1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ইউরো এলাকার প্রতি আস্থা বাড়ছে ডাভোস সম্মেলনে

সুইজারল্যান্ডের ডাভোস শহরে বিশ্ব অর্থনীতি সম্মেলনে উপস্থিত রাজনৈতিক ও শিল্প-বাণিজ্যের শীর্ষ প্রতিনিধিরা শনিবার বললেন, ইউরোপের অভিন্ন মুদ্রা ইউরো’র অস্তিত্বের সংকট কেটে গেছে৷

default

অভিন্ন মুদ্রা হিসেবে ইউরো যখন যাত্রা শুরু করেছিল, তখনই প্রশ্ন উঠেছিল, যে শুধু আর্থিক ক্ষেত্রে সমন্বয় সদস্য দেশগুলির দীর্ঘমেয়াদী স্থিতিশীলতার জন্য যথেষ্ট হবে কি না৷ অর্থনৈতিক ও সামাজিক সুরক্ষা নীতির ক্ষেত্রে দেশগুলির সমন্বয় না থাকলে কী হবে, সেবিষয়ে সন্দেহ থেকে গিয়েছিল৷ প্রাথমিক সাফল্যের পর ইউরো এলাকায় ঠিক সেই সংকটই দেখা দিয়েছে৷ মাত্রাতিরিক্ত বাজেট ঘাটতি, কিছু ক্ষেত্রে দুর্বল সরকারি নীতির ফলে একই সূত্রে বাঁধা দেশগুলির সামগ্রিক স্থিতিশীলতা নিয়ে দুশ্চিন্তার সৃষ্টি হয়েছিল৷ ২০১০ সালে গ্রিস ও আয়ারল্যান্ডের মতো দেশের নাটকীয় পরিস্থিতির ফলে নতুন করে ভাবনা-চিন্তা শুরু হয়েছে৷

Wolfgang Schaeuble

জার্মান অর্থমন্ত্রী ভল্ফগাং শয়েব্লে

শনিবার ডাভোসে এক আলোচনা চক্রে জার্মান অর্থমন্ত্রী ভল্ফগাং শয়েব্লে বলেন, ১৭টি দেশের ইউরো এলাকা নতুন করে আর কোনো সংকটে পড়বে না বলেই তাঁর বিশ্বাস৷ অতীতের ঘটনা থেকে শিক্ষা নিয়ে সদস্য দেশগুলি নিজের অর্থনৈতিক ও সামাজিক নীতির মধ্যে সমন্বয় বাড়ানোর চেষ্টা করছে৷ শয়েব্লে আরও বলেন, ‘‘আমার বিশ্বাস, ইউরো এবার স্থিতিশীল থাকবে৷''

ফ্রান্সের অর্থনীতি বিষয়ক মন্ত্রী ক্রিস্টিন লাগার্দ আর্থিক বাজারের উদ্দেশ্যে আহ্বান জানিয়ে বলেন, ‘‘ইউরো এলাকাকে স্বল্পমেয়াদী ভিত্তিতে দেখবেন না৷ সব দেশই সরকারি ব্যয়ের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখতে পদক্ষেপ নিচ্ছে৷'' শুধু রাজনৈতিক নেতারা নন, ব্যাংকিং জগতও ইউরো এলাকার প্রতি আস্থা জানাতে শুরু করেছেন৷ আলোচনায় বার্কলেস ব্যাংকের প্রধান বব ডায়মন্ড বলেন, ইউরোর অস্তিত্ব নিয়ে আর কোনো সন্দেহ নেই৷

গত বছরের ঘটনাবলি থেকে শিক্ষা নিয়ে ইউরোপীয় নেতারা আগামী মার্চ মাসে একঝাঁক সিদ্ধান্ত নিতে চলেছেন৷ এর মধ্যে রয়েছে কাঠামোগত সংস্কার, নিয়ম ভাঙলে শাস্তির আরও কড়া বিধান, সংকটের ক্ষেত্রে দ্রুত সহায়তার ব্যবস্থা ইত্যাদি৷ যেমন কোনো সদস্য দেশ সংকটে পড়লে তাকে সাহায্য করতে যে আপদকালীন তহবিল গঠন করা হয়েছিল, তার অঙ্ক বাড়ানো ও ঋণের শর্ত অনেক সহজ করা হচ্ছে, যাতে বাজারে কোনো অস্থিরতার সৃষ্টি না হয়৷ জার্মান চ্যান্সেলার আঙ্গেলা ম্যার্কেল অবশ্য সংকট প্রতিরোধের উপরই জোর দিচ্ছেন৷ গোটা ইউরো এলাকায় অভিন্ন অর্থনৈতিক নীতি চালু করার পথ খুঁজছেন তিনি৷ এর মাধ্যমে তিনি একদিকে প্রতিযোগিতার বাজারে ইউরো-এলাকাকে আরও আকর্ষণীয় করে তুলতে চান, অন্যদিকে বাজারে স্থায়ী আস্থার পরিবেশও গড়ে তুলতে চান৷

প্রতিবেদন: সঞ্জীব বর্মন

সম্পাদনা: জাহিদুল হক

সংশ্লিষ্ট বিষয়