1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

ইউনূস বিতর্কে যোগ হচ্ছে আরেক ছবি

নোবেল জয়ী ড. মুহাম্মদ ইউনূসের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছিল এক প্রতিষ্ঠান থেকে অন্য প্রতিষ্ঠানে অর্থ সরানোর৷ গ্রামীণ ব্যাংক এই অভিযোগ ‘ভিত্তিহীন’ বলে জানিয়েছে৷ এরই মাঝে ইটালির এক পরিচালক ইউনূসকে নিয়ে ছবি তৈরির ঘোষণা দিয়েছে৷

default

নোবেল জয়ী বাংলাদেশি প্রফেসর মুহাম্মদ ইউনূস (ফাইল ফটো)

সম্প্রতি ইউনূসের ক্ষুদ্রঋণ কর্মকাণ্ড নিয়ে প্রশ্ন তোলেন টম হাইনম্যান৷ ডেনমার্কের এই ফ্রিল্যান্স সাংবাদিকের প্রামাণ্যচিত্রটির শিরোনাম, ‘ক্ষুদ্রঋণের ফাঁদে'৷ এই প্রামাণ্যচিত্রে প্রায় দেড় দশক আগের এক ঘটনা তুলে আনেন টম৷ তথ্য উপাত্ত দিয়ে তিনি প্রমাণের চেষ্টা করেন, ইউরোপের বিভিন্ন দেশের দাতাদের দেওয়া কোটি কোটি টাকা গ্রামীণ ব্যাংক থেকে গ্রামীণ কল্যাণ নামক অপর একটি প্রতিষ্ঠানে সরিয়ে নিয়েছেন মুহাম্মদ ইউনূস৷

আলোচনার ঝড়

এই অর্থ স্থানান্তরের বিষয়টি গোপন রাখা হয় বলেও প্রামাণ্যচিত্রে তুলে ধরেন টম৷ এছাড়া ক্ষুদ্রঋণের বাস্তবতা নিয়েও নেতিবাচক পরিস্থিতি উঠে আসে তাঁর প্রামাণ্যচিত্রে৷ বলাবাহুল্য ৩০ নভেম্বর নরওয়ের রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন এনআরকেতে এটি প্রচারের পর দেশি-বিদেশি গণমাধ্যমে আলোচনার ঝড় ওঠে৷

নোবেল কমিটি

বিষয়টি গড়ায় নোবেল কমিটি পর্যন্ত৷ তবে নোবেল কমিটির সেক্রেটারি গেইর লানডেস্টাড গণমাধ্যমকে সাফ জানিয়ে দিয়েছেন, মুহাম্মদ ইউনূস ও গ্রামীণ ব্যাংককে শান্তিতে নোবেল পুরস্কার দেওয়ার সিদ্ধান্তে কোন ভুল ছিল না৷

Flash-Galerie Friedensnobelpreisträger 2006 Muhammad Yunus und Grameen Bank

২০০৬ সালে নোবেল জয়ের পর প্রফেসর ইউনূস এবং গ্রামীণ ব্যাংকের এক প্রতিনিধি

গ্রামীণ ব্যাংকের বিবৃতি

ইতিমধ্যে অবশ্য ইউনূসের বিরুদ্ধে অর্থ স্থানান্তরের অভিযোগ উড়িয়ে দেয়েছে গ্রামীণ ব্যাংক৷ শুক্রবার সংস্থাটি এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, ‘এসব সংবাদ প্রতিবেদন সম্পূর্ণ বানোয়াট ও ভিত্তিহীন’৷

গ্রামীণ ব্যাংক এবং গ্রামীণ কল্যাণের মধ্যকার সম্পর্ক বিষয়ে বিবৃতিতে বলা হয়, গ্রামীণ ব্যাংক বোর্ডের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ১৯৯৬ সালে গ্রামীণ কল্যাণ প্রতিষ্ঠা করা হয়৷ গ্রামীণ ব্যাংকের ঋণগ্রহীতা ও কর্মচারীদের লাভের জন্যই এটা করা হয়৷

গণমাধ্যমে গ্রামীণ কল্যাণকে ইউনূসের নিজের প্রতিষ্ঠান হিসেবে তুলে ধরা হলেও গ্রামীণ ব্যাংকের বিবৃতি জানাচ্ছে, ‘কোম্পানি আইন অনুযায়ী গ্রামীণ কল্যাণ একটি অলাভজনক প্রতিষ্ঠান৷ ব্যক্তিগতভাবে কেউ এর শেয়ারের মালিক হতে পারেন না৷'

তাছাড়া তহবিল সরানোর বিষয়টি ১৯৯৮ সালেই নিষ্পত্তি হয় বলে জানিয়েছে গ্রামীণ ব্যাংক৷

ইউনূসকে নিয়ে আরেক ছবি

এদিকে, ইউনূসকে নিয়ে যখন এত বির্তক তখনই আরেক ঘোষণা দিলেন ইটালির এক চলচ্চিত্র পরিচালক৷ ক্ষুদ্রঋণ নিয়ে এই নোবেল জয়ী'র সংগ্রামের ইতিহাস সেলুলয়ডের পর্দায় তুলে ধরতে চান মার্কো আমেনতা৷ ছবির নামও ঠিক করে ফেলেছেন তিনি, ‘ব্যাংকার টু দ্য পুওর'৷ একই নামে ইউনূসের আত্মজীবনীমূলক গ্রন্থটির সত্ত্বও কিনে নিয়েছেন মার্কো৷

বর্তমানে ভারত সফররত মার্কো জানান, আগামী বছরই ভারত, বাংলাদেশ এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ছবির শুটিং হবে৷ ইউনূসের চরিত্রে সেখানে অভিনয় করতে পারেন বলিউড তারকা ইরফান খান৷ তবে অভিনেতা নির্বাচনের বিষয়টি পুরোপুরি চূড়ান্ত হয়নি৷

উল্লেখ্য, ২০০৬ সালে শান্তিতে নোবলে জয় করেন ড. মুহাম্মদ ইউনূস এবং গ্রামীণ ব্যাংক৷

প্রতিবেদন: আরাফাতুল ইসলাম

সম্পাদনা: রিয়াজুল ইসলাম

নির্বাচিত প্রতিবেদন