1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ইডোমেনি শরণার্থী ক্যাম্প খালি করছে গ্রিক পুলিশ

মেসিডোনিয়া সীমান্তের কাছে ইডোমেনি শরণার্থী ক্যাম্প খালি করতে শুরু করেছে গ্রিস পুলিশ৷ সেদেশের কর্তৃপক্ষ পুরো এলাকা ঘিরে রেখেছে এবং ক্যাম্পের মধ্যে কয়েকশ' দাঙ্গা পুলিশ পাঠিয়েছে৷

গ্রিক পুলিশ মঙ্গলবার জানিয়েছে, ইডোমেনি ক্যাম্পের ৮ হাজার ৪০০-র মতো শরণার্থীকে সরিয়ে নিচ্ছে তারা৷ এজন্য পুলিশের অপারেশনে ব্যবহার করা হচ্ছে ৪০০ পুলিশ সদস্য এবং একটি হেলিকপ্টার৷ সরকারের মুখপাত্র গিয়র্গস ক্রিটসিস জানিয়েছেন, শরণার্থীদের সরিয়ে নিতে পুলিশ কোনো শক্তি প্রয়োগ করবে না৷ আর পুরো প্রক্রিয়া শেষ হতে সপ্তাহখানেক লাগবে৷

ভিডিও দেখুন 00:42

বার্তাসংস্থা রয়টার্সকে ক্রিটসিস বলেন, ‘‘যারা তাদের ব্যাগ গুছিয়ে নিয়েছে তারা চলে যাবে, কেননা, আমরা এই ইস্যুর ইতি টানতে চাচ্ছি৷ যদিও আমরা নির্দিষ্ট কোনো দিন-তারিখ বলছি না, তবে মোটামুটি সপ্তাহখানেকের মধ্যে ক্যাম্প খালি করা হবে৷''

ইডোমেনিতে থাকা ডয়চে ভেলের প্রতিবেদক অলিভার সালেট এবং মারিয়ানা কারাকুলাকি জানিয়েছেন, পুলিশ পুরো এলাকা সিল করে ফেলেছে এবং সাংবাদিকদের চলে যেতে বলেছে৷

স্থানীয় কর্তৃপক্ষ বলছে, ক্যাম্পে থাকা শরণার্থীদের সরিয়ে নতুন নির্মিত একটি ক্যাম্পে নেয়া হচ্ছে, যেটা গ্রিসের দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর থেসালেনিকির কাছে অবস্থিত৷

সীমান্তে আটকে থাকা শরণার্থীরা

চলতি বছরের শুরুর দিকে মেসিডোনিয়া সীমান্ত বন্ধ করে দিলে ইডোমেনিতে শরণার্থীদের ভিড় বাড়তে থাকে৷ বিশেষ করে যারা জার্মানি এবং সুইডেনসহ ইউরোপের অপেক্ষাকৃত ধনী দেশগুলোতে যেতে চাচ্ছিলেন তারা সীমান্ত বন্ধ থাকায় ইডোমেনিতে আটকে পড়েন৷

সীমান্ত বন্ধ হওয়ার আগ পর্যন্ত প্রায় দশ লাখ অভিবাসী দেশটি হয়ে ইউরোপের বিভিন্ন দেশে ছড়িয়ে পড়েছেন৷ তবে গত মার্চে তুরস্কের সঙ্গে ইউরোপীয় ইউনিয়নের এক চুক্তির পর শরণার্থী এবং অভিবাসীদের ইউরোপমুখী স্রোতে টান পড়েছে৷ নতুন চুক্তি অনুযায়ী, গ্রিসে থাকা শরণার্থীদের তুরস্কে ফেরত পাঠানো হবে যদি না তারা সফলভাবে গ্রিসে রাজনৈতিক আশ্রয় নিতে সফল হন৷

মানবেতর জীবনযাপন

ইডোমেনিতে থাকা অধিকাংশ অভিবাসী সিরিয়া, আফগানিস্তান এবং ইরাক থেকে আসা৷ শীত এবং বর্ষা তারা কাটিয়েছেন ছোট তাবুতে বসবাস করে৷ গ্রিসের কর্তৃপক্ষ গত কয়েকমাস ধরে ক্যাম্পটি বন্ধ করার চেষ্টা করছিল৷

এআই/এসিবি (এপি, ডিপিএ, এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়