1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

জার্মানি ইউরোপ

ইউরোপ থেকে মাংসের অবশিষ্টাংশ যায় আফ্রিকায়

ইউরোপ, অ্যামেরিকা থেকে সস্তায় আমদানি করার ফলে আফ্রিকার পোল্ট্রি শিল্প ধ্বংসের মুখে পড়েছে৷ ইউরোপীয় ইউনিয়নের কৃষি বিষয়ক কমিশনার ডাচিয়ান চলোস আফ্রিকায় কৃষিজাত পণ্যের রপ্তানি ক্ষেত্রে অনুদান দেওয়া বন্ধের ঘোষণা দিয়েছেন৷

ঘানার রাজধানী আক্রার বাজারের এক দৃশ্য: ছায়াতেই সূর্যের তাপ ৩০ ডিগ্রি৷ বাতাসের আর্দ্রতাও কম নয়৷ বিক্রেতারা ঘর্মাক্ত কলেবরে নাস্তানাবুদ হচ্ছেন৷ সামনের কাউন্টারে রাখা ফ্রোজেন মুরগির মাংস গলে যাচ্ছে৷ পাশের কোল্ড হাউসেও একই অবস্থা৷ ঘানার মতো দেশগুলিতে কার্যকর কোনো কোল্ড স্টোরেজ নেই৷ তাই আমদানি করা ফ্রোজেন মাংস গলে গিয়ে স্বাস্থ্যের ঝুঁকি হয়ে দাঁড়ায়৷

ধনীদেশের সস্তার পোল্ট্রি

তা সত্ত্বেও ঘানা বছরে ১৬৫,০০০ টন সস্তার পোল্ট্রি ব্রাজিল, অ্যামেরিকা ও ইউরোপ থেকে আমদানি করে থাকে৷ এসব হলো অবশিষ্ট মাংস, যা ধনী দেশের মানুষরা খেতে চান না৷ অথচ ১৯৮০ থেকে ১৯৯০-এর দশক পর্যন্ত ঘানা হাঁসমুরগির মাংসের চাহিদার ৮০ শতাংশ নিজেই পূরণ করতে পারতো৷

‘‘সস্তায় আমদানিকৃত মাংস বাজারে আসার পর থেকে অবস্থা বদলে গিয়েছে৷ এখন আমাদের কৃষকরা চাহিদার মাত্র ১০ শতাংশ মাংস উৎপাদন করে থাকেন৷'' বলেন ঘানার জাতীয় পোল্ট্রি শিল্পের কোয়াম কোকরোহ৷

একজন জার্মান বছরে ১৯ কিলোর মতো মুরগির মাংস খান৷ বিশেষ করে ফিলের মাংস জার্মানদের কাছে প্রিয়৷ এই মাংস শুধু সাদা ও নরমই নয়, কম চর্বিযুক্তও৷ তাই ইউরোপের স্বাস্থ্যসচেতন মানুষরা মুরগির বুকের মাংস খেতে পছন্দ করেন৷ জার্মান চাষিরা প্রয়োজনের তুলনায় ২৫ শতাংশ বেশি মাংস উত্পাদন করেন৷ অতিরিক্ত মাংস অল্প দামে আফ্রিকায় রপ্তানি করা হয়৷ এর মধ্যে রয়েছে মুরগির ভেতরের অংশ (যকৃৎ,বৃক্ক,হার্ট) গলা, পাখা ইত্যাদি৷ আফ্রিকায় আমদানিকৃত মুরগির মাংসের ১০ শতাংশ জার্মানি থেকে আসে৷ বাকি ৯০ শতাংশ আসে ব্রাজিল, অ্যামেরিকা ও নেদারল্যান্ডস থেকে৷

Südafrika Aufruhr wegen sexuellen Missbrauchs in Diepsloot

ঘানা বছরে ১৬৫,০০০ টন এমন সস্তা পোল্ট্রি আমদানি করে যা ধনী দেশের মানুষরা খেতে চান না

আফ্রিকার পক্ষে এত কম খরচে সম্ভব নয়

এই সব মাংস এত কম দামে বিক্রি হয় যে, আফ্রিকার কোনো চাষির পক্ষে এত কম খরচে পোল্ট্রি চাষ সম্ভব নয়৷ মাত্র দুই ইউরো দিয়েই আমদানি করা ফ্রোজেন মাংসের টুকরা পাওয়া যায়৷ স্থানীয় পোল্ট্রি চাষিদের একই পরিমাণ মাংসের দাম চার ইউরোর কম নয়৷

ইইউ-এর কৃষি বিষয়ক কমিশনার ডাচিয়ান চলোসের ঘোষণা অনুযায়ী, ইউরোপীয় কৃষি রপ্তানি ক্ষেত্রে অনুদান সম্পূর্ণ বন্ধ করে দেওয়া হবে৷ সমালোকরা মনে করেন এতেও কোনো কাজ হবে না৷ ২০০৮ সালেও এই রকম একটা ঘোষণা দেওয়া হয়েছিল৷ যা ফাঁকা বুলিতেই রয়ে গিয়েছে৷

এত সস্তায় মাংস রপ্তানি করতে পারার একটি কারণ হলো, অল্প জায়গায় বহু পশু পাখিকে গাদাগাদি করে রেখে খরচও বাঁচানোর প্রবণতা৷ আর একটি কারণ হলো, ইউরোপের বাজারে দামি ফিলের মাংস বিক্রি করে উৎপাদনের খরচ অনেকটা উঠে আসে৷

সস্তায় আমদানি রোধ করার চেষ্টা ব্যর্থ

ঘানার সংসদে ২০০৩ সালে আমদানিকর বৃদ্ধি করে সস্তায় আমদানি রোধ করার চেষ্টা করা হয়েছিল৷ কিন্তু কিছুদিনের মধ্যেই এই আইনটি বাতিল হয়ে যায়৷ ‘‘আমি মনে করি আন্তর্জাতিক চাপের কাছে নতি স্বীকার করতে হয়েছে ঘানা সরকারকে৷'' বলেন ঘানার জাতীয় পোল্ট্রি শিল্পের কোয়াম কোকরোহ৷

উন্নয়ন সাহায্য সংগঠন ‘ব্রেড ফর দ্য ওয়ার্ল্ড'-এর ফ্রান্সিসকো মারিও এ বিষয়ে একমত পোষণ করেন৷ তাঁর কথায়, ‘‘একই সময়ে ঋণ স্থানান্তরের ব্যাপারে বিশ্বব্যাংকের সঙ্গে দেনদরবার চলছিল ঘানার৷ এই আইন বাতিল না করলে হয়ত অনেক অর্থ গচ্চা দিতে হতো৷'' বলা বাহুল্য, দরিদ্র দেশগুলির অসহায়ত্বেরই এক চিত্র এটি৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়