1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

খেলাধুলা

ইটালির কাছে খেলার সৌন্দর্যের চেয়ে জয়টাই আসল

এবারের বিশ্বকাপে কেমন খেলবে ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন ইটালি? আন্তর্জাতিক ফুটবলে তাদের পারফরমেন্স যা-ই হোক না কেন, কিংবা ফিফার তালিকায় তাদের অবস্থান যত নম্বরেই থাকুক না কেন, বড় আসরে ইটালি কিন্তু একটি ভিন্ন মাপের দল৷

default

ফুটবলের সৌন্দর্য বলতে যা বোঝায়, ইটালির খেলায় তেমন কিছু চোখে পড়ে না৷ যারা ইটালিকে সমর্থন করেন না তাদের অভিযোগ এটি৷ আর যারা সমর্থন করেন, তাদেরও যুক্তি কিন্তু ওই একই৷ এই প্রসঙ্গে ইটালির কোচ মার্সেলো লিপ্পি কয়েক দিন আগে এক সাক্ষাৎকারে বলেছিলেন, বিনোদন যদি চান তাহলে তো সিনেমা হল কিংবা ক্যাবারে রয়েছে, সেখানেই যান৷ দিন শেষে হিসেব করা হবে কারা কয়বার বিশ্বকাপ জিতল - সেটাই৷ আসলে ইটালির ফুটবল দর্শন এটাই, খেলায় হার-জিতটাই আসল৷ কিভাবে খেলে জেতা হল সেটা মুখ্য নয়৷ তাই গত বিশ্বকাপের ফাইনালে মাতেরাজ্জি-জিদান কাহিনীর পর অনেকেই দুয়োধ্বনি দিয়েছে৷ অথচ ইটালির সমর্থকরা কিন্তু বিশ্বকাপ জয়ের আনন্দেই মাতোয়ারা ছিল৷

কিন্তু এবার কি করবে ইটালি ? ৮২'তে চ্যাম্পিয়ন, ৯৪'তে রানার্স আপ আর ২০০৬'এ চ্যাম্পিয়ন - গত তিন দশকের এই হিসেবের দিকে তাকালেই বোঝা যায় বিশ্বকাপের ফাইনালে উঠতেই তাদের এক যুগ লেগে যাচ্ছে৷ কিন্তু তারপরও, তাতে একটা ধারাবাহিকতা রয়েছে, তাই নয় কি ? ইটালির ফুটবলের মত তাদের পারফরমেন্সটাও বোধ হয় খুব ছকে কষা!

Deutschland Fußball Fans von Schalke 04 Flash-Galerie

এবার কি করবে ইটালি ? (ফাইল ফটো)

যা-ই হোক, গত বিশ্বকাপের জাতীয় দলের নয় জনকে নিয়ে এবারের ২৩ সদস্যের দল গড়েছেন লিপ্পি৷ ট্যাকটিশিয়ান হিসেবে তাঁর নাম বিশ্বজোড়া৷ দল গঠনে তাঁর কাছে সবার আগে ‘ভার্সেটালিটি'৷ একেক ম্যাচে একেক কৌশলে দলকে খেলাতে চান এই কোচ৷ তাই দলে সেই সব খেলোয়াড়কে তিনি প্রাধান্য দিয়েছেন, যাঁরা বিভিন্ন পজিশনে খেলতে সক্ষম৷ এই হিসেবে দল থেকে বাদ পড়ে গেছেন রসির মত নির্ভরযোগ্য স্ট্রাইকার৷ আবার দলে থেকে গেছেন স্ট্রাইকার ফ্যাবিও কোয়াগলিয়ারেলা৷ গোলরক্ষক হিসেবে থাকছেন বহুদিনের নির্ভরযোগ্য গিয়ানলুইগি বুফন৷ আরও থাকছেন জামব্রোতা, গাত্তুসো, গিলার্দিনোর মত পুরনো খেলোয়াড়রা৷ তবে যাকে নিয়ে লিপ্পি সবেচেয়ে বেশি সমালোচনার মুখোমুখি হচ্ছেন, তিনি অধিনায়ক ফ্যাবিও ক্যানাভারো৷ এক সময়ের ফিফা বর্ষসেরা এই খেলোয়াড় ইতিমধ্যে জানিয়ে দিয়েছেন যে, এই বিশ্বকাপের শেষেই তিনি আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারের ইতি টানতে যাচ্ছেন৷ কিন্তু বিশ্বকাপের মত আসরে ৩৬ বছর বয়সী এই ডিফেন্ডারকে রাখাটা একটা বিলাসিতা বলে মনে করছেন লিপ্পির সমালোচকরা৷ তা সত্বেও, অভিজ্ঞ এই খেলোয়াড়ের ওপর আস্থা রাখতে চান মার্সেলো লিপ্পি৷

প্রতিবেদন: রিয়াজুল ইসলাম

সম্পাদনা: দেবারতি গুহ

সংশ্লিষ্ট বিষয়