1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

জার্মানি ইউরোপ

ইউরো এলাকার অর্থনীতি নিয়ে দুশ্চিন্তা

মূল্যস্ফীতির পড়তি হার, অস্বাভাবিক মাত্রায় বেকারত্বের মতো সমস্যা ইউরোজোনের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির পথে বড় বাধা হয়ে দাঁড়াচ্ছে৷ ইউরোপীয় কেন্দ্রীয় ব্যাংক আবার আসরে নেমে পরিস্থিতি সামাল দেবার চেষ্টা করছে৷

সোমবার প্রকাশিত নতুন কিছু তথ্য-পরিসংখ্যান ইউরো এলাকার অর্থনৈতিক সমস্যার চিত্র আরও স্পষ্ট করে তুলেছে৷ আগস্ট মাসে ইউরো এলাকার বেকারত্বের হার ১১.৫ শতাংশে অপরিবর্তিত রয়েছে৷ সেপ্টেম্বর মাসে মূল্যস্ফীতির হার ছিল ০.৩ শতাংশ, যা গত ৫ বছরের মধ্যে সবচেয়ে কম৷ ইউরোপের চালিকা শক্তি বলে পরিচিত জার্মানির মূল্যস্ফীতির হার কমতে কমতে ০.৮ শতাংশে ঠেকেছে৷ জার্মানির অর্থনীতির গতি-প্রকৃতি নিয়ে নতুন করে দুশ্চিন্তা দেখা যাচ্ছে৷

এই অবস্থায় ইউরোপীয় কেন্দ্রীয় ব্যাংক ডিফ্লেশনের মোকাবিলা করতে সুদের হার আরও কমানো সহ আরও কিছু পদক্ষেপ নিয়েছে৷ তা সত্ত্বেও ফল দেখা যাচ্ছে না৷ বৃহস্পতিবার ইসিবি প্রধান মারিও দ্রাগি লিকুইডিটি কর্মসূচি সম্পর্কে বক্তব্য রাখবেন৷ এর উদ্দেশ্য, ব্যাংকগুলিকে আরও ঋণ দিতে উৎসাহ দেয়া৷ অনুমান করা হচ্ছে, মার্কিন কেন্দ্রীয় ব্যাংকের মতো ইসিবিও ‘কোয়ানটিটেটিভ ইজিং'-এর পথ গ্রহণ করবে – অর্থাৎ বন্ড কেনার ক্ষেত্রে কোনো ঊর্দ্ধসীমা থাকবে না৷

Symbolbild EZB Europäische Zentralbank Frankfurt am Main

আগস্ট মাসে ইউরো এলাকার বেকারত্বের হার ১১.৫ শতাংশে অপরিবর্তিত রয়েছে

তবে ইসিবি-র এই সব পদক্ষেপ ও কর্মসূচি কতটা কার্যকর হবে, তা নিয়ে কিছু মহল সন্দেহ প্রকাশ করছে৷ চলতি সপ্তাহে ইউরোপীয় কেন্দ্রীয় ব্যাংকের এক বৈঠকের দিকে তাকিয়ে রয়েছে ইউরোপের পুঁজিবাজার৷

এমন প্রেক্ষাপটে সপ্তাহের শুরুতেই ইউরোপের পুঁজিবাজারে কিছুটা দরপতন ঘটেছে৷ ইউরো এলাকা তথা জার্মানি থেকে পাওয়া সাম্প্রতিক তথ্য অর্থনীতির দুর্বলতার ইঙ্গিত দিচ্ছে৷ সেইসঙ্গে হংকং-এ রাজনৈতিক অস্থিরতার কারণে গোটা বিশ্বেই বাজার বেশ উদ্বিগ্ন৷ ইউক্রেন ও ইরাকের সংকটের পর চীনও যদি সমস্যার মুখে পড়ে, সে ক্ষেত্রে বিশ্ব অর্থনীতি নতুন করে ধাক্কা খাবে বলে সবার আশঙ্কা৷ এদিকে মার্কিন ডলারের সঙ্গে ইউরো-র বিনিময় মূল্য গত দু'বছরে সবচেয়ে কমে গেছে৷

সংকটগ্রস্ত দেশগুলি অবশ্য কিছুটা অগ্রগতি দেখাতে পারছে৷ যেমন গ্রিসের আশা, সে দেশ নির্দিষ্ট সময়ের আগেই বেলআউট কর্মসূচি থেকে বেরিয়ে আসতে পারবে৷ আন্তর্জাতিক দাতারা সে দেশের সংস্কার ও বাজেট সংক্রান্ত অগ্রগতি খতিয়ে দেখছে৷ তবে স্পেনের ক্যাটালোনিয়া প্রদেশ স্বাধীনতার প্রশ্নে গণভোটের দাবিতে অটল থাকায় সে দেশের অর্থনীতি আবার কিছুটা ধাক্কা খাচ্ছে৷ ফ্রান্সের ঋণভার ২ লক্ষ কোটি ইউরোর রেকর্ড মাত্রা ছুঁয়েছে৷ ফলে সে দেশ ইইউ-র বেঁধে দেয়া বাজেট ঘাটতি সংক্রান্ত নিয়ম মানতে পারবে কি না, তা স্পষ্ট নয়৷

এসবি / জেডএইচ (ডিপিএ, রয়টার্স, এএফপি, এপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন