1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

জার্মানি

ইনচিরলিক থেকে সৈন্য সরাতে চলেছে জার্মানি

তুরস্ক জার্মান সাংসদদের ইনচিরলিকে আসতে দিতে অস্বীকার করার পর পররাষ্ট্রমন্ত্রী জিগমার গাব্রিয়েল জার্মান সেনাদের অন্যত্র সরিয়ে নেয়ার কথা বলেছেন৷ প্রতিরক্ষামন্ত্রী ফন ডেয়ার লাইয়েনের মতে সৈন্যদের জর্ডানে সরিয়ে নেয়া হতে পারে৷

সোমবার তুর্কি পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেভলুত চোভুশোলো বলেন যে, তুরস্ক পূর্বাপর জার্মান সাংসদদের ইনচিরলিক সামরিক ঘাঁটিতে নিয়োজিত জার্মান সৈন্যদের পরিদর্শন করতে দেবে না৷ ‘‘বর্তমানে কোনিয়ার ন্যাটো ঘাঁটি পরিদর্শন করা সম্ভব, কিন্তু ইনচিরলিক নয়,'' সোমবার আংকারায় গাব্রিয়েলের সঙ্গে যৌথ সাংবাদিক সম্মেলনে বলেন চোভুশোলো৷

সোমবারই জার্মান প্রতিরক্ষামন্ত্রী উর্সুলা ফন ডেয়ার লাইয়েন জানান, জার্মান সৈন্যদের ইনচিরলিক থেকে জর্ডানের একটি ঘাঁটিতে সরিয়ে নেওয়া হবে৷ ‘‘আমাদের সাংসদরা যে আমাদের সৈন্যদের সঙ্গে দেখা করতে পারবেন না, তা গ্রহণযোগ্য নয়,'' বলেন ফন ডেয়ার লাইয়েন৷ ‘‘আমরা স্থান বদল করতে প্রস্তুত,'' বলে ঘোষণা করেন তিনি এবং যোগ করেন যে, জর্ডানের আজরাক বিমানঘাঁটিকে একটি ‘তুলনীয় বিকল্প' হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে ও রাজা আবদুল্লাহ এই স্থানান্তর সমর্থন করেছেন৷

জার্মান মন্ত্রিসভা বুধবার বিষয়টি নিয়ে ‘‘আলোচনা করবে ও সিদ্ধান্ত নেবে'', বলেও ফন ডেয়ার লাইয়েন জানান৷ ‘‘ইসলামিক স্টেটের বিরুদ্ধে যুদ্ধে ইনচিরলিক ভালো একটি বিমানঘাঁটি, কিন্তু সৈন্যদের সঙ্গে দেখা করতে না পারাটা আমাদের পক্ষে মেনে নেওয়া সম্ভব নয়,'' বলেন তিনি৷

ইনচিরলিকে জার্মান সেনাবাহিনীর ২৫০ জনের বেশি সদস্য নিয়োজিত৷ তাঁদের কাজ হলো সিরিয়ার আকাশে টর্নে জঙ্গিবিমান থেকে ভূ-পৃষ্ঠের গতিবিধি পর্যবেক্ষণ ও ইসলামিক স্টেটের বিরুদ্ধে যুদ্ধে সহযোগী দেশগুলির বিমানে উড়ন্ত অবস্থাতেই তেল ভরার ব্যবস্থা করা৷

সংশ্লিষ্ট তুর্কি সৈন্য ও সেনাবাহিনীর সদস্যরা গতবছর তুরস্কে ব্যর্থ সামরিক অভ্যুত্থানের সঙ্গে যুক্ত ছিল বলে আংকারার অভিযোগ

সংশ্লিষ্ট তুর্কি সৈন্য ও সেনা সদস্যরা তুরস্কে ব্যর্থ সামরিক অভ্যুত্থানের সঙ্গে যুক্ত ছিল বলে আংকারার অভিযোগ

আংকারা সৈন্য পরিদর্শন রুখল কেন?

