1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ইউরো এলাকার ভবিষ্যৎ নিয়ে বিরোধ তুঙ্গে

বৃহস্পতিবার ইউরোপীয় ইউনিয়নের শীর্ষ সম্মেলনের অন্যতম প্রধান বিষয় ইউরো স্থিতিশীলতা চুক্তির সংস্কার৷ গ্রিসের ঘটনা থেকে শিক্ষা নিয়ে ইউরো এলাকার দেশগুলির জন্য কড়া বিধিনিয়ম চাপাতে চায় জার্মানি ও ফ্রান্স৷

default

ইউরো এলাকার ভবিষ্যৎ নিয়ে বিরোধ

কিন্তু তাদের এই সিদ্ধান্ত বাকিদের তেমন পছন্দ হচ্ছে না৷ যে কোনো সংকট থেকে শিক্ষা গ্রহণ করাই বুদ্ধিমানের কাজ, যাতে ভবিষ্যতে এমন সংকট এড়ানো যায়৷ যে ১৬টি দেশে অভিন্ন মুদ্রা ‘ইউরো' চালু আছে, তাদের ক্ষেত্রেও এটা প্রযোজ্য৷ বাজেট ঘাটতির মাত্রা মারাত্মক আকার ধারণ করায় গ্রিস প্রায় দেউলিয়া হতে বসেছিল৷ স্পেন, পর্তুগাল ও ইটালির মত দেশের অবস্থাও তেমন ভাল ছিল না৷ কিন্তু দুর্বলতা মাত্র কয়েকটি দেশের হলেও সংকটে পড়ল ইউরো, যার কুফল ভোগ করতে হল গোটা ইউরো এলাকাকে৷ এমন নয় যে শুরু থেকে কোনো রক্ষাকবচের ব্যবস্থা ছিল না৷ যেমন ইউরো এলাকার বাজেট ঘাটতির মাত্রা সর্বোচ্চ ৩ শতাংশে বেঁধে দেওয়া হয়েছিল৷ তা সত্ত্বেও বিভিন্ন দেশ বার বার সেই নিয়ম লঙ্ঘন করেছে, তাদের বিরুদ্ধে তেমন কোনো শাস্তিমূলক ব্যবস্থাও নেওয়া হয় নি৷

ই.ইউ. সম্মেলনে বিষয়টি আলোচনার আগেই পরিস্থিতি সামাল দিতে বিশেষ তৎপর হয়ে উঠেছে ইউরো এলাকার দুই প্রধান শক্তি – জার্মানি ও ফ্রান্স৷ তারাই ভবিষ্যৎ বিধিনিয়মের একটা রূপরেখা তুলে ধরছে, যার আওতায় নিয়ম ভাঙলে কড়া শাস্তির বিধান রয়েছে৷ এমনকি কোনো দেশ লাগাতার নিয়ম ভেঙে চললে সাময়িকভাবে তার ভোটাধিকারও কেড়ে নেওয়ার বিধান রাখতে চায় এই দুই দেশ৷ জার্মান চ্যান্সেলার আঙ্গেলা ম্যার্কেল বলেছেন, এটা ঠিক, যে শুধু জার্মানি ও ফ্রান্সের মধ্যে বোঝাপড়াই এক্ষেত্রে যথেষ্ট নয়৷ কিন্তু অন্যদিকে জার্মানি ও ফ্রান্সের বোঝাপড়া ছাড়াও বিশেষ কিছু করা সম্ভব নয়৷

ইউরো-গ্রুপের প্রধান ও লুক্সেমবুর্গ'এর প্রধানমন্ত্রী জঁ ক্লোদ ইয়ুঙ্কার বিশেষ করে সাময়িকভাবে কোনো দেশের ভোটাধিকার কেড়ে নেওয়ার প্রস্তাবের কড়া সমালোচনা করেছেন৷ তাছাড়া তিনি চান না, যে আপদকালীন অবস্থায় যে তহবিল থেকে আর্থিক সাহায্য দেওয়ার কথা, তা শুধু ইউরো এলাকার দেশগুলির জন্য সীমাবদ্ধ থাকুক – ইউরোপীয় ইউনিয়নের সব সদস্য দেশ যেন এই সুযোগ না পায়৷ এছাড়াও ইউরো চুক্তি সংস্কারের বিভিন্ন দিক নিয়ে তর্ক-বিতর্ক চলছে৷ কোনো সদস্য দেশ প্রায় দেউলিয়া হয়ে পড়লে তাকে বাঁচাতে শুধু রাষ্ট্র নয়, ব্যাঙ্ক ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলিকেও সেই উদ্যোগে সামিল করার প্রস্তাব রাখা হয়েছে৷

প্রতিবেদন: সঞ্জীব বর্মন

সম্পাদনা: আব্দুল্লাহ আল ফারূক

সংশ্লিষ্ট বিষয়