1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

খেলাধুলা

ইউরোপে খেলা পাতানো এবং বাজিকর হোতাদের কারাদণ্ড

ইউরোপের বিভিন্ন খেলায় খেলোয়াড়দের ঘুষ দিয়ে গোপন চুক্তি এবং সেই অনুযায়ী বাজি ধরে লাখ লাখ ইউরো কামিয়ে এবার কারাগারে গেলেন এই চক্রের তিন জন হোতা৷ তিন জনকেই বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দিল জার্মানির আদালত৷

default

আন্টে সাপিনা

চ্যাম্পিয়ন্স লিগ থেকে শুরু করে বিশ্বকাপ ফুটবলের কোয়ালিফায়িং রাউন্ডের প্রায় ৫০ টি খেলার ফল ঘুষের বিনিময়ে উল্টো ঘুরিয়ে দিয়েছে বলে স্বীকার করেছে আসামিরা৷ দীর্ঘ ছয়মাস ধরে শুনানি চলার পর বৃহস্পতিবার এই ম্যাচ ফিক্সিং'এর শীর্ষ হোতাদের কারাদণ্ডের রায় দিল বোখুমের আদালত৷ শুনানি চলাকালে জানা গেছে, কীভাবে ২০০৯ সালের অক্টোবরে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ই গ্রুপে হাঙ্গেরির ক্লাব ডেব্রেসিনি বনাম ইটালির ক্লাব ফিওরেন্টিনার খেলায় খেলোয়াড়দের সাথে গোপন চুক্তি করেছিল এই চক্র৷ খেলাটিতে ৪-৩ গোলে জিতেছিল ফিওরেন্টিনা৷

এছাড়া একইবছর অনুষ্ঠিত ২০১০ বিশ্বকাপ ফুটবলের কোয়ালিফায়িং রাউন্ডে ফিনল্যান্ড বনাম লিশটেনস্টাইনের খেলাটিকেও প্রভাবিত করেছিল তারা৷ এমন সব চাঞ্চল্যকর তথ্য-প্রমাণ বিবেচনা করে রায় দিল আদালত৷ ৩৫ বছর বয়সি আন্টে সাপিনা এবং তার প্রধান সহযোগী মারিও'কে দেওয়া হয়েছে সাড়ে পাঁচ বছর করে কারাদণ্ড৷ এছাড়া তাদের অন্যতম সহযোগী ড্রাগান'কে দেওয়া হয়েছে দেড় বছরের কারাদণ্ড, তবে কিছু শর্ত মেনে চললে কারাদণ্ড ভোগ স্থগিত থাকবে৷

আদালত সূত্রে জানা গেছে, সাপিনা পাতানো খেলার উপর বাজি ধরে কামিয়েছে প্রায় ২৪ লাখ ইউরো৷ এসব খেলার ফলাফল কী হবে তা আগে থেকেই ঠিক ঠিক জানতো সাপিনা৷ তবে ভাগ্যের পরিহাসে তার এই চক্রের কার্যক্রম ফাঁস হয়ে যাওয়ার পর পুলিশের হাতে আটক হয়ে ২০০৯ সালের ১৯ অক্টোবর থেকে জেল হাজতে আছে জাপিনা৷ এছাড়া মারিও'রও ইতিমধ্যে ১৮ মাস জেলবাস হয়ে গেছে৷ তবে ম্যাচ ফিক্সিং চক্রের হোতা সাপিনা এই লাইনে নতুন নয়৷ এর আগেও ২০০৫ সালে অপর একটি মামলায় দোষী সাব্যস্ত হওয়ায় তাকে প্রায় তিন বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছিল৷ সেসময় জার্মান রেফারি রবার্ট হয়ৎসারের সাথে তার যোগসাজশের বিষয়টি ধরা পড়েছিল৷

উল্লেখ্য, গত মাসেও এই চক্রের অপর তিন সদস্যকে প্রায় তিন থেকে চার বছর করে কারাদণ্ড দিয়েছে জার্মান আদালত৷

প্রতিবেদন: হোসাইন আব্দুল হাই

সম্পাদনা: অরুণ শঙ্কর চৌধুরী