গতমাসে আংকারা দ্বিতীয়বার জার্মান সংসদের একটি প্রতিনিধিদলকে ইনচিরলিকে যেতে দেয়নি৷ তুর্কি কর্মকর্তাদের বিবৃতি অনুযায়ী, জার্মানি যে তুর্কি সেনাবাহিনীর সদস্যদের রাজনৈতিক আশ্রয় দিয়েছে, তুরস্কের এই সিদ্ধান্ত তারই প্রতিক্রিয়া৷ সংশ্লিষ্ট তুর্কি সৈন্য ও সেনাবাহিনীর সদস্যরা গতবছর তুরস্কে ব্যর্থ সামরিক অভ্যুত্থানের সঙ্গে যুক্ত ছিল বলে আংকারার অভিযোগ৷

‘‘জার্মানি যদি আমাদের দিকে এক পা এগোয়, তো আমরা (জার্মানির দিকে) দু' পা এগোব,'' বলে চোভুশোলু মন্তব্য করেছেন৷ ‘‘‘ফেটো' (তুর্কি পরিভাষায় যুক্তরাষ্ট্র নিবাসী ফেহতু্ল্লাহ গুলেনের ‘সন্ত্রাসী সংগঠন') সদস্যরা যে বন্ধুদেশ জার্মানিতে আশ্রয় নিচ্ছে, তা আমরা দেখতে চাই না,'' বলেন চাভুশোলু৷

জার্মান পররাষ্ট্রমন্ত্রী সিগমার গাব্রিয়েল চাভুসোগলুর সঙ্গে যুগ্ম সাংবাদিক সম্মেলনেই বলেন যে, বস্তুত তুরস্কের এই সিদ্ধান্তের অর্থ, বার্লিন সরকারকে ইনচিরলিক বিমানঘাঁটি থেকে জার্মান সেনাবাহিনীর সদস্যদের সরিয়ে নিতে হবে৷

‘‘তুরস্ক স্পষ্ট করে দিয়েছে যে, অভ্যন্তরীণ কারণে তুরস্কের পক্ষে সব (জার্মান) সাংসদদের (সৈন্য) পরিদর্শন অনুমোদন করা সম্ভব নয়৷ আমি তা'তে দুঃখ বোধ করছি, কিন্তু তুরস্ককেও বুঝতে হবে যে, অভ্যন্তরীণ রাজনৈতিক কারণে আমাদের জার্মান সৈন্যদের ইনচিরলিক থেকে সরিয়ে নিতে হবে৷ এই পরিস্থিতিতে জার্মান সংসদ সরকারকে ইনচিরলিকের জার্মান সৈন্যদের জন্য অন্য কোনো অবস্থানের সন্ধান করতে বলবে,'' বলে গাব্রিয়েল মন্তব্য করেন৷ 

জার্মান পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে সিগমার গাব্রিয়েলের প্রথম তুরস্ক সফরটি ছিল ইনচিরলিকে জার্মান সৈন্যদের পরিদর্শন সংক্রান্ত বিরোধ নিষ্পত্তির শেষ প্রচেষ্টা৷ সেই প্রচেষ্টা স্পষ্টত ও প্রকাশ্যভাবে ব্যর্থ হবার পর ডয়চে ভেলের সাবিন কিনকার্ৎসের মতো অনেক বিশ্লেষকই রাজনৈতিক ফলশ্রুতি দাবি করছেন৷

তাঁদের মতে, এর্দোয়ান অনেকদিন ধরেই জার্মানিকে ল্যাজে খেলাচ্ছেন, কখনো গরম, কখনো নরম পদ্ধতিতে তাঁর নিজের ও তুরস্কের স্বার্থ হাঁসিল করার চেষ্টা করছেন৷ ইউরোপ অভিমুখে উদ্বাস্তুদের স্রোত রোখা বা জার্মান সাংসদদের ইনচিরলিকে যেতে না দেওয়া– এ সবই এর্দোয়ানের দাবার চাল৷ এই ‘‘ব্ল্যাকমেলের'' কাছে নতিস্বীকার করার কোনো মানে হয় না৷ বার্লিনকে এখন শক্ত ও সক্রিয় হতে হবে বলে পর্যবেক্ষকরা মনে করেন৷

এসি/এসিবি (ডিপিএ, এএফপি, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়