1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

ইতিবাচক সিদ্ধান্তের মধ্যে শেষ হলো জলবায়ু সম্মেলন

ওয়ারশ জলবায়ু সম্মেলনের শেষ দিনে এমন এক চুক্তি হলো, যা উন্নয়নশীল দেশগুলোর জন্য ইতিবাচক৷ বনভূমি রক্ষায় উন্নয়নশীল দেশগুলোকে অর্থ দিতে রাজি হলেন বিশ্ব প্রতিনিধিরা৷ তাই চুক্তিটি সত্যিই এক মাইলফলক৷

প্রাকৃতিক দুর্যোগের ফলে ক্ষতিগ্রস্ত দেশগুলোকে ক্ষতিপূরণ এবং দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা নিয়ে বিশ্ব নেতারা নতুন একটা চুক্তিতে পৌঁছাবেন – এমনই লক্ষ্য ছিল জাতিসংঘ জলবায়ু সম্মেলনে যোগ দেয়া প্রতিনিধিদের৷ কিন্তু এতটা না হলেও বন উজাড় রোধে একটি চুক্তিতে পৌঁছাতে সমর্থ হয়েছেন প্রতিনিধিরা৷ এজন্য উন্নয়নশীল দেশগুলোর সরকার ও সংস্থাগুলোকে অর্থ সহায়তা দেয়া হবে৷ কেননা বনভূমিকে ধ্বংসের হাত থেকে রক্ষা করা গেলে কমবে কার্বন নিঃসরণ, কমবে বৈশ্বিক উষ্ণতাও৷

এই চুক্তিকে একটি মাইলফলক হিসেবে দেখছেন ব্রিটিশ জ্বালানিমন্ত্রী এড ডেভি৷ এই নতুন চুক্তি অনুযায়ী,ত গ্রিন ক্লাইমেট তহবিল বিভিন্ন প্রকল্পে সহায়তা করবে৷ কার্বন নিঃসরণ রোধে দ্বিপাক্ষিক চুক্তি হিসেবে এরই মধ্যে নরওয়ে সরকার ব্রাজিল, গণপ্রজাতন্ত্রী কঙ্গো এবং ইন্দোনেশিয়াকে ১.৪ বিলিয়ন মার্কিন ডলার দিয়েছে৷

বৈশ্বিক তাপমাত্রা ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস কমাতে বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়ে বুধবার সম্মেলনে আলোচনা হয় রাতভর৷ কিন্তু কোনো চুক্তি না হওয়ায় ১৩টি বেসরকারি পরিবেশ সংগঠনের ৮০০ প্রতিনিধি সম্মেলন থেকে বেরিয়ে যান৷ অক্সফাম ইন্টারন্যাশনালের নির্বাহী পরিচালক উইনি বাইআনইমা আইপিএস-কে বলেছেন, তাঁরা আলোচনা থেকে বেরিয়ে গেছেন কারণ গুরুত্বপূর্ণ ইস্যুগুলো নিয়ে সেখানে কোন আলোচনাই হয়নি৷ তাঁদের মতে, ১১ নভেম্বর শুরু হওয়া এই সম্মেলনে গত কয়েকদিনে আলোচনায় কোনো অগ্রগতিই হয়নি৷

সম্মেলনে ১৯৫টি দেশের প্রতিনিধিরা অংশ নিয়েছিলেন৷ কয়লা, তেল ও গ্যাস পুড়িয়ে কার্বন নির্গমন ২০১৫ সালের মধ্যে কমিয়ে বৈশ্বিক উষ্ণতা কমানোর লক্ষ্যেই জাতিসংঘের এই সম্মেলনে আলোচনা হয়৷

বর্তমানে যে হারে কার্বন নিঃসরণ হচ্ছে তাতে খুব শিগগিরই বৈশ্বিক তাপমাত্রা চার ডিগ্রি সেলসিয়াস বেড়ে যেতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন বিজ্ঞানীরা৷ বলছেন, এর ফলে ঝড়, খরা, বন্যা-র মত প্রাকৃতিক দুর্যোগ যেমন বেড়ে যাবে, তেমনি অনেক বেড়ে যাবে সাগরের পানির উচ্চতা৷

সম্মেলনে গ্রিনহাউস গ্যাস নির্গমনের ব্যাপারে উন্নত ও উন্নয়নশীল দেশগুলো কোনো সমঝোতায় পৌঁছাতে পারেনি৷ উন্নয়নশীল দেশগুলোর দাবি, উন্নত দেশগুলোকে বেশি পরিমাণে কার্বন নিঃসরণ কমাতে হবে৷ চীন বর্তমান বিশ্বে সবচেয়ে বেশি পরিমাণে কার্বন নিঃসরণ করে৷ এরপর যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপের দেশগুলো রয়েছে, আর ভারতের অবস্থান চতুর্থ৷

অর্থনৈতিক মন্দা মোকাবিলার জন্য উন্নত দেশগুলো তাদের শিল্প-কারখানার উৎপাদন বাড়াতে আগ্রহী, যে কারণে বাড়ছে কার্বন নির্গমন৷ আলোচনায় ২০২০ সালের মধ্যে কার্বন নিঃসরণের জন্য উন্নত দেশগুলোর প্রতি একটি লক্ষ্যমাত্রা ঠিক করার কথা ছিল৷ কিন্তু যুক্তরাষ্ট্র জানিয়েছে, এ ব্যাপারে ২০১৫ সালের প্রথম দিকে তাদের পরিকল্পনা জানাবে৷

সম্মেলনের শেষ দিন একটি খসড়া প্রস্তাব ইস্যু করা হয়, যেখানে ২০১৪ সালের ডিসেম্বর মাসে পেরুর রাজধানী লিমায় জলবায়ু সম্মেলনে কি কি বিষয় নিয়ে আলোচনা হবে তা ঠিক করা হয়েছে৷

এপিবি/ডিজি (এএফপি, রয়টার্স, আইপিএস)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়