1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

জার্মানি ইউরোপ

ইউরোপের অর্থনীতিতে আশার আলো

২০১৩ সালের প্রথমার্ধে ইউরো এলাকায় সংকট কাটার বদলে অনেক ক্ষেত্রে আরও তীব্র হয়েছে৷ কিন্তু জুলাই মাসের শুরুতেই কিছু সুখবর আসায় ক্ষীণ আশার আলো দেখা যাচ্ছে৷

বছরের দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই সোমবার পুঁজিবাজার বেশ চাঙ্গা হয়ে উঠেছিল৷ তবে বছরের বাকি সময় জুড়েও ইউরোপ এই প্রবণতা ধরে রাখতে পারবে কি না, তা বলা কঠিন৷ ইউরোপে উৎপাদন আবার বাড়তে শুরু করেছে৷ সোমবার এ সংক্রান্ত তথ্য প্রকাশিত হওয়ার পর ইউরোর বিনিময় মূল্য কিছুটা বেড়ে গেছে৷ বিশেষ করে স্পেন, ইটালি ও ফ্রান্সের মতো দুর্বল দেশে উন্নতির ফলে বাজারও উৎসাহ পাচ্ছে৷ তবে চরম বেকারত্বের হার আগের রেকর্ড ভেঙে দিয়েছে৷ মে মাসে ইউরো এলাকায় বেকারত্বের হার ছিল ১২ দশমিক ১ শতাংশ৷ জুন মাসে সেখানে মূল্যস্ফীতিও বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১ দশমিক ৬ শতাংশ৷

ইউরো এলাকায় চরম বেকারত্বের সমস্যা মোকাবিলা করতে কিছু উদ্যোগ দেখা যাচ্ছে৷ বুধবার জার্মানির রাজধানী বার্লিনে ইউরোপীয় ইউনিয়নের শ্রমমন্ত্রীদের এক বৈঠক বসছে৷ চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল নিজে সেই বৈঠক ডেকেছেন৷ বিশেষ করে তরুণ প্রজন্মকে বেকারত্ব থেকে উদ্ধার করার কৌশল স্থির করবেন তাঁরা৷ গত সপ্তাহে ইইউ শীর্ষ সম্মেলনে ৬০০ কোটি ইউরো ব্যয় করে এই সমস্যার মোকাবিলার উদ্যোগ শুরু হয়েছে৷ তবে সমালোচকদের আশঙ্কা, এমন বিচ্ছিন্ন উদ্যোগে তেমন কোনো কাজ হবে না৷ আসলে সেই পুরানো বিতর্কই আবার মাথাচাড়া দিয়ে উঠছে৷ একদল চায়, অর্থনীতিকে চাঙ্গা করতে সরকারি পর্যায়ে বাড়তি ব্যয় করা হোক, যাকে স্টিমুলাস বলা হয়৷ বাকিরা ব্যয়-সংকোচন ও সংস্কার চালিয়ে যেতে চায়৷ তাদের যুক্তি, একমাত্র এভাবেই স্থায়ী সমাধান সম্ভব৷ আপাতত সবার নজর বৃহস্পতিবার ইউরোপীয় কেন্দ্রীয় ব্যাংক-এর ঘোষণার দিকে৷ সুদের হারে হেরফের হলে অর্থনীতির উপর তার প্রভাব পড়বে৷

ইউরোপের সংকটগ্রস্ত দেশগুলির বর্তমান অবস্থায় সার্বিকভাবে কিছু ইতিবাচক পরিবর্তন দেখা যাচ্ছে৷ যেমন পর পর চার মাস ধরে স্পেনে বেকারত্বের হার কমে চলেছে৷ উৎপাদন বাড়ার ফলে আশার আলো দেখা যাচ্ছে৷ দেখা যাচ্ছে পর্যটনের ক্ষেত্রে উন্নতিও৷ শুধু তাই নয়, ইটালির জোট সরকারে সংস্কারের গতি নিয়ে দেখা যাচ্ছে মতপার্থক্য৷ বৃহস্পতিবার এক বৈঠকে তা দূর করতে চান প্রধানমন্ত্রী এনরিকো লেটা৷

এদিকে সংস্কারের ক্ষেত্রে গ্রিসের সরকার কিছু অগ্রগতি দেখালেও তাদের কিছু ব্যর্থতা নিয়ে সমস্যা রয়েছে৷ সোমবার ইউরোগ্রুপের এক আলোচনায় গ্রিসকে হুঁশিয়ারি দেওয়া হয়৷ পরবর্তী কিস্তির আন্তর্জাতিক সহায়তা পেতে হলে আগামী শুক্রবারের মধ্যে গ্রিসকে কিছু কঠিন সিদ্ধান্ত নিতে হবে৷

এসবি/ডিজি (ডিপিএ, রয়টার্স, এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন