে আপনাকে জিম্যাপ সেরাম দেওয়া হয়৷ মাত্র ছ'জন রোগীকে এই ওষুধটি দেওয়া হয়েছে৷ আপনার কি তার ফলে কোনো সমস্যা হয়েছিল?

সে সময়ে নয়৷ ওটা একটি পরীক্ষামূলক ওষুধ হওয়ার কারণে আমরা ভেবেছিলাম, ‘‘আমি কি সত্যিই ঐ ওষুধটা নেব?'' কোনো এক সময় আমি ড. কেন্ট ব্র্যান্টলিকে টেলিফোন করি (ব্র্যান্টলি ন্যান্সির এক সহকর্মী, যিনি অনুরূপভাবে ইবোলা ভাইরাসে সংক্রমিত হন; ব্র্যান্টলি জেডম্যাপ সেরামটি পরীক্ষা করেছিলেন)৷ আমি তাঁকে জিগ্যেস করি: ‘‘তুমি কি ঐ ওষুধটা নিয়েছ?'' উনি বলেন, ‘‘আমি সেটা করব কিনা, সে বিষয়ে আমি নিশ্চিত নই৷'' তখন আমি তাঁকে বলি, ‘‘তুমি না নিলে, আমিও নেবো না৷'' (পরে ন্যান্সি অনেক দোনামোনা করার পর ওষুধটা নিতে মনোস্থির করেন)৷

আপনাকে একটি বেসরকারি বিমানে করে যুক্তরাষ্ট্রে নিয়ে যাওয়া হয়, অ্যাটলান্টার এমোরি হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য৷ বিমানযাত্রার কোনো খুঁটিনাটি আপনার মনে আছে?

আমাকে যখন বিমানে তোলা হয় আর ডেভিডের কাছ থেকে বিদায় নিতে হয়, তখন মনে হয়েছিল: আর কি কখনো ওর সঙ্গে দেখা হবে?...যে সব ডাক্তার আর নার্স উড়ালের সময় আমার দেখাশোনা করেছিলেন, তাদের কথা মনে আছে৷...উড়ালের সময় আমার সারাক্ষণ ভীষণ তেষ্টা পাচ্ছিল, কেন না আমি পুরোপুরি ‘ডিহাইড্রেটেড' হয়ে গেছিলাম৷...উড়ালের সময় আমি সবসময় সজ্ঞানে ছিলাম বলে আমার মনে হয় না৷

সুস্থ হয়ে ওঠার কথা নিশ্চয় মনে আছে?

আমার সেই দিনটা মনে আছে, ডাক্তাররা যেদিন ঘরে ঢুকে বলেন: ‘‘ন্যান্সি, তোমার বিপদ কেটেছে৷ তুমি বেঁচে যাবে৷''...আমি শুধু বলি: ‘‘প্রভুর কৃপা৷''....মনে আছে, আমার নাতিকে কোলে নিতে পেরে আমার কী রকম আনন্দ হয়েছিল৷

ন্যান্সি রাইটবোল সার্ভিং ইন মিশননামের একটি খ্রিষ্টীয় সংগঠনের হয়ে লাইবেরিয়ার রাজধানী মনরোভিয়ার একটি ইবোলা কেন্দ্রে কাজ করছিলেন৷ ৫৯ বছর বয়সি নার্স ন্যান্সির আদিবাস মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নর্থ ক্যারোলাইনা প্রদেশে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন