ইউরোপীয় ইউনিয়নের সংস্কারের ডাক দিলেন মাক্রোঁ | বিশ্ব | DW | 17.04.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ইউরোপ

ইউরোপীয় ইউনিয়নের সংস্কারের ডাক দিলেন মাক্রোঁ

ইউরোপীয় সংসদের সামনে তাঁর প্রথম ভাষণে ফরাসি প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল মাক্রোঁ জোরদার সংস্কার ও ইউরোপের নাগরিকদের সঙ্গে মুক্ত বিতর্কের আহ্বান জানিয়েছেন ৷ ইইউ রাজনীতিকদের অন্তর্কোন্দলকে ‘বোকামি' বলে অভিহিত করেন তিনি৷

ইউরোপীয় ইউনিয়নের নাগরিকদের বিভিন্ন উদ্বেগ ও শঙ্কার মোকাবিলা করার জন্য সংস্কারের ডাক দেন মাক্রোঁ৷ একের পর এক সংকটের মাঝখানে ইউরোপীয় ঐক্যকে জোরদার করাই ছিল তাঁর ভাষণের উদ্দেশ্য৷ স্ট্রাসবুর্গে তিনি ইউরোপীয় সাংসদদের প্রতি ‘‘প্রত্যয় ও প্রস্তাবাবলী সম্পর্কে একটি বাস্তবিক বিতর্ক'' শুরু করার এবং ‘‘ইউরোপীয় গণতন্ত্রকে সঞ্জীবিত করে তোলার'' আহ্বান জানান৷ ২০১৯ সালের মে মাসে ইইউ-তে পুনরায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে৷ ব্রিটেনের ইইউ ত্যাগের পর তা হবে প্রথম নির্বাচন৷

ইউরোপের মানুষ ‘‘ইউরোপের আশা ছেড়ে দেননি,'' মঙ্গলবার তাঁর আবেগপূর্ণ ভাষণে বলেন মাক্রোঁ, এবং অভিবাসন, ইউরো মুদ্রা এলাকার সংস্কার, ইউরোপীয় ব্যাংকিং প্রণালীর সংস্কার ও একটি ইইউব্যাপী সার্বভৌমত্ব সৃষ্টির ব্যাপারে বিতর্কের ডাক দেন৷ ঐ ইউরোপীয় ইউনিয়নব্যাপী সার্বভৌমত্ব একক সদস্য দেশগুলির সার্বভৌমত্বকে সম্পূর্ণ করবে, বলেন মাক্রোঁ৷

আজকের ব্যাপক পরিবর্তনের বিশ্বে রাজনীতিকদের তাদের চিন্তাধারা পাল্টাতে হবে, তবে তার অর্থ গণতন্ত্রকে প্রত্যাখ্যান করা নয় বলে মাক্রোঁ যোগ করেন৷ ‘‘বলতে কি, এই কঠিন সময়ে ইউরোপীয় গণতন্ত্রই আমাদের সেরা সুযোগ,'' বলেন মাক্রোঁ এবং এই পরিস্থিতিতে নিজেদের ‘‘পন্থা ও সত্তা পরিত্যাগ করাটা সবচেয়ে বড় ভুল হবে'' বলেও মনে করেন তিনি৷

ভিডিও দেখুন 00:21
এখন লাইভ
00:21 মিনিট

‘‘আমরা চতুর্দিকে কর্তৃত্ববাদীদের দেখছি: কর্তৃত্ববাদী গণতন্ত্র নয়, তার উত্তর হলো গণতন্ত্রের কর্তৃত্ব,'' বলেন মাক্রোঁ৷

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ইউরোপীয় মূল্যবোধকে পরিত্যাগ করছে

স্বদেশের ব্যর্থতার জন্য ব্রাসেলসকে দায়ী করার প্রবণতা ও  ইউরোপীয় ইউনিয়নের ভবিষ্যৎসম্পর্কে আলোচনায় অনিচ্ছার সমালোচনা করে মাক্রোঁ বলেন, ‘‘এভাবে চলাটা বোকার কাজ, যা আরামের হলেও, তা দিয়ে কোনো সমস্যার সমাধান হয় না৷''

মাক্রোঁ ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও বর্তমান মার্কিন প্রশাসনের ঘোষিত মূল্যবোধের ফারাকের জন্য দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, ‘‘ঐ দেশটির সঙ্গে আমাদের বহু মিল রয়েছে; কিন্তু ঐ দেশ বহুপাক্ষিকতা, মুক্ত বাণিজ্য ও জলবায়ু পরিবর্তন প্রত্যাখ্যান করছে৷''

অপরদিকেমাক্রোঁ ইউরোপীয় ইউনিয়নেরঅভ্যন্তরে পপুলিজমের অভ্যুত্থানের কথা বলেন, যা ইটালি ও হাঙ্গেরির সাম্প্রতিক নির্বাচনের ফলাফলে প্রতিফলিত হয়েছে৷

বার্লিনের প্রতীক্ষা

মাস ছয়েক আগে মাক্রোঁ প্যারিসের সর্বন বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রদত্ত একটি ভাষণে ইউরোপ সম্পর্কে তাঁর পরিকল্পনা বিধৃত করেন এবং ইউরো এলাকার একটি যৌথ বাজেট ও একজন ইউরোপীয় অর্থমন্ত্রীর পদ সৃষ্টির কথা বলেন৷ তাঁর পরিকল্পনার অন্যান্য উপাদানের মধ্যে ছিল একটি রাজনৈতিক আশ্রয় প্রদান সংক্রান্ত যৌথ অধিকার, বিভিন্ন দেশের কর ব্যবস্থার মধ্যে সমন্বয় ও একটি ইউরোপীয় দ্রুত প্রতিক্রিয়া বাহিনী৷

কিন্তু মাক্রোঁ তাঁর এই পরিকল্পনা নিয়ে বেশিদূর অগ্রসর হতে পারেননি, কেননা, ইইউ-তে ফ্রান্সের সবচেয়ে বড় সহযোগী জার্মানিতে তখন সরকার গঠন নিয়ে সুদীর্ঘ টানাপোড়েন চলেছে৷ বার্লিনে জোট সরকার দায়িত্ব নেবার পরেও মাক্রোঁর পরিকল্পনা সম্পর্কে উৎসাহের পরিবর্তে সতর্কতাই বেশি পরিলক্ষিত হয়েছে৷

আগামী বৃহস্পতিবার বার্লিনে মাক্রোঁ-ম্যার্কেল সাক্ষাৎ হতে চলেছে৷ গতমাসে উভয় নেতা তাঁদের মতপার্থক্য দূর করে ইউরোপীয় ইউনিয়নের সংস্কার সম্পর্কে জুন মাসের মধ্যে একটি রোডম্যাপ পেশ করার পরিকল্পনা করেন৷

এসি/এসিবি (এএফপি, রয়টার্স, ডিপিএ)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়