1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ইউরোপেও আসছে ককপিটে দুজন রাখার নিয়ম

জার্মানউইংসের দুর্ঘটনা ইউরোপের বিমান সংস্থাগুলোতে নিয়ে আসছে নিয়ম বদলানোর জোয়ার৷ কো-পাইলটের কারণেই ফ্রেঞ্চ আল্পসে বিমান বিধ্বস্ত হয়েছে- এমন অভিযোগ ওঠার পরই নড়েচড়ে বসেছে জার্মানিসহ ইউরোপের বেশ কিছু বিমান সংস্থা৷

বৃহস্পতিবার জার্মানউইংসের ৪ইউ৯৫২৫ ফ্লাইট বিধ্বস্ত হওয়ার কারণ জানাতে গিয়ে ফ্রান্সের প্রসিকিউটর বলেন, ‘‘২৮ বছর বয়সি কো-পাইলট ‘ইচ্ছাকৃতভাবে' বিমান অবতরণ শুরু করেছিলেন বলে ককপিটে থাকা ফ্লাইট রেকর্ডার থেকে জানা গেছে৷'' সুতরাং মার্সেইর এই তদন্তকারীর দাবি অনুযায়ী, বিমানের কো-পাইলট আন্দ্রেয়াস লুবিৎসই বিমানটি বিধ্বস্ত হওয়ার জন্য দায়ী৷

মঙ্গলবার সকালে বার্সেলোনা থেকে ড্যুসেলডর্ফের উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু করে জার্মানির বিমান সংস্থা জার্মানউইংসের একটি এয়ারবাস৷ আবহাওয়া প্রতিকূল ছিল না৷ বিমানের ফিটনেসেও ছিলনা কোনো সমস্যা৷ তবু ফ্রান্সের অংশের আল্পস পর্বতমালায় বিমানটি বিধ্বস্ত হয়৷ এয়ারবাসটিতে ১৪৪ জন যাত্রী এবং ৬ জন বিমানকর্মী ছিলেন৷ এয়ারবাসটির মতো তাদের প্রত্যেকের দেহও ছিন্নবিচ্ছিন্ন হয়ে ছড়িয়ে পড়েছে আল্পসে৷

বৃহস্পতিবার বিমান দুর্ঘটনায় নিহতদের স্বজনরা ফ্রেঞ্চ আল্পসের কাছে গিয়ে হারানো প্রিয়জনদের শেষ বিদায় জানিয়েছেন৷ জার্মানি আর স্পেনে এখনো চলছে শোক৷

এদিকে ইউরোপের বেশ কিছু বিমান সংস্থা বিমানের ককপিটে সবসময় দুজন উপস্থিত থাকার নিয়ম চালু করার পরিকল্পনা করছে৷ অর্থাৎ একজন পাইলটের যদি কোনোকাজে ককপিটের বাইরে যাওয়ার প্রয়োজন হয় তাহলে সে সময়টায় একজন কেবিন ক্রুকে ককপিটে উপস্থিত থাকতে হবে৷

Frankreich PK zur Absturzursache in Marseille Brice Robin Staatsanwalt

ফ্রান্সের প্রসিকিউটর ব্রিস রবিন

মঙ্গলবার বিধ্বস্ত হওয়া বিমানটির কো-পাইলট ভেতর থেকে দরজা বন্ধ করে প্রধান পাইলটককে ককপিটে ঢুকতে দেননি, বরং তিনি বিমানটিকে বিধ্বস্ত হতে দিয়েছেন- ফ্রান্সের প্রসিকিউটর এমন তথ্য দেয়ার পর থেকে ইউরোপের বিমান সংস্থাগুলো ককপিটের নিয়ম বদলানোয় তৎপর হয়ে উঠেছে৷ জার্মানির বিমান চলাচল ফেডারেশন বিডিএল জানায়, লুফটহানসা এবং এয়ার বার্লিন শিগগিরই ককপিটে সবসময় দুজন উপস্থিত থাকার নিয়ম চালু করবে৷ জার্মানির আরো দুটি বিমান সংস্থা কনডর এবং টুইফ্লাই-ও একই পথ অনুসরণ করবে বলে জানা গেছে৷

ইউরোপের আরো কিছু দেশেও ককপিটের নিয়মে পরিবর্তন আসছে৷ ইস্টজেট, এয়ার শাটল, ফিনএয়ার, সিএসএ-এর বিমানের ককপিটেও অদূর ভবিষ্যতে এই নিয়ম চালু হতে পারে৷

জার্মানউইংসের কো-পাইলট কেন ককপিটে প্রধান বৈমানিককে ঢুকতে দেননি? কেন জোর করে ককপিটের বাইরে রাখলেন প্রধান বৈমানিককে? কেন বিমানটি বিধ্বস্ত হতে দিয়ে নিজে মৃত্যুবরণ করলেন, বিমানের বাকি ১৪৯ জনকেও ঠেলে দিলেন মৃত্যুর দিকে? এসব প্রশ্নের উত্তর এখনো অজানা৷ জার্মানউইংসের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে, কো-পাইলট আন্দ্রেয়াস লুবিৎস শারীরিক এবং মানসিকভাবে পুরোপুরি সুস্থ ছিলেন৷ প্রশিক্ষণ পর্ব কৃতিত্বের সঙ্গে শেষ করে ২০১৩ সালের সেপ্টেম্বরে বৈমানিক হিসেবে কাজ শুরু করেন৷ এতদিন দক্ষতার সঙ্গেই দায়িত্ব পালন করে এসেছেন তিনি৷

বৃহস্পতিবার আন্দ্রেয়াস লুবিৎসের ড্যুসেলডর্ফের অ্যাপার্টমেন্ট এবং মন্টাবাউরে তাঁর বাড়িতে তল্লাশি চালায় পুলিশ৷ তল্লাশি করে বিশেষ কিছু পাওয়া গেছে কিনা তা জানা যায়নি৷

এসিবি/জেডএইচ (এএফপি, ডিপিএ, রয়টার্স, এপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়