1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ইন্দোনেশিয়ায় বাশির আবারো গ্রেপ্তার

এ নিয়ে তৃতীয় দফা আটক হলেন ইন্দোনেশিয়ার কট্টর মুসলিম নেতা আবু বকর বাশির৷ পুলিশের কথায়, তিনি প্রেসিডেন্ট সুসিলো বামব্যাং ইয়োধোনোকে হত্যার ষড়যন্ত্র করছিলেন৷ যদিও তাঁর গ্রেপ্তারের পেছনে যুক্তরাষ্ট্রের হাত রয়েছে, বলছেন বাশির৷

default

কট্টর মুসলিম নেতা আবু বকর বাশির

পর্যটন কেন্দ্র বালি দ্বীপে ২০০২ সালে বোমা হামলার পর গ্রেপ্তার করা হয় বাশিরকে৷ তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়, বোমা হামলা চালিয়ে ২০২ জনকে হত্যার পরিকল্পনায় জড়িত ছিলেন তিনি৷ কিন্তু আদালতে তা প্রমাণ করা যায়নি৷ ২৬ মাস জেল খেটে মুক্তি পান বাশির৷ ২০০৪ সালে মুক্তির পরপরই ফের তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়৷ সেবার সন্ত্রাস দমন আইনে৷ অপরাধ প্রমাণ করতে না পারায় আবারো মুক্তি পান তিনি৷ সর্বশেষ গ্রেপ্তার হলেন আজ সোমবার৷

বাশিরের আইনজীবী আসমাদ মিশদান সাংবাদিকদের বলেন, পশ্চিম জাভার সিয়ামিস জেলা থেকে সকালে বাশিরকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে৷ একটি সভায় বক্তৃতা দিতে তিনি সেখানে গিয়েছিলেন৷ ফেরার পথে পুলিশের সন্ত্রাস দমন ইউনিট তাঁকে তুলে নিয়ে যায়৷ বাশিরের বিরুদ্ধে কী অভিযোগ আনা হয়েছে, তা আইনজীবী আসমাদ নিশ্চিত করতে পারেননি৷ তবে পুলিশ জানিয়েছে, সন্ত্রাসী হামলার পরিকল্পনায় জড়িত থাকাই বাশিরকে গ্রেপ্তারের কারণ৷ প্রেসিডেন্ট ইয়োধোনোকে হত্যার জন্য জঙ্গিরা পরিকল্পনা আঁটছিল৷ আর এর সঙ্গে জড়িত ছিলেন বাশির৷ পুলিশের তৎপরতায় নাশকতার পরিকল্পনা ব্যর্থ হয়৷

ইন্দোনেশিয়া পুলিশের মুখপাত্র এডওয়ার্ড আরিতোনাং সাংবাদিকদের বলেন, ‘‘আচেহ প্রদেশে জঙ্গি প্রশিক্ষণ শিবির চালুর পরিকল্পনায় জড়িত ছিলেন বাশির৷ সেখানে দুলমতিনকে নিয়োগ দিয়েছিলেন তিনিই৷''

Indonesien Prozess Abu Bakar Bashir

‘অ্যামেরিকার নির্দেশে আমাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে৷ এটা একটা ষড়যন্ত্র’ : বাশির

সন্দেহভাজন জঙ্গি কমান্ডার দুলমতিন গত মার্চ মাসে পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে দুই সঙ্গীসহ নিহত হন৷ তখন উচ্ছেদ করা হয় ওই জঙ্গি শিবির৷ পুলিশ বলছে, বাশির ওই প্রশিক্ষণ শিবিরের বিষয়ে সব জানতেন৷ তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ করলেই জানা যাবে সব তথ্য৷

এদিকে, বাশিরকে গ্রেপ্তারের পর নিয়ে যাওয়া হয়েছে রাজধানী জাকার্তায়৷ সেখানে পুলিশ সদর দপ্তরে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, ইসলামের কথা বলাতেই তিনি হয়রানির শিকার হচ্ছেন৷ ৭১ বছর বয়সি বাশির বলেন, ‘‘অ্যামেরিকার নির্দেশে আমাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে৷ এটা একটা ষড়যন্ত্র৷'' সন্দেহ করা হয়, জঙ্গি সংগঠন জামেয়া আনসার-উত তাওহিদ বাশিরের নেতৃত্বেই চলে৷ তবে তাঁর পক্ষে যথেষ্ট তথ্য-প্রমাণ কখনোই আদালতে তুলে ধরতে পারেনি পুলিশ৷ আর বাশিরও সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগ অস্বীকার করে আসছেন৷

জামেয়া ইসলামিয়ায়ই বালি দ্বীপে বোমা হামলা চালিয়েছিল বলে অভিযোগ৷ যাতে নিহতদের বেশিরভাগই ছিল বিদেশি৷ গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর আশঙ্কা, বড় ধরনের আরেকটি হামলার পরিকল্পনা নিচ্ছে জঙ্গিরা৷ পুলিশ, হোটেল এবং বিদেশি মিশনগুলো তাদের এবারের হামলার লক্ষ্যবস্তু৷ তা বানচালের উদ্দেশ্য কিছুদিন ধরে বেশ তৎপর পুলিশ৷ বাশিরকে গ্রেপ্তারের আগে পশ্চিম জাভা থেকে সন্দেহভাজন আরো পাঁচ জঙ্গিকে গ্রেপ্তার করা হয়৷ সব মিলিয়ে এই বছর মোট গ্রেপ্তার হয়েছে শতাধিক জঙ্গি৷

প্রতিবেদন: মনিরুল ইসলাম

সম্পাদনা: দেবারতি গুহ