1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ইন্দোনেশিয়ার কুখ্যাত সন্ত্রাসবাদী দুলমাতিন নিহত

২০০২ সালে ইন্দোনেশিয়ার বালি দ্বীপে ভয়াবহ সন্ত্রাসী হামলার শিকার হয়েছিলেন ২০০-রও বেশী মানুষ৷ সেই হামলা এবং নানা সন্ত্রাসী কার্যকলাপের মূল অভিযুক্ত দুলমাতিনকে ইন্দোনেশিয়ার পুলিশ বুধবার গুলি করে হত্যা করেছে৷

default

নিহত দুলমাতিন (ফাইল চিত্র)

অভিযানের গুরুত্ব

বুধবার ইন্দোনেশিয়ার রাজধানী জাকার্তার উপকণ্ঠে এক ইন্টারনেট কাফেতে বসে দুলমাতিন সবে নিজের ই-মেল অ্যাকাউন্টে লগ ইন করেছিল৷ সঙ্গে সঙ্গেই ইন্দোনেশিয়ার সন্ত্রাসবাদ দমন ইউনিট ‘ডিটাচমেন্ট ৮৮'এর বিশেষ প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত সদস্যরা তাকে আটক করার চেষ্টা শুরু করে৷ সেই ইন্টারনেট কাফে ও কাছের একটি বাড়িতে দুলমাতিনের সঙ্গীদের সঙ্গে নিরাপত্তা বাহিনীর সংঘর্ষ শুরু হয়৷ দুলমাতিন তাদের দিকে লক্ষ্য করে গুলি ছুঁড়তে থাকে৷ নিরাপত্তা বাহিনীর পাল্টা গুলিতে দুলমাতিন ও ২ উগ্রবাদী সঙ্গী পুলিশের গুলিতে নিহত হয়৷ তারা দুলমাতিনের দেহরক্ষী ছিল বলে পুলিশ দাবি করেছে৷ দুলমাতিনের পরিচয় সম্পর্কে সম্পূর্ণ নিশ্চিত হতে তার মৃতদেহের উপর দ্রুত ডিএনএ পরীক্ষা চালানো হয়৷ ঘটনাস্থলে রিমোট কন্ট্রোল সহ যেসব বস্তু পাওয়া গেছে, তার ভিত্তিতে পুলিশ সন্দেহ করছে, যে সে কোন হামলার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত ছিল৷

Anschlag in Bali

বালি’র হামলায় নিহত হয়েছিলেন ২০০রও বেশী মানুষ

আন্তর্জাতিক তাৎপর্য

দুলমাতিনের মৃত্যুর দিনটি একাধিক কারণে বেশ গুরুত্ব পাচ্ছে৷ বালি'র সন্ত্রাসী হামলায় মৃতদের মধ্যে বেশীরভাগই ছিলেন অস্ট্রেলিয়ার পর্যটক৷ অস্ট্রেলিয়া সফর চলাকালীন বুধবারই ইন্দোনেশিয়ার প্রেসিডেন্ট সুসিলো বামবাং ইয়োদোইনো স্বয়ং সেদেশের সংসদে ভাষণ দেওয়ার সময় দুলমাতিন'এর মৃত্যুসংবাদ ঘোষণা করেন৷

এদিকে আগামী ২০ থেকে ২২শে মার্চ ইন্দোনেশিয়া সফরে আসছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা৷ উগ্রবাদ দমনে এই উল্লেখযোগ্য সাফল্য ওয়াশিংটনের কাছেও ইন্দোনেশিয়ার সরকারের গুরুত্ব আরও বাড়িয়ে তুলবে বলে ধরে নেওয়া হচ্ছে৷ অন্যদিকে দুলমাতিনের মতো উগ্রবাদীরা যেভাবে আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবাদ নেটওয়ার্কের অংশ হিসেবে আদৌ ইন্দোনেশিয়ায় মাথা চাড়া দিতে সক্ষম হচ্ছে, সেই বিষয়টিও বড় দুশ্চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়াচ্ছে৷

ইন্দোনেশিয়ার সাফল্য

কিন্তু ইন্দোনেশিয়ায় উগ্র ইসলামপন্থীদের বিরুদ্ধে সরকার ও প্রশাসনের অভিযানে একের পর এক সাফল্য দেখা যাচ্ছে৷ বালি'র হামলার পর ইন্দোনেশিয়ার নিরাপত্তা বাহিনী উগ্রবাদী সন্দেহে প্রায় ৪৪০ জনকে হয় আটক বা হত্যা করেছে৷ গত বছর নূর উদ্দিন মহম্মদ টপ'কে হত্যা করে ইন্দোনেশিয়ার পুলিশ গুরুত্বপূর্ণ এক সাফল্য পেয়েছিল৷ দুলমাতিন'এর গতিবিধির উপর দীর্ঘদিন নজর রেখে বুধবার নিরাপত্তা বাহিনী অবশেষে তাকে হাতের কাছে পায়৷ মার্কিন প্রশাসন তার মাথার দাম ঘোষণা করেছিল ১ কোটি ডলার৷

Noordin Top

কুখ্যাত সন্ত্রাসবাদী নূর উদ্দিন মহম্মদ টপ

উগ্রবাদীদের কার্যকলাপ

আফগানিস্তানে আল কায়দার প্রশিক্ষণ পেয়েছিল দুলমাতিন৷ ইলেকট্রনিক্স বিশেষজ্ঞ হিসেবে সে বোমা তৈরির কাজে বিশেষ পারদর্শিতা অর্জন করেছিল৷ দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার উগ্র ইসলামপন্থী সংগঠন ‘জেমা ইসলামিয়া'র হয়ে সে কাজ করত বলে পুলিশের অভিযোগ রয়েছে৷ ২০০২ সালে বালি'তে সন্ত্রাসী হামলার বিস্ফোরকের ব্যবস্থা সেই করেছিল৷ তারপর বেগতিক দেখে ২০০৩ সালে সে ফিলিপাইন্সের দক্ষিণে পালিয়ে যায়৷ সেখানে আল কায়দার অঙ্গ সংগঠন ‘আবু সাইয়াফ' গোষ্ঠীর সঙ্গে দুলমাতিন কাজ করছিল বলে সন্দেহ করা হয়৷ ফিলিপাইন্সের নিরাপত্তা বাহিনীর অভিযান এড়িয়ে পালানোর সময় সে আহত হয়েছিল বলে জানা গেছে৷ ইন্দোনেশিয়ার আচে দ্বীপকে ভিত্তি করে দুলমাতিন গোটা অঞ্চলের জন্য এক জঙ্গি নেটওয়ার্ক গড়ে তোলার চেষ্টা করছিল বলে দাবি করেছেন, আচে'র গভর্নর ইরওয়ান্দি ইউসুফ৷

প্রতিবেদন: সঞ্জীব বর্মন, সম্পাদনা: দেবারতি গুহ

সংশ্লিষ্ট বিষয়